সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

পোস্টগুলি

November, 2013 থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

অবিবাহিত মেয়েদের শ্বেত প্রদর, রক্ত প্রদর নির্মূলে হোমিওপ্যাথি

আজ দুই বছর আগের একটা গল্প শোনাব আপনাদের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালযে ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসে গ্রাম থেকে আমার এক আত্মীয়া । বয়স ১৮ এর কিছু বেশি হবে । সে আসার পর তার মা আমাকে বিস্তারিত ফোন করে জানায় । দুর্দান্ত কষ্টকর প্রদরে আক্রান্ত । যাই হোক তাকে বিষয়টি জিজ্ঞাসা করলে লজ্জায় বলতে চায় না । তার পর আমি কয়েকটি প্রশ্ন করলে সে আমাকে কাগজে লিখে বিস্তারিত জানায় । আপনাদের বুঝার সুবিধার জন্য আমি হুবহু তার লেখাটি নিচে লিখলাম :


"প্রথম যখন মাসিক হয়েছিল তখন সব কিছু স্বাভাবিক ছিল। কিন্ত পাচ বছর আগে আমি একদিন পুকুর ঘাটে মাথা ঘুরে পড়ে যাই এবং সেই থেকেই শুরু হয় বিভিন্ন ধরনের উপসর্গ। এক মাস পর পর এবং আড়াই দিন থাকে। এর বেশিও না কমও না। প্রথম প্রথম কোমরে প্রচন্ড ব্যথা হত এবং মাথা ঘোরত মাসিকের সময়। 
প্রথম প্রথম হালকা জমাট বাধা রক্ত নির্গত হত এবং তা কালো বর্ণের ছিল না। রক্তের রং তখন লাল ছিল। মাসিক চলা কালীন সময়ে মাথা ঘোরত, বমি বমি ভাব হত। কোমরে এবং পেটে দারুন ব্যথা হত। এখন চলা ফেরা এবং হাটতে কষ্ট হয়। এমনকি বসে খেতে পর্যন্ত কষ্ট হয়। আর মাসিকে কালো জমাট বাধা রক্ত নির্গত হয়। এখন জমাট বাধা রক্তই বেশি নির্গত হয়। দুই…

পুরুষের স্বাভাবিক লিঙ্গ বা পেনিস আসলেই কি বড় করা যায় ?

যুগ যুগ ধরে বিভিন্ন খাবার বড়ি, ক্রিম, ব্যায়াম, লকিং মেশিন এবং অস্ত্রপ্রচারের মাধ্যমে পুরুষরা তাদের লিঙ্গের আকার পরিবর্তনের চেষ্টা করে আসছে । আর প্রায় একশত বছরের বেশি সময় ধরে এর জন্য বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা অথবা চেষ্টা করেও লিঙ্গের আকার পরিবর্তনে তেমন একটা ভাল ফলাফল/আবিষ্কার এখন পর্যন্ত করা সম্ভব হয়নি । কারণ সত্যিকার অর্থে খাবার বড়ি, ক্রিম, ব্যায়াম, লকিং মেশিন ইত্যাদির কোনটিই কার্যকর হয়না । বরং এ রকম চেষ্টার ফলে অনেক পুরুষই লিঙ্গত্থান সমস্যাসহ নানবিধ যৌন জটিলতায় পতিত হচ্ছেন প্রতিনিয়ত ।

ডক্টর মাইকেল ও'লেয়ারী (প্রফেস্যার, হাবর্ড মেডিক্যাল স্কুল । ইউরোলজিষ্ট, ব্রিগহাম এন্ড ওমেন্স হসপিটাল ইন বোষ্টন) বলেন,
"বিশ্বাস করুন, আমি যদি জানতাম কি করে নিরাপদে এবং সত্যিকারেই লিঙ্গের আকার বড় করা যায় - তাহলে আমি তা প্রেসক্রাইব করে কোটিপতি হয়ে যেতাম । কিন্তু আমি এটা জানিনা ।" বুঝুন এবার !! তাই, যারা ফেইসবুক, ব্লগ এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইটে পেনিস বড় করার বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপন দেখে নানা খাবার বড়ি, ক্রিম ব্যবহার করার কথা ভাবছেন তারা একবার বিষয়টি ভেবে দেখবেন আশা করি ।

কারণ আজকাল কে…

কি কি কারণে মেয়েদের পিরিয়ড (Periods) অনিয়মিত হতে পারে ?

মহিলাদের জীবনে দু’তিনটি পর্বে পিরিয়ড অনিয়মিত হয়ে যেতে পারে মেনাকি বা মেন্সট্রুয়েশন শুরুর সময়ে । তখন ওভারি ততটা পরিপকস্ফ হয়ে ওঠে না বলে তার পূর্ণ কর্মক্ষমতা দেখা যায় না । খেয়াল করলে দেখবেন ডেলিভারির পর ৩-৪ মাস পিরিয়ড একটু অনিয়মিত থাকে, তবে সন্তানকে ব্রেস্ট ফিডিং করালে এ পর্বটা আরও দীর্ঘায়িত হতে পারে। আর এ তো সবারই জানা যে মধ্য বা শেষ-চল্লিশে ওভারি প্যাক আপ করার জন্য তৈরি হয় ।

মনোপজের আগে তাই অনিয়মিত হয় পিরিয়ড । তাহলে পিরিয়ড ইরেগুলার কিনা বুঝবেন কীভাবে? উপরে উল্লেখ করা সময়গুলো ছাড়া যদি দুই পিরিয়ডের মধ্যে পাঁচ সপ্তাহের বেশি ব্যবধান হয় তবেই বুঝবেন সমস্যা রয়েছে । তবে জীবনে অনেক ঘটনা আছে যা যৌন হরমোনের ব্যালান্স নষ্ট করতে পারে । তাতেও পিরিয়ড বিঘ্নিত হয় । এক্সারসাইজ :- কথা নেই বার্তা নেই, প্রচুর ব্যায়াম শুরু করে দিলেন । পিরিয়ডের যে নিয়মিত চক্র, তা বিঘ্নিত হতে পারে। আসলে বডি ফ্যাট হঠাত্ কমলে হরমোনে বৈষম্যের ফলে ওভারির ফাংশন পরিবর্তন হয় ।
ডায়েট :- হঠাৎ ভেজিটেরিয়ান হয়ে গেলেন বা ক্রাশ ডায়েট প্রোগ্রাম শুরু করলেন । আপনি অবশ্যই সমস্যা ডেকে আনছেন। দুম করে বন্ধ হতে পারে …

মহিলা এবং পুরুষ বন্ধাত্বে (Infertility) কার্যকর হোমিও চিকিৎসা নিন

বিবাহিত দম্পতিদের সন্তান না হওয়ার বিড়ম্বনা সব সমাজেই বিদ্যমান। সাধারণত ২০-৩৫ বছর বয়স্ক দম্পতিরা একত্রে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে জীবনযাপন করে এবং কোন প্রকার জন্মনিয়ন্ত্রণের সাহায্য না নিয়ে যদি এক বছরের মধ্যে সন্তান উৎদপাদনে সক্ষম না হন তাহলে তাদের বন্ধাত্ব হয়েছে বলা যাবে। যদি স্ত্রীর বয়স ২৫ কিংবা তার বেশি হয়, তাহলে সময়সীমা (দাম্পত্য জীবন) হবে ছয় মাস। এক সমীক্ষায় জানা যায়, ২০-৪০ বছর বয়সের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ২০ শতাংশ সন্তান উৎপাদনে অক্ষম।


সন্তানহীন দম্পতিদের মধ্যে প্রায় ৪৮ শতাংশ ক্ষেত্রে পুরুষের দোষেই এটা হয়ে থাকে। অথচ সন্তানহীনতার দায় অনেক ক্ষেত্রে মেয়েদের বহন করতে হয়। অনেক মেয়েকে এ জন্য অনেক নির্যাতনও সহ্য করতে হয় পরিবার ও সমাজের কাছ থেকে। সন্তানহীনতার অভিযোগে স্ত্রীকে ত্যাগ করে অনেক স্বামী আবারো বিয়ে করে থাকেন সন্তানের আশায়। কিন্তু বাস্তবে সন্তান না হওয়ার দায় কেবল স্ত্রীর নয়, স্বামীরও। তাই সন্তানহীন দম্পতি পরীক্ষার সময় স্বামী ও স্ত্রী উভয়কেই ভালোভাবে পরীক্ষা করা উচিত। এখানে সন্তানহীনতার বিষয়টিকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের আলোকে বিচার-বিশ্লেষণ করে দেখা হলেও ইসলামের দৃ…

পুরুষের বীর্যের বিস্তারিত তথ্যাদি

বীর্য শুধুমাত্র পুরুষের প্রজননতন্ত্র থেকে নির্গত হয় - এটা সকলেরই জানা । আবার নারীদের বীর্য বলে কোন কিছু নেই। নারীদের কখনো বীর্য নির্গত হয়না । তবে যেহেতু নারীর যৌনাঙ্গ এবং মুত্রথলি খুব কাছাকছি অবস্থিত এবং মিলনকালে মুত্রথলিতে যথেষ্ট চাপ পড়ে তাই মিলনে পুর্নতৃপ্তিতে শেষের দিকে সামান্য পরিমান প্রস্রাব বেরিয়ে যেতে পারে যাকে পুরুষ/নারী অজ্ঞতাবশত বীর্য বলে ধরে নেন ।

পুরুষের বীর্য কি :- বীর্য হল অসচ্ছ, সাদা রঙের শাররীক তরল যা বীর্যস্থলনের সময় পুংলিঙ্গের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত মুত্রনালীর মাধ্যমে শরীর থেকে বাহিরে নির্গত হয় । বীর্যের বেশি অংশ যৌন অনুভুতির সময় পুরুষ প্রজননতন্ত্রের ক্ষরন/নিঃসরন হতে সৃষ্ট । ৬৫% বীর্য-তরল ধাতুগত গুটিকা  দ্বারা উৎপাদিত।৩০% থেকে ৩৫% মূত্রস্থলীর গ্রীবা সংলগ্ন গ্রন্থিবিশেষ থেকে সরবরাহকৃত।৫% শুক্রাশয় এবং অন্ডকোষের epididymes নামক অংশ হতে। বীর্যে প্রাপ্ত রাসায়নিক পদার্থগুলো হলো যথাক্রমে – সাইট্রিক এসিড, ফ্রি এ্যামিনো এসিড, ফ্রাকটোস, এনজাইম, পসপোহ্‌রিলকোলিন, প্রোষ্টাগ্লেন্ডিন, পটাশিয়াম এবং জিংক। গড়পড়তা প্রতি বীর্যস্থলনে উৎপাদিত বীর্যের পরিমান ২ থেকে ৫ মিঃলিঃ। বীর্যে…

পুরুষদের সাধারণ যৌন দুর্বলতার ঘরোয়া সমাধান

প্রায় ৭-৮ মাস আগে চট্টগ্রাম থেকে এক ভদ্রলোক আমার ইংরেজি মাধ্যমের ব্লগ থেকে ইমেইল ঠিকানা সংগ্রহ করে আমাকে তার সমস্যার কথা জানায়। তারপর তাকে আমি আমার ফোন নম্বর দিলে তিনি ফোন করেন। বয়স ৪৩ বছর। ২টা ব্যবসা সামলাতে হয় ভদ্রলোককে। তিন জন ছেলেমেয়ের বাবা। সবদিক মিলে বিশ্রাম নেয়ার সময় নেই বেচারার।

আপনিই বলুন এই যে আমাদের শরীরের শক্তির ক্ষয় হচ্ছে প্রতিদিন তার পরিপুর্ণতার জন্য আমরা সেই পরিমান পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করছি কি? স্বাভাবিক ভাবেই আমাদের শরীর অবসন্ন হয়ে আসার কথা। যৌন শক্তি তো আপনার শরীরেরই একটা অংশ। সেখানেও বিঘ্ন ঘটা  নিতান্ত  স্বাভাবিক বিষয় । তার জন্য আমাদের কি করা উচিত ? যাই হোক তারপর আমি ভদ্রলোককে কিছু পরামর্শ দিলাম। যা সবার জন্যে কাজে আসবে। নিচে আমি সেগুলো উপস্থাপন করলাম। সাধারণ যৌন দুর্বলতায় কি করবেন - সপ্তাহে অন্তত ৩-৪ দিন সকালে এক গ্লাস পানিতে ১ চামচ মধু  মিশিয়ে পান করুন। সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ১টি করে ডিম খান। সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন দুধ পান করার অভ্যেস করুন। (ছাগলের দুধ অধিক উপকারী)খুব বেশি পরিশ্রান্ত মনে হলে হোমিওপ্যাথিক ট্রিটমেন্ট নিতে পারেন। নিয়মিত হালকা ব্যায়াম করুন। দৈনি…

তীব্র হস্তমৈথুন অভ্যাস দূর করতে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা নিন

হস্তমৈথুন এমন একটি অভ্যাস যা একবার কাউকে পেয়ে বসলে ত্যাগ করা খুবই কষ্টকর হয়ে দাড়ায়। শুধু তাই না এই অভ্যাসটিই এক সময় অনেক পুরুষের যৌন জীবন বিপর্যস্ত করে তুলে। কারণ এর রয়েছে মারাত্মক কিছু কুফল। যারা নিদারুন হস্তমৈথুন অভ্যাসে আসক্ত হয়ে পড়েছেন এবং ত্যাগ করার জন্য অপ্প্রান চেষ্টা করা সত্তেও ছাড়তে পারছেন না তাদের জন্য আজকের লেখা।

আশা করি এই লেখাটি আপনার জীবনকে বদলে দিবে এবং এই গুনাহের কাজ থাকে আপনাকে মুক্তি দিবে। তারপরও যদি আপনার কোন কথা থাকে আপনি আমাদের সাথে ফোনে কথা বলে তা জেনে নিবেন। ব্লগে কমেন্টস করেও লিখতে পারেন।

অনেকেই সরাসরি বলেন - হস্তমৈথুন অভ্যাস ছাড়ার কোন ট্রিটমেন্ট নেই। অ্যালোপ্যাথিরা অনেকেই সরাসরি বিয়ে করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। চিন্তা করুন - বিয়ে করাটাই কি এই সমস্যার কোন সমাধান বা ট্রিটমেন্ট হয়ে পারে? অবশ্যই নয়। হস্তমৈথুন অভ্যাস এবং এ সংক্রান্ত যাবতীয় কুফলসমূহ দুর করার সবচেয়ে কার্যকর এবং অব্যর্থ চিকিৎসা রয়েছে একমাত্র হোমিওপ্যাথিতে।
অথচ পুঁজিবাদী লবিদের অপপ্রচারে আজ এই আধুনিক যুগেও হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা বিজ্ঞানকে মানুষের কাছে হেয় করে উপস্থাপন করা হয়ে থাকে। যদিও অ্যালোপ্যা…

পুরুষ লিঙ্গের আগা মোটা গোঁড়া চিকন ও বক্রতায় করণীয়

আমাদের দেশের অবিবাহিত তরুণ-যুবকরা যে বিষয়টি নিয়ে সবচেয়ে বেশি চিন্তা করে সেটা হলো তাদের পেনিস। এ পর্যন্ত যত ফোন কল পেয়েছি তার মধ্যে প্রায় হাজার খানেক হবে যেখানে পেশেন্টরা একটা অভিযোগই আমাদের করেছেন যে তাদের পেনিসের গোঁড়া চিকন আগা মোটা এবং এটা নিয়ে তারা দুশ্চিন্তাগ্রস্থ। তাই আজ ভেবেছি এই বিষয়টা নিয়া লিখব এবং প্রকৃত সত্যটা অবিবাহিত তরুণ সমাজের কাছে তুলে ধরব যেন তার ভবিষ্যতে এটা নিয়ে বিভ্রান্ত না হয়। পুরুষাঙ্গ নিয়ে আপনার মনে এপর্যন্ত যত প্রকার বদ্ধমূল ধারণা তৈরী হয়েছে সবগুলিকেই মন থেকে মুছে ফেলুন এবং নিচের বিষয় গুলি মনোযোগ দিয়া স্মরণ রাখার চেষ্টা করুন।
--এক নজরে ভিডিওটিতে দেখুন-- পেনিস বা পুরুষাঙ্গ বিষয়ক তথ্যাদি :-
উত্তেজিত অবস্থায় পুরুষ লিঙ্গের গড় দৈর্ঘ্য হয়ে থাকে ৪.৭ থেকে  ৬.৩ ইঞ্চি। অনেকের মতে পেনিসের গড় দৈর্ঘ্য ৫.১-৫.৯ ইঞ্চি। তবে আপনার পেনিস যদি লম্বার সর্বনিম্ন ৪ (চার) ইঞ্চিও হয়ে থাকে তাহলেও আপনার স্ত্রীকে তৃপ্তি দিতে আপনার কোনো সমস্যা হবে না। অনেক বিশেষজ্ঞরা আবার এও বলে থাকেন স্ত্রীকে অরগাজম দিতে মাত্র ৩ ইঞ্চি লম্বা পেনিস হলেই যথেষ্ট।বড় পেনিস মানেই বেশি আনন্দ, কথাটা ঠিক ন…

নারীদের যৌন রোগসমূহ এবং সেগুলির প্রতিকার

পুরুষদের তুলনায় দেখা যায় মেয়েদের যৌন সংক্রান্ত সমস্যা গুলি বেশ কষ্টদায়ক। শুধু তাই নয়, সময় মত ট্রিটমেন্ট না নিলে নারীদের সমস্যা গুলি বেশ জটিল আকার ধারণ করে। তাই এ বিষয়ে প্রত্যেক নারীদেরই সচেতন থাকা উচিত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ১২ থেকে ২০ বছরের মেয়েদেরকে যুবতী বলা হয়। এই সময়ের মধ্যে মেয়েরা শারীরিক এবং মানসিক পূর্ণতা লাভ করে থাকে। যুবতী মেয়েদের সাধারণ যৌন রোগ সমস্যাগুলো হলো-
ঋতু স্রাব সমস্যাসাদা স্রাবতলপেট ও কোমরে ব্যথা ঋতু স্রাব সমস্যাকে নিম্নের কয়েক ভাগে ভাগ করে আলোচনা করা যেতে পারে। (০১)  একবারে মাসিক না হওয়া  (০২)  অনিয়মিত মাসিক হওয়া  (০৩)  অতিরিক্ত রক্তস্রাব হওয়া যেসব যুবতীর মাসিক নিয়মিত হয় বুঝতে হবে তাদের ডিমগুলো সময়মতো ফুটে থাকে। আমাদের দেশে শতকরা ৩০ থেকে ৪০ জন মহিলার নিদিষ্ট সময়ের মধ্যে মাসিক আরম্ভ হয় না। আবার অনেক যুবতীর মাঝে মাঝে অথবা কখনো কখনো একটু আধটু রক্তস্রাবের মতো হতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে প্রচুর স্রাব হয়ে থাকে। এসব যুবতী ও তাদের মা, খালা এবং অন্যান্য মহিলা আত্মীয় অত্যন্ত দুশ্চিন্তায় থাকেন। চিকিৎসকেরা মনে করেন এর প্রধান কারণ হলো -  অসচেতনতা এবং অজ্ঞ…

বিভিন্ন অবস্থায় মহিলাদের মাসিকের সমস্যা ও সমাধান

একজন নারী কৈশোর থেকে পরিপূর্ণ হয়ে ওঠার জন্য শরীরের ভেতরে ও বাইরে ১২ থেকে ১৪ বছর বয়সের মেয়েদের বিভিন্ন রকম পরিবর্তন হয়। অনেক পরিবর্তনের অন্যতম একটি হলো রজঃস্রাব, যা সাধারণত মাসে মাসে হয় - তাই এটাকে মাসিক বা পিরিয়ড অথবা সাইকেলও বলা হয়। সাধারণত এটা তিন থেকে সাত দিন স্থায়ী হয়। এ মাসিকই আবার অনেক সময় দুই বা তিন অথবা চার মাস পরপর হয়।


আবার কখনো কখনো অতি অল্প বা খুব বেশি রক্তস্রাব হতে পারে। মাসিক নিয়মিত হওয়ার জন্য সঠিক ওজন, স্বাস্থ্য, পুষ্টি, আবহাওয়া, জলবায়ুর পরিবর্তন ও শরীরের ভেতরের বিভিন্ন গ্রন্থির পরিমাণমতো নিঃসৃত হরমোন প্রয়োজন। এসব গ্রন্থির মাঝে রয়েছে থাইরয়েড, অ্যাডরেনাল ও ওভারি। অনিয়মিত ও অস্বাভাবিক মাসিকের সম্ভাব্য কোনো কারণ জানা না থাকলে তাকে ডিইউবি বা ডিসফাংশনাল ইউটেরাইন ব্লিডিং বলা হয়। বয়স অনুসারে ডিইউবিকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে— বয়ঃসন্ধিকালীন :- এটা মাসিক শুরু হওয়ার পর থেকে রক্ত যাওয়া চলতেই থাকলে মেয়েরা ও তাদের অভািবকেরা প্রচণ্ড চাপের মধ্যে থাকে। ফলে শরীর খুব শুকিয়ে যেতে পারে বা মাত্রাতিরিক্ত স্থূল হতে পারে। আবার অতিরিক্ত রক্ত যাওয়ার জন্য রক্তশূন্যতা দেখা…

পুরুষের দ্রুত বীর্যপাত সমস্যা দূরীকরণে কার্যকর সমাধান

আজকাল বাংলাদেশের নানা স্থানে রাস্তাঘাটের দেয়ালে দেয়ালে যে সব ডাক্তারী বিজ্ঞাপন দেখা যায়, সেগুলো দেখলে যে কারো এমন ধারণা হওয়াই স্বাভাবিক যে আমাদের দেশে পুরুষদের যৌন দুবর্লতার সমস্যা একটু বেশী। আবার এসব বিজ্ঞাপনের বেশীর ভাগই দেখা যায় হোমিও ডাক্তারদের বিজ্ঞাপন। এতে অনেকের মনে হতে পারে যে, সম্ভব হোমিওপ্যাথিতে যৌন রোগের সবচেয়ে ভালো চিকিৎসা আছে। হ্যাঁ, বাস্তবেও কথাটি সত্য। অন্য যাবতীয় রোগের মতো যৌনরোগেরও সবচেয়ে ভালো এবং সর্বাধিক কার্যকর চিকিৎসা আছে হোমিওপ্যাথিতে।

হোমিও ডাক্তারদের কাছে যৌন দুবর্লতার যত রোগী যান, তাদের প্রত্যেকেই বলেন যে, এলোপ্যাথিক, হারবাল, ভেষজ বা কবিরাজি চিকিৎসায় তারা কোন সত্যিকারের উপকার পান নাই। ( যতদিন ঔষধ খাই ততদিনই ভাল থাকি; ঔষধ বন্ধ করলেই অবস্থা আগের মতো। ) অন্যদিকে মহিলাদেরও যৌনদুর্বলতা, যৌনকর্মে ‍অনীহা ইত্যাদি থাকতে পারে এবং হোমিওপ্যাথিতে তারও চমৎকার চিকিৎসা আছে। শুধু তাই নয়, একবারের যথাযথ হোমিও চিকিৎসাতেই সমস্যাটি একেবারে রুট লেভেল থেকে দূর হয়ে যায় তার জন্য সবসময় হোমিও ঔষধ খেয়ে যাওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। আর অন্যদিকে এলোপ্যাথি বা হারবালের উত্তেজক ঔষধসমূহ সব সম…