সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

পোস্টগুলি

February, 2016 থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

রাতে ঘুমাতে সাহায্য করবে মাত্র এক চামচ!

রাতের ঘুমটি ভাল না হলে পরের দিনটি ক্লান্তিময় অবসাদময় কেটে থাকে। বিভিন্ন কারণে রাতে ভাল ঘুম নাও হতে পারে। এর মধ্যে অনিদ্রা অন্যতম কারণ। পৃথিবীতে এমন অনেক মানুষ আছেন যারা প্রতিনিয়ত অনিদ্রা সমস্যায় ভুগে থাকেন। ঘুমের জন্য অনেকেরই খেতে হয় নানা ধরণের ঘুমের ঔষুধ। আবার ঘুমের ঔষুধের রয়েছে নানা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া। অনেক সময় ঘুমের ঔষুধ খাওয়ার কারণে সকালে ঘুম থেকে উঠার পরও ক্লান্তিবোধ লাগে। যার ফলে কাজে মনোযোগ দিতে পারেন না। প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক চামচ খান এই মিশ্রণ আর দেখুন এর জাদুকরী প্রভাব।

যা যা লাগবে:
১/৪ চা চামচ বিশুদ্ধ মধু ১/৮ চা চামচ সামুদ্রিক লবণ১ টেবিল চামচ নারকেল তেলযেভাবে খাবেন:
১। নারকেল তেল, মধু এবং লবণ ভাল করে মিশিয়ে নিন। এবার এটি এক চামচ খান। তারপর এক গ্লাস পানি পান করুন।

২। এছাড়া আপনি মধু এবং নারকেল তেল আলাদা আলাদা ভাবে খেতে পারেন। তারপর এক গ্লাস পানি পান করে নিন। এরপর এক গ্লাস পানিতে লবণ মিশিয়ে পান করুন।
যেভাবে কাজ করে: বিশুদ্ধ মধু, নারকেল তেল, লবণ এবং পানি আপনার শরীর এবং মনকে রিল্যাক্স করে দেয়। এছাড়া এটি করটিসলের উপর প্রভাব ফেলে থাকে যা আপনাকে ঘুম পাড়িয়ে দিয়ে এবং মা…

যে ৭টি কারণে আপনার গর্ভের শিশুটির ক্ষতি হতে পারে

সন্তান জন্মদান প্রতিটি নারীর জন্য বিশেষ মুহূর্ত। অনাগত সন্তানকে সুস্থ রাখার জন্য প্রতিটি মায়ের থাকে অপ্রাণ চেষ্টা। প্রতিটি মা-ই চান তার সন্তানটি সুস্থ থাকুক। কিন্তু কিছু কাজ আছে যা করে নিজের অজান্তে অনাগত শিশুটির ক্ষতি করে থাকেন মায়েরা। বিশেষজ্ঞরা এমন কিছু কাজ খুঁজে বের করেছেন যা অনাগত শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

১। দূষণ :- গবেষণায় দেখা গেছে যেসকল গর্ভবতী মহিলারা দূষণযুক্ত এলাকায় বেশি সময় কাটিয়ে থাকেন, তারা তুলনামূলকভাবে কম ওজনের শিশু জন্ম দিয়ে থাকেন। এই সমস্যা থেকে বাঁচতে প্রচুর পরিমাণে ফল এবং সবজি খান।

২। প্রচুর কফি পান :- বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে ক্যাফিন আপনার গর্ভপাতের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে থাকে। দিনে দুই কাপের বেশি কফি খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। অতিরিক্ত কফি মায়ের হার্টবিটের হার বৃদ্ধি করে রক্তনালীতে জটিলতা সৃষ্টি করে থাকে। যা আপনার শিশুর উপর প্রভাব ফেলে থাকে।

৩। প্রসেসড খাবার :- প্রসেসড খাবার বিশেষভাবে মাংস গর্ভবতী মহিলার জন্য মারাত্নক ক্ষতিকর। এতে লিসটিরা নামক ব্যাকটেরিয়া রয়েছে যা শিশুর মৃত কারণও হতে পারে। তাই এইসময় প্রসেসড খাবার বিশেষত মাংস খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।
৪। ভিটামিন ডি :-

জাস্ট জিরা খেয়ে ১৫ দিনে ঝরান মেদ । দেখুন, কখন কি ভাবে খাবেন ?

জিরার যে এত জারিজুরি তা কি জানেন? না না, রান্নার কথা বলছি না। ঝোলে-ডালে-অম্বলে, সবেতেই সে আছে। কখনও পাঁচফোড়নে, কখনও তেজপাতার সঙ্গে ফোড়ন দিতে, কখন শুধুই জিরা বাটা, কখনও আবার আদার সঙ্গে একসঙ্গে বাটা। রান্নায় জিরার ব্যবহার নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। শুধুই যে রান্নায় সুগন্ধের জন্য জিরা ব্যবহার হয়, তা কিন্তু নয়। স্বাস্থ্যের কথা ভেবেও আমরা রান্নায় জিরা দিই। স্পাইসি এই মশালা যে আপনার শরীর থেকে বাড়তি মেদ ঝরাতেও ওস্তাদ, সে খোঁজ কি রাখেন? হাতের কাছে ক্যালেন্ডার থাকলে, জাস্ট দিনটি দেখে নিয়ে গোল্লা পাকান।
ধৈর্য ধরে ১৫টি দিন দেখুন। এর মধ্যে রোজ নিয়ম করে এক চামচ গোটা জিরা খেয়ে ফেলুন। একদিনও বাদ দেবেন না। তার আগে আর একটি কাজ আপনাকে করতে হবে। নিজের ওজন নিয়ে, লিখে রাখুন। ১৫দিন পর ফের ওজন নিন। নিজেই অবাক হয়ে যাবেন। কলা দিয়ে জিরা খেলেও ওজন ঝরবে। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, গোটা জিরা খুব দ্রুত শরীর থেকে ওজন ঝরাতে সক্ষম।

শুধু যে চর্বি বের করে দেয়, তা কিন্তু নয়। একই সঙ্গে অস্বাস্থ্যকর কোলেস্টেরলকে শরীর থেকে বের করে দেয়। ফলে, যারা ওজন কমানোর জন্য জিমে গিয়ে ঘাম ঝরাচ্ছেন, একবার ১৫ দিনের জন্য জিরা…

লেবু দিয়ে চার্জ করুন আপনার মোবাইল! (ভিডিও)

শিরোনাম দেখে অবশ্যই চমকে গেছেন আপনিও! তাই না? তবে এটি কোন ভুল খবর নয়। সত্যি লেবু দিয়ে চার্জ করতে পারবেন আপনার মোবাইল। কিন্তু কিভাবে? আসুন জেনে নেয়া যাক- প্রথমে একটি পুরাতন ইউএসবি চার্জার ক্যাবল নিয়ে নেন। ‘ইউএসবি এ’ প্লাগ অর্থাৎ যে পাশটি আপনি সুইচে লাগান সেই অংশ কেটে নিন। কাটার পর সেখানে চারটি তার দেখতে পাবেন। সেখান থেকে দুইটি তার কেটে ফেলুন।

সাদা ও সবুজ রংয়ের তার কেটে ফেলুন। এরপর কালো ও লাল রংয়ের তার রেখে দিন এবং সেই দুই তার কারেন্ট পরিবহনের কাজে লাগানো হবে। এবার কয়েকটি তামার মুদ্রা এবং দস্তা দিয়ে লেপা পিন নিয়ে নিন যা ইলেক্ট্রোড হিসেবে কাজ করবে এবং লেবুর রস ইলেক্ট্রোলাইট হিসেবে কাজ করবে।
কিছু তার ও পেপারক্লিপ নিয়ে এদেরকে একত্রে ঐ ভিডিও ক্লিপে যেভাবে প্রদর্শিত হচ্ছে সেভাবে লাগিয়ে নিন। একটি লেবু ০.৯৫ ভোল্ট জেনারেট বা সাপ্লাই করে। তাহলে যদি ৬টি লেবুকে একত্রে সংযুক্ত করা হয় তাহলে তা ৫.৭ ভোল্ট সাপ্লাই করবে। মোবাইল চার্জ করতে ৫ ভোল্ট কারেন্টের প্রয়োজন হয়, তাহলে ৬টি লেবু চার্জ দেয়ার জন্য যথেষ্ট। এবার সেই ছয়টি লেবুর সাথে ইউএসবি এর সেই ক্যাবল সংযুক্ত করুন। এরপর আপনার মোবাইল চার্জে দিন। এবার…

ছিলেন ডাকাত, হলেন ধর্মগুরু

জাপানের রাজধানী টোকিওর শহরতলীর একটি ছোট্টো শহর কাওয়াগুচি। রোববারের বৃষ্টিস্নাত সকালে শহরের অধিবাসীরা যে যার মতো বাহারি রংয়ের ছাতা নিয়ে কাজের উদ্দেশ্যে যাচ্ছে। জীবন এখানে খুব নিরিবিলি। শীত হয়ে গ্রীস্ম এই শহরে আসে খুব অনাড়ম্বর ভাবে। শহরের এক প্রান্তের একটি বারের দিকেও কেউ কেউ যাচ্ছেন। বারের দরজাটির সামনে লেখা জুন ব্রাইড। গত পঁচিশ বছর ধরে সাইতামা অঞ্চলের অধিবাসীদের কাছে এটাই একমাত্র স্থানে যেখানে কিছুটা সময় নিরিবিলি অতিক্রম করা যায়।

দীর্ঘদিনের এই পরিচিত বারটির বাইরের চেহারায় সামান্য পরিবর্তন আসলেও এর ভেতরে এসেছে আমূল পরিবর্তন। আগের বার ও মঞ্চের জায়গায় এখন ভিন্নধর্মী আসবাব বসানো হয়েছে। একটা সময় ছিল যখন এই বারটিতে শুধু মদ খাবার জন্যই মানুষ আসতো। কিন্তু এখন যারা মদ খেতে ভালোবাসেন তারা শতহাত প্রায় দূরেই থাকেন জুন ব্রাইডের। কারণ জুন ব্রাইড আর এখন মদ বিক্রির কোনো দোকান নয়, উল্টো এটি বর্তমানে একটি উপাসনালয়।

জুন ব্রাইডের দরজা দিয়ে সর্বশেষ যিনি প্রবেশ করলেন তাকে সবাই সেনসি তাতসুয়া সিন্দো নামেই চেনে। তিনি ঘরে ঢুকেই নিজের দুহাত তুলে সবার জন্য মুহূর্তের মধ্যে প্রার্থনা করে নিলেন। ৪৪ বছরের সিন্দোকে …

একটা রিং পড়লেই আর থাকবে না এইডসের ভয়

সুখের সঙ্গে দুঃখের সম্পর্কটা যেমন ঠিক তেমনই সেক্সের সঙ্গে এইডসের। তাই যৌন মিলনে যাওয়ার আগে সবসময় সুরক্ষার কথাটা মাথায় রাখা দরকার। তবে এই সুরক্ষার অনেকটাই থাকে পুরুষদের হাতে। যদিও গোটা বিশ্বে পুরুষদের তুলনায় মহিলারাই বেশি এই রোগের শিকার। কিন্তু এবার আর এইডস আটকানোর জন্য শুধু কন্ডোমের ওপর ভরসা করতে হবে না। একটা রিং পড়লেই মহিলারাও আটকাতে পারবেন এইডসের সংক্রমণ।

আফ্রিকার দীর্ঘদিনের গবেষণার ফল 'ভেজাইনাল রিং'। এই রিংয়ে দেওয়া রয়েছে অ্যান্টি এইডস কোটিং। ফলে এই রিং পড়ে সেক্স করলে অনেকটাই কমে যাবে এইডস সংক্রমণের ভয়। একটি রিং একবার পড়লে কাজ করবে দু'মাস। কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে এই রিং যতটা ২৫ বা তার বেশি বয়সের মেয়েদের ওপর কার্যকরী ততটা এর থেকে কম বয়সী মেয়েদের ওপর নয়। এর কারণ খুঁজে 'ভেজাইনাল রিং' কে আরও উন্নত করার চেষ্টা চলছে।

যে ৬টি ভুলে আপনি নিজেই নষ্ট করে ফেলছেন দেহের কিডনি দুটি!

আমাদের শরীরের নানা বর্জ্য পদার্থ, অব্যবহৃত খাদ্য এবং বাড়তি পানি নিষ্কাশনে সাহায্য করে কিডনি। দেহের নানা বর্জ্য পদার্থের ক্ষতিকর টক্সিন থেকে আমাদের শরীরকে মুক্ত রাখার জন্য কিডনি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। আর একারণেই আমাদের দেহের সুস্থতার জন্য কিডনির সুস্থতা অনেক বেশি জরুরী। কিন্তু আমরা বেশিভাগ সময়েই কিডনির দিকে ঠিক মতো নিজ্র দিতে ভুলে যাই। আর শুধুমাত্র এই কারণে প্রতিবছর অনেক মানুষ কিডনির সমস্যায় পড়ে থাকেন। এবং কিডনির সমস্যায় মৃত্যুর হারই বেশি।

কিডনির প্রতি আমাদের ঠিকমতো নজর না দিয়ে কিডনির রোগে আক্রান্তের জন্য দায়ী আমরা নিজেরাই। প্রতিনিয়ত আমরা এমন কিছু অনিয়ম করে থাকি যার প্রভাব সরাসরি পড়ে আমাদের কিডনির ওপর। কিন্তু আমাদের নিজের ভালোর জন্য আমাদের সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। চলুন তবে কিডনির ক্ষতির জন্য দায়ী অনিয়মগুলো জেনে নিই এবং সতর্কতার সাথে এই অনিয়মগুলো এড়িয়ে চলার চেষ্টা করি।

মদ্যপান করা:- মদ্যপান কিডনির জন্য সব চাইতে বেশি ক্ষতিকর। অ্যালকোহল কিডনি আমাদের দেহ থেকে সঠিক নিয়মে নিস্কাশন করতে পারে না। ফলে এটি কিডনির মধ্যে থেকেই কিডনির কার্যক্ষমতা কমিয়ে দিয়ে কিডনি নষ্ট করে দেয়। অতিরিক্ত …

মধুর যে ৬ টি অসাধারণ ব্যবহার আপনার একেবারেই অজানা!

সেই প্রাচীনকাল থেকে মধু নানা চিকিৎসা বিদ্যায় ব্যবহার হয়ে আসছে। মধুর প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান মধুকে প্রাকৃতিক ঔষধিতে পরিণত করেছে। দৈনন্দিন জীবনে তাই মধুর ব্যবহারের সীমা নেই। মধুর অনেক ব্যবহার সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানি না। আজকে জেনে নিন মধুর অসাধারণ সব ব্যবহার যা আপনি আগে জানতেন না। 
১) ফেসওয়াশ হিসেবে সাধারণ ফেসওয়াশের পরিবর্তে ব্যবহার করতে পারেন মধু অনায়েসেই। মধুর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান ত্বকের ব্রণ কমায় এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকের দাগ দূর করে। এছাড়াও প্রাকৃতিক ময়েসচারাইজার মধু ত্বকের কোমলতা বাড়ায়।  ২) প্রাকৃতিক কফ সিরাপ ঠাণ্ডা সর্দি যদি একেবারেই দূর না হতে চায় এবং কাশির সমস্যা চলতেই থাকে তাহলে প্রতিদিন ১/৪ কাপ কুসুম গরম পানিতে ২ টেবিল চামচ মধু এবং অর্ধেকটা লেবুর রস চিপে পান করুন। অনেকটা উপশম হবে।  ৩) ঘুমের সমস্যা দূর করতে আপনার কি প্রায় প্রতিদিনই রাত ২ -৪ টার মধ্যে ঘুম ভেঙে যায় অথবা ৪ টার আগে ঘুমাতেই পারেন না? তাহলে বিছানার পাশে ছোট একটি বোতলে মধুর সাথে সামান্য লবণ মিশিয়ে রাখুন। এবং ঘুমের সমস্যা হলেই জিহ্বাইয় ২-৩ ফোঁটা লবণাক্ত মধু দিন। ব্যস, দ…

দু’টি উপাদানেই ডায়াবেটিস নিরাময়

বহুমূত্র বা ডায়াবেটিস একটি হরমোন জনিত রোগ। দেহযন্ত্র অগ্ন্যাশয় যদি যথেষ্ট ইনস্যুলিন তৈরি করতে না পারে অথবা শরীর যদি উৎপন্ন ইনস্যুলিন ব্যবহারে ব্যর্থ হয়, তাহলে ডায়াবেটিস হয়। তখন রক্তে চিনি বা শকর্রার উপস্থিতিজনিত অসামঞ্জস্যতা দেখা দেয়।

অগ্ন্যাশয় থেকে নিঃসৃত হরমোন ইনস্যুলিন, যার সহায়তায় দেহের কোষগুলো রক্ত থেকে গ্লুকোজকে নিতে সমর্থ হয় এবং একে শক্তির জন্য ব্যবহার করতে পারে। ইনস্যুলিন উৎপাদন বা ইনস্যুলিনের কাজ করার ক্ষমতার যেকোনো একটি বা দুটোই যদি না হয়, তাহলে রক্তে বাড়তে থাকে গ্লুকোজ। আর একে নিয়ন্ত্রণ না করা গেলে ঘটে নানা রকম জটিলতা, দেহের টিস্যু ও যন্ত্র বিকল হতে থাকে।

বিশ্বে এ রোগীর সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। বাংলাদেশেও এর প্রাদুর্ভাব কম নয়। প্রতিবছর হাজারো মানুষ মারা যান এ রোগে আক্রান্ত হয়ে।

জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যান মতে, বিশ্বে ৩৮০ মিলিয়ন লোক ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি ১০০ জনে ২৫ জন এ রোগে ভুগছেন।
সংস্থাটির মতে, এ অবস্থা চলতে থাকলে ২০৩০ সালের মধ্যে ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে যাবে। স্তন ক্যানসার ও এইচআইভিএইচ মিলে বিশ্বে যত মানুষ …

মুখের মেদ কমানোর এক্সারসাইজ

একটা ব্যাপার খেয়াল করেছেন, অনেকরই শরীরে মেদ বাড়লেই সবার আগে মুখেই তার প্রভাব পড়তে শুরু করে। ফলে মুখ ভারী দেখায়, গাল ফুলে যায়, বিশেষত থুতনির কাছে মেদ জমে যায়। এই সমস্যা মেকাপ দিয়েও সমাধান করা যায় না। মুখ থেকে মেদ কমাবার সহজ এবং নিরাপদ ও সম্ভবত একমাত্র উপায় হচ্ছে এক্সারসাইজ।

কোন ধরনের এক্সারসাইজ ? অ্যারোবিক বা যোগাভ্যাসের অভ্যাস থাকলে তাতে পরিবর্তন আনার প্রয়োজন নাই। মুখের মেদ কমানোর জন্য শরীরে মেদ বা ফ্যাট কমানোর পাশা পাশি নিয়মিত এক্সারসাইজের সাথে মুখের জন্য আলাদা করে কিছু এক্সারসাইজ করলে ফলাফলটা একটু জলদি পেতে পারেন।

টিপস-এক :- চোখ দুটি বন্ধ করে, চোখের পাতার উপর আঙ্গুল রাখুন। এবার চোখের পাতা নিচের দিকে নামানোর চেষ্টা করুন এবং একই সঙ্গে ভুরু উপরে তোলার চেষ্টা করুন। প্রতিদিন ৫ মিনিট এই এক্সারসাইজটি করলে আপনার কপালটি টোনড হবে। অনেকের মুখে মেদ জমলে চোখের তলাতেও মেদ জমে। আর তাই চোখের মেদ কমাতে চোখ দুটি বন্ধ করে রিলেক্স করুন। এবার চোখ দুটি বন্ধ অবস্থায় চোখের মনি উপরে তুলুন এবং নীচে নামান। প্রতিদিন ১০ মিনিট এই এক্সারসাইজটি করুন। এরপর চোখ বন্ধ অবস্থায় যতটা সম্ভব ভুরু উপরের দিকে তো…

জেনে নিন জাতীয় পরিচয়পত্রের আইডি নম্বরের অর্থ

বাংলাদেশি নাগরিকদের মধ্যে যারা প্রাপ্ত বয়স্ক তাদের সবারই জাতীয় পরিচয় পত্র রয়েছে। অনেকেই এটাকে আইডি ভোটার আইডি কার্ড হিসেবে জেনে থাকে। তবে যারা এটাকে ভোটার আইডি কার্ড হিসাবে জেনে থাকেন তারা ভুল জানেন।

মূলত এটা জাতীয় পরিচয় পত্র। যা সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়। পাঠক, একটু লক্ষ্য করলে দেখবেন জাতীয় পরিচয়পত্রের নীচের দিকে লাল রংয়ের কালি দিয়ে লেখা ১৩ সংখ্যার একটা নম্বর আছে যাকে আমরা আইডি নম্বর হিসাবে জানি। কিন্তু এই ১৩ সংখ্যার মানে কি? তাহলে জেনে নিন এখুনি
১) প্রথম দুই সংখ্যা: জেলা কোড। ৬৪ জেলার আলাদা আলাদা কোড আছে। ঢাকার জন্য এই কোড ২৬।

২) পরবর্তী এক সংখ্যা: এটা আরএমও (RMO) কোড। সিটি কর্পোরেশনের জন্য ৯, ক্যান্টনমেন্ট ৫, পৌরসভা ২, পল্লী এলাকা ১। পৌরসভার বাইরে শহর এলাকা ৩, অন্যান্য ৪।

৩) পরবর্তী দুই সংখ্যা: এটা উপজেলা বা থানা কোড।

৪) পরবর্তী দুই সংখ্যা: এটা ইউনিয়ন (পল্লীর জন্য) বা ওয়ার্ড কোড (পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশনের জন্য)।

৫) শেষ ছয় সংখ্যা: আইডি কার্ড করার সময় আপনি যে ফর্ম পূরণ করেছিলেন এটা সেই ফর্ম নম্বর।

বর্তমানে আবার ১৭ ডিজিটের আইডি কার্ড দেয়া হচ্ছে যার প্রথম চার ডিজিট হচ্…

যেভাবে ডেন্টিস্ট ছাড়াই দূর করবেন দাঁতের হলুদ বা বাদামি টার্টার

সবার দাঁতেই কমবেশি হলুদ বা বাদামি খনিজ পদার্থের প্রলেপ দেখা যায়। একে ইংরেজিতে টার্টার বলে। আমরা যাকে দাঁতে পাথর পড়া হিসেবে চিনি। নিয়মিত পরিষ্কার না করলে এই টার্টার ক্রমশ বাড়তে থাকে। যা দাঁতের পিরিওডোনটাইটিসের কারণ।

পিরিওডোনটাইটিস কী :- পিরিওডোনটাইটিস হলে দাঁতের মাড়ির টিস্যুতে প্রদাহ হয়। ফলে মাড়ি সংকোচিত হয়ে অকালে দাঁত পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

এ সমস্যা এড়াতে প্রয়োজন নিয়মিত দাঁতে জমা টার্টার পরিষ্কার করা। টার্টার দূর করার প্রথম সমাধান হলো ডেন্টিস্ট। তবে আপনি চাইলে বাড়িতে বসেও এ সমস্যার সমাধান করতে পারেন।

টার্টার পরিষ্কার করতে যা লাগবে
বেকিং সোডাডেন্টাল পিকলবণহাইড্রোজেন পেরোক্সাইডপানিটুথব্রাশকাপঅ্যান্টিসেপটিক মাউথ ওয়াশ টার্টার দূর করতে সবচেয়ে সহজলভ্য ও কার্যকরী উপাদান হচ্ছে বেকিং সোডা। আসুন এবার জেনে নিই টার্টার দূর করার পদ্ধতি।
প্রথম ধাপ :- কাপে এক টেবিল চামচ বেকিং সোডার সঙ্গে ১/২ চা চামচ লবণ মেশান। এবার গরম পানিতে টুথব্রাশ ভিজিয়ে বেকিং সোডা ও লবণের মিশ্রণ দিয়ে পাঁচ মিনিট ধরে দাঁত ব্রাশ করুন। সবশেষে কুলকুচি করে নিন।

দ্বিতীয় ধাপ:-
এক কাপ হাইড্রোজেন পেরোক্সাইডের সঙ্গে ১/২ কাপ হালকা গরম পানি …

কোন ৫টি খাবার কখনও ফ্রিজে রাখবেন না

ফ্রিজে কাঁচা সবজি বা ফল রাখলে তা দীর্ঘদিন ভালো থাকে। প্রচলিত ধারণা এটাই। কিন্তু, এর উল্টোটাও আছে। যখন ফ্রিজে রাখলে তা ভালো থাকার বদলে বরং আরও তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। কী কী ফল ও সবজি কখনও ফ্রিজে রাখা উচিত নয়- ১) কলা- ফ্রিজের ঠান্ডায় কলা পাকতে পারে না। ফলে তাড়াতাড়ি পচে যায়।  ২) টমেটো- ফ্রিজে রাখলে টমেটোর স্বাদ ও গন্ধ, দুই-ই যায়।  ৩) আপেল- আপেলের ক্ষেত্রেও ফ্রিজে রাখলে টমেটোর মতো দশা হয়। তাই ঠান্ডা আপেল খেতে চাইলে খাওয়ার আধঘণ্টা আগে আপেলটি ফ্রিজে রাখুন।  ৪) পেঁয়াজ- ফ্রিজে কখনওই পেঁয়াজ রাখা উচিত নয়। কারণ ফ্রিজের বদ্ধ জায়গায় ঠিকমতো বায়ু চলাচল হয় না। ফলে পেঁয়াজ পচে যায় তাড়াতাড়ি। এমনকী পেঁয়ারজকে কখনও আলুর সঙ্গেও রাখা উচিত নয়। পেঁয়াজকে সবসময় পরিষ্কার-শুষ্ক ও বায়ু চলাচল করে এমন জায়গায় রাখা উচিত।  ৫) অ্যাভোকাডোস- কলার মতো অ্যাভোকাডোসও ফ্রিজে রাখলে পাকতে না পেরে তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়ে যায়

ATM-এ কার্ড ঢোকালেন টাকা বেরোলো না, কী করবেন

গত এক দু' দশকে প্রযুক্তি যে ক্ষেত্রে আমুল পরিবর্তন এনে দিয়েছে তা হল ব্যাঙ্কিং। এটিএম তো রয়েইছে, সঙ্গে ইন্টারনেট, মোবাইল প্রভৃতির মাধ্যমেও যে কোনও জায়গা থেকে ব্যাঙ্কের যাবতীয় কাজ করে ফেলা যাচ্ছে অনায়াসে। তবে অনেক সময়ই প্রযুক্তির বাজে দিকটার ঝক্কিও সামলাতে হয় আমাদের। ধরুন, খুব প্রয়োজনে টাকা তুলতে এটিএম গেলেন। টাকা তোলার জন্য প্রয়োজনীয় ট্রান্স্যাকশনও সম্পূর্ণ হল, টাকা কেটে নেওয়ার এসএমএস-ও পেলেন, কিন্তু টাকা মেশিনেই রয়ে গেল। এ ক্ষেত্রে কী কী করণীয় দেখে নিন এক নজরে।

১) নিজের ব্যাঙ্কে গিয়ে অভিযোগ জানান: আপনি যে কোনও ব্যাঙ্কের এটিএম ব্যবহার করতে পারেন, তবে টাকা না বেরলে আপনার নিজের ব্যাঙ্কেই অভিযোগ জানাতে যেতে হবে। যদি ব্যাঙ্কিং সময়ের মধ্যে থাকে তবে ভালো, না হলে পরের দিন গিয়ে যে কোনও শাখায় অভিযোগ জানান।
২) RBI-এর নির্দেশ: ২০১১ সালে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া একটি নির্দেশিকা জারি করে, এটিএম বিভ্রাটে যদি কোনও গ্রাহক এ রকম অসুবিধায় পড়েন, সে ক্ষেত্রে ৭ দিনের মধ্যে সেই টাকা তাঁকে ফেরত দিতে হবে। আগে এই মেয়াদ ছিল ১২ দিনের। যদি ৭ দিনের মধ্যে সে টাকা ফেরত না আসে, তবে প্রতি দিন দেরি হওয়ার জন্য ১০০…

কম বয়সে চুল পড়ে যেসব কারনে

ক্লান্তি, অবসাদ, শরীরচর্চা না করা, চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই ওষুধ খাওয়া ইত্যাদি নানা কারণে খুব কম বয়সেই মাথা হালকা হয়ে যেতে পারে আপনার। যদি গোসল করতে গিয়ে বা আঁচড়ানোর সময় দেখেন, বেশিমাত্রায় চুল উঠছে তবে অবশ্যই সাবধান হোন। এখন থেকেই যত্ন না নিলে কিন্তু মাথা জোড়া টাক হতে বেশি সময় লাগবে না। সঠিক কারণগুলি জানা থাকলে তবেই আপনি চুল পড়ার সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসতে পারবেন। জেনে নিন কী কী কারণে কমবয়সে চুল পড়ে যাচ্ছে আপনার।

ক্লান্তি : ক্লান্তি ধীরে ধীরে আমাদের শরীরের নানা ক্ষতি করে। চুল পড়াতেও অনুঘটক হিসাবে কাজ করে শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি।

মাতৃত্ব : মাতৃত্বের কারণে বহু মহিলাই চুল পড়ার সমস্যায় ভোগেন। যদিও বেশিরভাগ মায়েদের ক্ষেত্রেই সন্তান জন্মের তিনমাস পর ফের চুল ওঠে মাথায়। তবে কারও কারও সমস্যা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

ভিটামিন এ-র অভাব : শরীরে ভিটামিন এ-র অভাব হলে তা সবচেয়ে বেশি বোঝা যায় যখন মাথার চুল ঝরতে শুরু করে।

প্রোটিনের অভাব : নানা ধরনের প্রোটিন আপনার শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। শরীরে প্রোটিনের অভাব হলেই চুল পড়ার সমস্য়া হয়।
বংশগত পরম্পরা : অনেকে বংশগতভাবে চুল পড়ার শিকার হন। তবে তেমন …

ফ্রান্সের ৪০%, ব্রিটেনে ৩৭%, জার্মানির ২০% অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসক নিজেদের ক্ষেত্রে হোমিওপ্যাথি ব্যবহার করেন

"হোমিওপ্যাথিই আদর্শ বিকল্প চিকিৎসা ব্যবস্হা" শিরোনামে বিষয়টি সম্পর্কে আলোকপাত করেছিলেন প্রখ্যাত হোমিওপ্যাথ ড. এ কে অরুণ, এম ডি (হোমিও) আর লেখাটি প্রকাশ করেছিল ভারতের বিখ্যাত দ্যা সানডে ইন্ডিয়ান পত্রিকা । সরাসরি লিংকটা আর্টিকেলটির নিচে পাবেন । তার আগে বিস্তারিত..................
গত কয়েক বছর ধরে গোটা বিশ্বের অ্যালোপ্যাথিক লবির বৈজ্ঞানিক এবং বিশেষজ্ঞরা হোমিওপ্যাথির সমালোচনা করে চলেছেন ৷ গত সপ্তাহেই তো ব্রিটিশ মেডিক্যাল অ্যাশোসিয়েশন একে ‘ডাইনিবিদ্যা’ নাম দিয়েছে ! একে অবৈজ্ঞানিক বলে তারা ব্রিটেনের জাতীয় স্বাস্হ্য পরিষেবাকে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসাধীন ব্যত্তিদের চিকিৎসার খরচ বহন না করতে অনুরোধ জানিয়েছে ৷ অ্যালোপ্যাথিক লবি এর আগেও বহুবার হোমিওপ্যাথির বৈজ্ঞানিক গুরুত্বকে সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে তার সমালোচনা করেছে ৷ ২০০৫ সালের ২৭ আগস্ট 'দ্য ল্যান্সেট' নামক ব্রিটেনের এক পত্রিকায় ‘দ্য এন্ড অফ হোমিওপ্যাথি’ শীর্ষক একটা বিতর্কিত নিবন্ধ ছাপা হয়েছিল ৷ তাতে দাবি করা হয়েছিল, হোমিওপ্যাথির নাকি শুশ্রূষাগত কোনও ক্ষমতা নেই৷ বিশ্বের বিভিন্ন চিকিৎসক এবং গবেষকরা ওই নিবন্ধের সমালোচনা করেছিলেন ৷ লোকে…

মেয়েদের টক (তেঁতুল) খেতে বলা হয় আর ছেলেদের নিষেধ করা হয় কেন?

তেঁতুল একটা উপকারী ফল। এটার অনেক পুষ্টিগুন রয়েছে। ছেলেদের নিষেধ আর মেয়েদের খেতে হবে বিষয়টা এমন নয় । বরং এতে রয়েছে অনেক পুষ্টিউপাদান যেমন,
জলীয় অংশ (গ্রাম) ২০.৯মোট খনিজ পদার্থ (গ্রাম) ২.৯ আঁশ (গ্রাম) ৫.৬ – ১.০খাদ্যশক্তি (কিলোক্যালরি) ২৮৩আমিষ (গ্রাম) ৩.১ চর্বি (গ্রাম) ০.১ শর্করা (গ্রাম) ৬৬.৪ ক্যালসিয়াম (মিলিগ্রাম) ১৭০আয়রন (মিলিগ্রাম) ১০.৯ – ১.০ক্যারোটিন (মাইক্রোগ্রাম) ৬০ ভিটামিন বি১ (মিলিগ্রাম) –০.০১ ভিটামিন বি ২ (মিলিগ্রাম) ০.০৭ভিটামিন সি (মিলিগ্রাম) ৩ ৬ এটা খেলে রক্ত পানি হয়ে যায় এমন ধারনা অনেকে করে তবে সেটা ভুল।এটা ছেলেদের ও উপকার করে মেয়েদেরও করে।তবে কোন এক অজানা কারনে এটা অন্য প্রানী যেমন ষাঁড়ের যৌন ক্ষমতা কমাতে এটা ব্যাবহৃত হয়।তবে গবেষনায় দেখা যায় তেঁতুল পুরুষ মানুষের যৌন ক্ষমতা আরো বৃদ্ধি করে, আর মেয়েদের জন্যও এটা অনেক কাজের কারন এতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন সি যা তাদের দেহের ক্ষত পুরুনে সাহায্য করে আর মেয়েদের শরীরে বেশী ক্ষত হয় বিশেষ করে প্রতিমাসে তো হয়ই, আর প্রেগনেন্সির সময় এটা খেলে মুখের রুচি ফিরে নিয়ে আসে ফলে মায়ের স্বাস্থ্য ঠিক থাকে ,এবং রক্তের চর্বি কমানোর মাধ্যমে মায়ের ও বাচ্…

যৌন অক্ষমতা এবং সন্তানহীনতার সমস্যা কাটাতে সাহায্য করে খেজুর

খেজুরকে বলা হয় রাজকীয় ফল। শুধু অতুলনীয় স্বাদ আর গন্ধের জন্য নয়, খেঁজুরের খ্যাতি তার অসাধারণ রোগ নিরাময়ের জন্যও। প্রতি একশো গ্রাম খেজুরে মেলে ২৮২ কিলো ক্যালরি শক্তি, ৭৫ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ২.৫ গ্রাম প্রোটিন এবং ০.৪ গ্রাম ফ্যাট। গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ছাড়াও মেলে কিছু অত্যাবশ্যক ভিটামিন। এ ছাড়াও মেলে কিছু অপরিহার্য অ্যামিনো অ্যাসিড। এত ঝলকে দেখে নেওয়া যাক মিষ্টি ফল খেজুরের উপকারিতা—
যে কোনও বয়সে রক্তাল্পতা দূর করতে খেজুরের জুড়ি মেলা ভার।বহু যুগ ধরেই কার্যকরী ল্যাক্সাটিভ হিসেবে খেজুর ব্যবহার করা হয়। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা ছাড়াও বদহজম, অ্যাসিডিটি এমন কী পাকস্থলির আলসারেও উপশম আনে খেজুর।রক্তে খারাপ কোলেস্টোরলের মাত্রা কমিয়ে হৃদরোগের আশঙ্কা কমায়। এ ছাড়া সোডিয়ামের মাত্রা (একশো গ্রামে মাত্র ২ মিলিগ্রাম) কম থাকায় এবং পটাসিয়ামের মাত্রা (প্রতি একশো গ্রামে ৬৫৬ মিলিগ্রাম) বেশি থাকায় হৃদযন্ত্রের পেশির সক্রিয়তা বাড়িয়ে তোলে খেজুর।উচ্চমাত্রায় ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাসিয়াম থাকার কারণে শরীরে জলের ভারসাম্য রক্ষা করে খেজুর। স্নায়বিক দৌর্বল্যের সমস্যা কাটাতে খেজুরের জুড়ি মেলা ভার।বিভিন্ন রকমের…

মৃত ব্যক্তির দেহে থেকে পুরুষাঙ্গ প্রতিস্থাপন

যুদ্ধ্ব ক্ষেত্রে বিস্ফোরণ, জওয়ানের পুরুষাঙ্গের একটা বড় অংশই উড়ে যায়। এবার অস্ত্রোপচার করে প্রতিস্থাপন করা হবে ওই জওয়ানের পুরুষাঙ্গ। আমেরিকাতে এটাই প্রথম। গোটা বিশ্বে এমন অস্ত্রোপচার এর আগে কেবল দু'বারই হয়েছিল। ২০০৬ সালে চিনে পুরুষাঙ্গ প্রতিস্থাপন সফল হয়নি। ২০১৪ সালে পুরুষাঙ্গ প্রতিস্থাপনে প্রথম সাফল্য পেয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ডাক্তাররা। আমেরিকাতে এই অস্ত্রোপচার সাফল্য পেলে ৬০ জন আমেরিকার জওয়ানদের সামনে উন্মোচিত হবে নতুন আশার দিগন্ত।

কীভাবে হবে পুরুষাঙ্গ প্রতিস্থাপন?
সদ্য মৃত এক ব্যক্তির দেহ থেকে পুরুষাঙ্গ ওই জওয়ানের দেহে প্রতিস্থাপিত হবে। যদি অস্ত্রোপচার সফল হয়, তবে মূত্র ত্যাগে কোনও অসুবিধা হবে না। ওই অঙ্গে অনুভূতি ফিরে এলে যৌনসঙ্গমেও থাকবে না কোনও প্রতিবন্ধকতা। আপাতাত চলছে দাতার খোঁজ ও মৃতের পরিবারের সম্মতি। তথ্যসূত্র:জিনিউজ

কানে হেডফোন লাগিয়ে বেড়ানোর ভয়ঙ্কর ক্ষতি

স্মার্টফোনে মিউজিক বাড়িয়ে বা এফএম রেডিও চালিয়ে কানে হেডফোন বা এয়ারফোন লাগিয়ে ঘুরে বেড়ানো আজকাল ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। কিন্তু এই অভ্যাসের রয়েছে ভয়ঙ্কর বিপদ। এতে করে শ্রবণশক্তি কমে যাওয়ার আশঙ্কা তো আছেই, সবচেয়ে বড় ঝুঁকিটা হচ্ছে রাস্তায় বেরুলে দুর্ঘটনায় প্রাণ যাওয়াটাও অসম্ভব নয়। ইতিমধ্যে এমন বেশ কয়েকটি বাস ও ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে যার কারণই ছিল কানে হেডফোন লাগিয়ে গান শোনা। গতকাল বুধবার বুয়েটের এক শিক্ষার্থী ট্রেনে কাট পড়ে মারা গেছে এই কারণেই। ব্রিটেনের মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলের (এমআরসি) হেলথ রিসার্চ ইনস্টিটিউট এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মনে করে, উচ্চস্বরে গান শোনা শ্রবণশক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার অন্যতম কারণ। এমআরসি’র এক জরিপে দেখা গেছে, গান-বাজনার ব্যক্তিগত যন্ত্রপাতি যেমন : স্মার্টফোন, আইপড, এমপিথ্রি প্লেয়ার ইত্যাদির শব্দ ৯৫ থেকে ১০৫ ডেসিবেল পর্যন্ত উচ্চ হয়। কিন্তু ১০৫ ডেসিবেলের একটু উপরে যদি এ মাত্রা ওঠে তাহলে সেটার শব্দ এমন হবে যে এক একটা শিকল করাত হাতে ধরলে যা হয় আরকি! তার মানে নিশ্চিত শ্রবণশক্তি স্থায়ীভাবে নষ্ট হয়ে যাবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ওরেগন হেলথ অ্যান্ড সায়েন্স ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় …

খাটি মধুর বৈশিষ্ট, খাটি মধুর সহজ পরীক্ষা এবং মধুর উপকারিতা

পৃথিবীতে যত খাবার রয়েছে সব খাবারের পুষ্টিগুণ ও উপাদেয়তার দিকটি বিবেচনা করে যদি আমরা একটি তালিকা করি, তবে সে তালিকার প্রথম সারিতেই থাকবে ‘মধু’র নাম। মানবদেহের জন্য মধু অত্যন্ত উপকারী এবং নিয়মিত মধু সেবন করলে অসংখ্য রোগবালাই হতে পরিত্রান পাওয়া যায়। এটি বৈজ্ঞানিকভাবেই প্রমানিত। হাজার বছর পূর্বেও মধু ছিল সমান জনপ্রিয়। ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায়, অনেক সভ্যতায় মধু ‘ঔষধ’ হিসেবেও ব্যবহৃত হত। এমনকি প্রতিটি পবিত্র ধর্মগ্রন্থেও মধু সেবনের উপকারিতা এবং কার্যকারিতার কথা উল্লেখ রয়েছে। যেমন পবিত্র আল কোরআনে উল্লেখ করা হয়েছে যে, "আপনার পালনকর্তা মৌমাছিকে আদেশ দিলেনঃ পর্বতে, গাছে ও উঁচু চালে বাড়ি তৈরী কর, এরপর সর্ব প্রকার ফুল থেকে খাও এবং আপন পালনকর্তার উন্মুক্ত পথে চলো। তার পেট থেকে বিভিন্ন রঙের পানীয় নির্গত হয়। তাতে মানুষের জন্য রয়েছে রোগের প্রতিকার। নিশ্চই এতে চিন্তাশীল সম্প্রদায়ের জন্যে নিদর্শন রয়েছে। (সূরা নাহলের ৬৮ ও ৬৯ নম্বর আয়াত)"
মধু কি?
মধু হচ্ছে একটি তরল আঠালো মিষ্টি জাতীয় পদার্থ, যা মৌমাছিরা ফুল থেকে নেকটার বা পুষ্পরস হিসেবে সংগ্রহ করে মৌচাকে জমা রাখে। পরবর্তীতে জমাকৃ…

ফ্রিজে রাখা কাঁচা মাছের স্বাদ অটুট রাখতে চান? জেনে নিন কি করবেন

অনেকেই একদিনে পুরো মাসের বাজার করে ডীপ ফ্রিজে কাঁচা মাছ রেখে দেন। শুধু তাই নয় কিছুদিন ফ্রিজে মাছ রেখে দিলেই মাছের স্বাদ পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায়। খেতে শুকনো লাগে এবং গন্ধ বেশি লাগে। বেশীদিন রেখে দিলে মাছ খাওয়াই যায় না, ফেলে দিতে হয়। কিন্তু এই সমস্যার রয়েছে খুবই সহজ ছোট্ট একটি সমাধান। আপনি চাইলেই মাছের তাজা ভাব ফিরিয়ে আনতে পারেন খুব সহজে। তাহলে জেনে নিনঃ

মাছের তাজা স্বাদ পুনরায় ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করবে দুধ। প্রথমে ফ্রিজ থেকে মাছ বের করে ঠাণ্ডা ছাড়িয়ে নিন। এরপর মাছের পিসগুলো একটি বড় বাটিতে দুধ মিশ্রিত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন প্রায় ৩০ মিনিট।
তারপর স্বাভাবিক ভাবে ধুয়ে রান্না করুন। দেখবেন মাছের তাজা স্বাদ ফিরে এসেছে এবং আঁশটে গন্ধও নেই একেবারে। পুরু প্রক্রিয়াটি আরো ভালো ভাবে মনে রাখার জন্য ভিডিওটি আবার দেখুন

আজ থেকে ঠিক ১০০ বছর পর ২১১৬ সালে কেমন হবে আমাদের পৃথিবী!

টাইম মেশিনের কথা অনেক পড়েছেন। সিনেমাতে দেখেছেন। এছাড়াও আপনার কল্পনার জগতেই তো আপনি কতবার আগে পিছিয়ে ভাবেন। এবার বফিনস জানাচ্ছে, আজ থেকে ঠিক ১০০ বছর পর অর্থাত্‍ ২১১৬ সালে কেমন হবে পৃথিবী। বলাইবাহুল্য সেই পৃথিবীর সঙ্গে নাকি আজকের পৃথিবীর কোনও মিলই থাকবে না। কী কী হবে? দেখুন এক ঝলকে।

১) জলের নিচে থাকবে অনেক বাবল সিটি। এই শহরগুলো যেমন আকারে বড় হবে। তেমনই থাকবে অত্যাধুনিক সবরকম সুযোগ সুবিধা।

২) চাঁদে ঘুরতে যাওয়াটা তেমন কোনও ব্যাপারই থাকবে না। এই পৃথিবীর অনেক মানুষই বছরে একবার করে চাঁদে ঘুরতে যাবেন, লন্ডন কিংবা সিঙ্গাপুরের মতো করেই।
৩) লোকের বাড়ি ঘরে থাকবে শুধুই থ্রি ডি পেইন্টিং। এমনি আঁকা জিনিস থাকবে। তারও কদরও থাকবে। কিন্তু লোকে পছন্দ করবে বেশি থ্রি ডি পেইন্টিংই।

৪) গোটা পৃথিবীতেই অস্বাভাবিক রকমের বেড়ে যাবে মেগাস্ট্রাকচার। ১০০ তলা, দেড়শো তলা, বাড়ি এই পৃথিবীতে বেড়ে যাবে আজকের থেকে ৮ থেকে ৯ গুন বেশি!

৫) এ পৃথিবীর সব মানুষের পেটে খাবার জুটুক অথবা না জুটুক, বাড়ি থাকুক অথবা না থাকুক, লোকের হাতে থাকবেই একটা মোবাইল ফোন।

৩ মাস ২৫ দিনে হাফেজ হলো কিশোর যুবায়ের

বিস্ময়ের জন্ম দিলো গাজীপুর জেলার শ্রীপুর থানার আল জামিয়াতুল ইসলামিয়া জান্নাতুল আতফাল মাদরাসার ছাত্র হাফেজ হেমায়েতুল ইসলাম যুবায়ের। সে মাত্র ৩ মাস ২৫ দিনে পুরো কোরআনে কারিম হেফজ (মুখস্থ) করে হাফেজে কোরআন হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেছে। যুবায়েরের পিতার নাম মো. কামরুল ইসলাম। মাতার নাম মোসা. হোসনা। সে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার রাওনা ইউনিয়নের ধোপাঘাট গ্রামের বাসিন্দা।

কোরআনে কারিমের বিস্ময় হাফেজ যুবায়েরের বয়স মাত্র ১১ বছর। এমন কম বয়স ও সময়ে পুরো কোরআন শরিফ মুখস্থ করার ঘটনা বিরল। দিন হিসেবে যুবায়েরের কোরআন মুখস্থ করতে সময় লেগেছে ১১৫ দিন। সে হিসেবে সে গড়ে দৈনিক প্রায় ৬ পৃষ্ঠা করে মুখস্থ করেছে। তার শিক্ষকদের দেওয়া তথ্যে জানা গেছে, যুবায়ের একদিন সর্বোচ্চ ১ পারা (২০ পৃষ্ঠা) মুখস্থ করেছে তার ওস্তাদ হাফেজ মাওলানা মুফতি মুহাম্মাদ হিফযুর রহমানকে শুনিয়েছে। আর খুব কম করে হলেও সে ২ পৃষ্ঠা মুখস্থ করতো দৈনিক। ৪ ফেব্রুয়ারি যুবায়েরের হেফজ সমাপ্তি উপলক্ষ্যে এক অনুষ্ঠান হয় আল জামিয়াতুল ইসলামিয়া জান্নাতুল আতফাল মাদরাসায়। সেখানে মাদ্রাসার পরিচালক হাফেজ মাওলানা মুফতি কাজী মুঈনুদ্দীন আহমাদ, মাদ্রাসার সভাপতি…

দাঁত ব্রাশ করার সময়ে যে ৯টি ভুল সকলে করেন

সকালে-রাতে দাঁত মাজা আবশ্যিক। কিন্তু তাতেও অনেক সময়েই সমস্যা হয়। ভেবে দেখেছেন কি, আপনার ব্রাশ করার পদ্ধতিতে কোনও গোলমাল থেকে গিয়েছে কি না?

১. সঠিক ব্রাশ ব্যবহার করা হয় না অনেক ক্ষেত্রেই। ডেনটিস্টের সঙ্গে কথা বলে আপনার দাঁতের জন্য সেরা ব্রাশটি বেছে নিন।

২. ব্রাশ করার সময়ে তাড়াহুড়ো করেন অনেকেই। এটা এড়াতেই হবে। ধীরে ধীরে ব্রাশ করুন, সময় নিয়ে।

৩. অনেকক্ষণ ধরে ব্রাশ করলেই দাঁত ঝকঝকে, এই ধারণা ভুল। যেটুকু প্রয়োজন, সেটুকুই ব্রাশ করুন।

৪. দাঁত মাজার পদ্ধতি আছে। এলোমেলো ব্রাশ ঘষবেন না। উপর-নীচ করে ব্রাশ করুন। মুখের ভিতরে সর্বত্র ব্রাশ পৌঁছনো চাই।

৫. মাড়ি মালিশ করেছেন কখনও? আঙুলে পেস্ট নিয়ে হালকা করে মাড়িতে বোলান। তার পরে মুখ ধুয়ে নিন ভালভাবে।

৬. বিজ্ঞাপন দেখে পেস্ট-ব্রাশ কেনার ভুল প্রায় সকলেই করেন। চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। তাঁর পরামর্শেই কিনুন পেস্ট-ব্রাশ। ৭. সাধারণত দাঁত ব্যথা হলেই ডেনটিস্টের কাছে যান সকলে। এটাই ভুল। নিয়মিত যান তাঁর কাছে।  ৮. যা-ই খান, সঙ্গে সঙ্গে জল দিয়ে কুলি করে নিন। এটাই দাঁতের দস্তুর।   ৯. শেষ কথা, বাথরুমে কখনও ব্রাশ করবেন না। কেননা, বাথরুমে জীবাণু থাকে প্রচুর। অন্য…

ভাত খাওয়াতেও এগিয়ে চীন। দেখুন পৃথিবীর কোন কোন দেশের খাদ্য ভাত ?

বাংলাদেশে বহুল প্রচলিত একটি প্রবাদ হলো, ‘মাছে-ভাতে বাঙালি’। কিন্তু বাংলাদেশিদের ছাড়িয়ে গেছে এখন চীন। ভাত খাওয়ায় এখন চীনই শীর্ষে। শুধু বাংলাদেশই নয়, ভারতকেও পেছনে ফেলে দিয়েছে চীন। বিশ্ব অর্থনীতির পরিসংখ্যান ও প্রবণতা নিয়ে দ্য ইকোনমিস্টে-র ‘ওয়ার্ল্ড ইন ফিগার’ ওয়েবসাইটে এমন তথ্যই মিলেছে। গত ২০১৩-১৪ অর্থবছরের পরিসংখ্যান দিয়ে ভাত খাওয়ায় এগিয়ে থাকা দেশের তালিকাটি করেছে ইকোনমিস্ট। চীনের মানুষ ২০১৩-১৪ অর্থবছরে মোট ১৪ কোটি ৬৩ লাখ কোটি টন চালের ভাত খেয়েছে। পরের অবস্থানে আছে ভারত।

দেশটির মানুষ খেয়েছে ৯ কোটি ৯১ লাখ ৮০ হাজার টন চালের ভাত। ৩৮ কোটি ৫০ লাখ টন চালের ভাত খেয়ে তৃতীয় অবস্থানে আছে ইন্দোনেশিয়ার মানুষ। আর চতুর্থ বাংলাদেশ। এ দেশের মানুষ ৩ কোটি ৪৯ লাখ টন চালের ভাত খেয়েছে আলোচ্য বছরে। চীনের এগিয়ে থাকার একটি কারণ হচ্ছে, তাদের লোকসংখ্যা বেশি। ২০১৪ সালের তথ্য অনুযায়ী ইকোনমিস্ট বলছে, দেশটির জনসংখ্যা ১৪০ কোটি। ভারতের আছে ১৩০ কোটি। আর বাংলাদেশের ১৫ কোটি ৮৮ লাখ। তবে মোট জনসংখ্যার হিসাবে বাংলাদেশিরা পিছিয়ে থাকলেও মাথাপিছু ভাত খাওয়ার হিসাবে কিন্তু চীনাদের চেয়ে বাংলাদেশিরাই এগিয়ে রয়েছে। ২০১৩-১৪ অর্থব…

যে লক্ষণগুলো দেখলে বুঝবেন ইমাম মেহেদী (আঃ) পৃথিবীতে আগমনের সময় হয়ে গেছে।

মানবজাতির শেষ ত্রাণকর্তা হযরত ইমাম মাহদী (আ.)’র পবিত্র জন্মদিন হল ১৫ ই শাবান। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)’র পবিত্র আহলে বাইতের ১১ তম সদস্য ইমাম হযরত ইমাম হাসান আসকারী (আ.)’র পুত্র হিসেবে (আজ হতে ১১৮১ চন্দ্রবছর আগে) তাঁর জন্ম হয়েছিল ২২৫ হিজরিতে ইরাকের (বর্তমান রাজধানী বাগদাদের উত্তরে) পবিত্র সামেরা শহরে। তাঁর মায়ের নাম ছিল নার্গিস এবং তিনি মহান আল্লাহর আদেশে এক পর্যায়ে অদৃশ্য হয়ে যান। তাঁর অদৃশ্য থাকার সময়ও দুই ভাগে বিভক্ত। স্বল্পকালীন সময়ের জন্য অদৃশ্য হওয়া এবং দীর্ঘমেয়াদে অদৃশ্য থাকা। দীর্ঘ মেয়াদে অদৃশ্য থাকার পর উপযুক্ত সময়ে তিনি আবার আবির্ভূত হবেন (যে ভাবে মহান আল্লাহর ইচ্ছায় আবারও ফিরে আসবেন ঈসা-আ.) এবং সব ধরনের জুলুম ও বৈষম্যের অবসান ঘাটিয়ে বিশ্বব্যাপী ন্যায়বিচার ও ইসলামী শাসন প্রতিষ্ঠা করবেন। অতীত যুগের সুন্নি মনীষী ও আলেম সমাজের অনেকেই এই মহান ইমামের জন্ম গ্রহণের কথা উল্লেখ করেছেন।
ইমাম মাহদির (আ.) আবির্ভাবের যুগে পৃথিবী, বিশেষ করে যে অঞ্চলে ইমাম মাহদি (আ.) আবির্ভূত হবেন সেই অঞ্চল, যেমন ইয়েমেন, হিজায, ইরান, ইরাক, শাম (সিরিয়া, লেবানন ও জর্দান), ফিলিস্তিন, মিশর ও মাগরিবের (মরক…

সিগারেট কি থেকে তৈরি? জানুন, আতঁকে উঠবেন

ক্লাস ও শিক্ষকদের চোখ ফাঁকি দিয়ে বাবার পকেট কেটে শুরু করেছিলেন বন্ধুদের নিয়ে সুখ টান দেওয়া। ধূমপানের জন্য পকেট করে ফেলেছেন সদরঘাট৷ সরকার সিগারেটের দাম বাড়ালে ইচ্ছামত গালিগালাজ করেছেন। এমনকি বাবা, মা, প্রেমিকার নিষেদ সত্বেও ছাড়তে পারেননি সেই প্রথম টান প্রথম ভালবাসা সিগারেটকে।

সিগারেটের পিছনে মাসে কারো কারো হাজার হাজার অর্থব্যয় হয়৷ জানেন কি এই সিগারেট কি থেকে তৈরি হয়? হ্যাঁ, অবশ্যই তামাক পাতা সুন্দর করে কেটে পরিশোধন করার পর তার সঙ্গে আনুষঙ্গিক কয়েকটি উপাদান মিশিয়ে কাগজে মোড়ানো সিলিন্ডারের ভেতর পুড়ে সিগারেট তৈরি করা হয়৷ তবে সম্প্রতি একটি গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে।

ভিতরের উপাদান গুলির মধ্যে মূল উপাদান হিসাবে থাকে ইঁদুরের বিষ্ঠা৷ অবাক হওয়ার কিছুই নেই৷ কারণ সম্প্রতি অপর একটি গবেষণায় জানানো হয়েছে, পৃথিবী বিখ্যাত আইভরি কফি তৈরি নাকি তৈরি হয় হাতির বিষ্ঠা থেকে৷
যাই হোক এসব তাও মেনে নেওয়া যায়৷ কিন্তু পরবর্তী যে তথ্যটি একেবারেই ঘৃন্যকর, সেটি হল সিগারেটের ফিল্টারে ব্যবহার করা হয় শূকরের রক্ত৷ নেদারল্যান্ডসের এক গবেষণাকে উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, ওই গবেষণায় দেখা গিয়েছে- ১৮৫টি সিগারেট উৎপা…

চিত্‍‌ হয়ে শোবেন, না উপুড় হয়ে - কোনটা অধিক স্বাস্থ্যকর?

আপনি কি অনিদ্রায় ভুগছেন? নাকি আপনি ভুগছেন বদহজমে? ডাক্তার দেখানোর আগে ভালো করে বুঝে নিন৷ আপনার শোওয়ার ভঙ্গির উপরেই নির্ভর করছে শরীর কেমন থাকবে৷ পড়ে যান ...

চিত্‍‌ হয়ে শোওয়া :- আপনি যদি চিত্‍‌ হয়ে পিঠের ওপর ভর দিয়ে শুয়ে থাকেন তাহলে আপনার ঘাড়, মাথা এবং মেরুদণ্ড থাকবে নিউট্রাল পজিশনে৷ এতে আপনার পিঠের ওপর চাপ কম পড়বে৷ ডাক্তারদের মতে শোওয়ার ভঙ্গি হিসেবে এটি আদর্শ৷ কারণ, শবাসন ভঙ্গি ঘাড় এবং মেরুদণ্ডের স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো৷ এর বাইরে আপনি যদি অর্থোপেডিক ম্যাট্রেস-এ ঘুমোতে পারেন তাহলে সেটা আপনার মেরুদণ্ডকে দেবে অতিরিক্ত সাপোর্ট৷ এমনকী বালিশ ছাড়াও আপনি এই ভঙ্গিতে ঘুমোলে ঘাড়ের ব্যথা নিয়ে ঘুম থেকে উঠতে হবে না৷

পাশ ফিরে শোওয়া :- যাঁদের ঘুমিয়ে নাক ডাকার অভ্যেস রয়েছে কিংবা যাঁরা স্লিপ অ্যাপনিয়া-য় ভুগছেন তাঁদের পক্ষে পাশ ফিরে শোওয়া ভালো৷ এইভাবে শুলে মেরুদণ্ড সোজা থাকবে এবং পিঠে ব্যথা হবে না৷ তবে মুখে ভাঁজ পড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয় কারণ, সারারাত আপনার মুখ এক দিকে চাপা থাকে৷ এছাড়াও মহিলাদের স্তন 'ডিশেপড ' হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে৷

উপুড় হয়ে শোওয়া :- চিকিত্সকরা এই ভাবে শোওয়ায় আপত্তি করেন কারণ, এর ফলে …

ঔষুধ ছাড়াই সারিয়ে তুলুন শরীরের যে কোন স্থানের ফোঁড়া

ত্বকের উপর ছোট, শক্ত ও যন্ত্রণাদায়ক লালা পিন্ড যখন আস্তে আস্তে বড় ও নরম হতে থাকে যার মুখটি হলুদাভ-সাদা বর্ণ ধারণ করে এবং এর মধ্যে পুঁজ সৃষ্টি হয়ে ব্যথা বাড়তে থাকে তখন তাকে ফোঁড়া বা বিষফোঁড়া বলা হয়। ত্বকের চুলের গোঁড়ায় স্টেফাইলোকক্কাস অরিয়াস ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের কারণেই ফোঁড়া হয়ে থাকে। সাধারণত মুখ, ঘাড়, বগল, কাঁধ ও নিতম্বে ফোঁড়া হয়ে থাকে। চোখের পাতায় যে ফোঁড়া হয় তাকে আজনি বা অজন বা অজনিকা বলে। যখন অনেক গুলো ফোঁড়া একসাথে হয় তখন তাকে carbuncles বলে। পুষ্টির ঘাটতি ও অপরিছন্নতা এবং কোন রাসায়নিক দ্রবের সংস্পর্শের কারণেই ফোঁড়া হয়ে থাকে। যদি আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে ও ডায়াবেটিস থাকে তাহলে প্রায়ই ফোঁড়া হতে পারে। বেশিরভাগ ফোড়াই অক্ষতিকর এবং কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ভালো হয়ে যায়। যদি ফোঁড়াতে তীব্র ব্যথা হয় ও না ফাটে এবং জ্বর আসে তাহলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। কিছু সহজলভ্য উপাদানের মাধ্যমে ফোঁড়ার ব্যথা ও অস্বস্তি কমিয়ে নিরাময় করা যায়। এই উপাদান গুলো ব্যবহারের মাধ্যমে ফোঁড়া নরম হয়ে ফেটে ব্যাকটেরিয়া বাহির হয়ে যায় ও ইনফেকশন কমায়। ফোঁড়ার নিরাময়ে ব্যবহৃত উপাদান গুলো হচ্ছে : ১। নিম :- অ্যান্টি…

পেন্সিল কামড়ে সারিয়ে তুলুন মাথাব্যথা! - কি বলছেন গবেষকরা

অফিসে ব্যস্ত দিন, শোরগোলের বিকেলে বাচ্চাদের নিয়ে ধুন্ধুমার ঘোরাঘুরির পর মাথা আপনার ব্যথায় টনটন করবে। তখন আর কি? ওষুধের বাক্স থেকে একটা মাথাব্যথা উপসমের ট্যাবলেট খুঁজে বের করবেন সেটাইতো স্বাভাবিক। কিন্তু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ওষুধের বাক্স না খুঁজে বাচ্চাদের স্কুল ব্যাগ থেকে পেন্সিল বক্সটি খুঁজে বের করার পরামর্শ দিয়েছেন। আর সে পেন্সিলটি দুপাটি দাঁতের মাঝখানে চেপে ধরে কিছুক্ষণ চুপ করে থাকলে ব্যাথা কমে যাবে। অ্যাসথেটিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক জেন লিওনার্দো এই দাওয়াই দিয়ে বলেছেন, মাথাব্যথার অন্যতম কারণ কাজের চাপ, দুঃশ্চিন্তা, ক্লান্তি, কিংবা মনখারাপ থাকা।

আর সাধারণত মুখমণ্ডল, ঘাড়, চোয়াল আর খুলির পেশিতে সৃষ্ট খিচুনি থেকে এটা হয়। কোথায় ব্যথা হচ্ছে? সে প্রশ্নে অধিকাংশ রোগীই তাদের কপালের দুই দিক দেখিয়ে দেয়। এর কারণই হচ্ছে- কপালের এক দিক থেকে মাথার পেছনের দিকে বিস্তৃত হওয়া টেমপোরালিস নামে পাখা আকৃতির একটি পেশিতে খিচুনি। চোয়ালের পেশিতে খিচুনি হলে টেমপোরোম্যান্ডিবুলার জয়েন্ট (টিএমজি) ডিসফাংশন হয়। ঘুমের মধ্যে দাঁত কাটাও এর কারণ। ড. লিওনার্দোর মতে, দুই পাটি দাঁতের ফাঁকে পেন্সিল চেপে ধরে রাখলে চোয়ালের পেশি স্ব…

বয়স ১২ হলেই যে গ্রামের মেয়েরা ছেলেতে রূপান্তরিত হয় !

লাতিন আমেরিকার দেশ ডমিনিকান রিপাবলিকের এক আজব গ্রাম সালিনাস। সেই গ্রামেরই বাসিন্দা জনি। শারীরিকভাবে সে হল ছেলে। কিন্তু কোনও এক কারণে জনির পুরুষাঙ্গ গঠিত হয়নি। তবে ১২ বছর বয়স হওয়ার পর জনির পুরুষাঙ্গ গঠিত হয়। ডমিনিকান রিপাবলিকের দক্ষিণে সালিনাস নামের এই গ্রামে জনির মত আরও অনেক ছোট ছোট ছেলেদের ঠিক একই অবস্থা। ১২ বছরের আগে তারা সবাই মেয়ে থাকে। আবার ১২ তে পা দিলেই তাদের পুরুষাঙ্গ গঠিত হয়ে ওরা ছেলেতে পরিণত হয়। স্থানীয়রা লাতিন ভাষায় এর নাম দিয়েছে ‘guevedoces’ বা ১২ বছরে পুরুষাঙ্গ রোগ।

জনিকে যেমন সবাই ১২ বছরের আগে বলত মেয়ে। পুরুষাঙ্গ গঠিত হওয়ার পর জনিকে এখন সবাই ওকে ছেলে বলে ডাকতে শুরু করেছে। এই গ্রামের এটাই নিয়ম। ১২ বছর না হলে বোঝা মুশকিল সে মেয়ে না ছেলে। স্থানীয়রা জানালেন, এই গ্রামের ছয় জনকে সবাই মেয়ে বলেই চিনত। ওরা ফ্রক, মহিলাদের পোশাক পরেই গ্রামে ঘুরত।
চলতি বছর ১২-তে পা দিতেই ওদের পুরুষাঙ্গ গঠিত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ল। এখন ওই ছয় জনই ছেলেদের পোশাক পরে ঘোরে। এটা বড় অসুবিধার। কিন্তু কী কারণ এমন ঘটনা ঘটছে তা এক অজানা বিস্ময়! ডাক্তাররা বলছেন, পুরো গ্রামই জেনেটিক ডিজ অর্ডারে ভুগছে।

বাংলা টিউটোরিয়াল দেখে ওয়েব ডিজাইন এবং সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট শিখুন

আজকাল অনেকেই কোন প্রকার ট্রেনিং কোর্স না করে ঘরে বসে বাংলা টিউটোরিয়াল দেখে ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট অথবা সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট শিখতে আগ্রহী। অনেক ক্ষেত্রে সেটাও সম্ভব যদি ভালো এবং প্রফেশনাল মানের টিউটোরিয়াল পাওয়া যায়। "ট্রেনিং উইথ লাইভ প্রজেক্ট " বংলা ভাষায় প্রোগ্রামিং শিখার জন্য মান সম্মত টিউটোরিয়াল সিরিজ তৈরী করছে। আপনারা যারা কম্পিউটার সাইন্স এর ছাত্র বা ছাত্রী তারা নিয়মিত চোখ রাখুন দুটি ইউটিউব চেনেলে - দারুন উপকৃত হবেন। এই লিংক গুলিতে ভিজিট করুন সরাসরি ইউটিউব এর ভিডিও দেখতে।

বাংলা ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট টিউটোরিয়াল - পিএইচপি প্রোগ্রামিং (ইউটিউবলিংক )বাংলা ওয়েব এবং ডেভেলপমেন্ট ডেভেলপমেন্ট টিউটোরিয়াল - জাভা প্রোগ্রামিং (ইউটিউবলিংক )অথবা সরাসরি তাদের ওয়েব সাইটে সব টিউটোরিয়াল ধারাবাহিক ভাবে পাবেন - ওয়েবসাইট লিংক  সময় মত সব ভিডিও আপডেট পেতে ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করে থাকুন। ধন্যবাদ 


অভিনব পন্থায় এটিএম’র টাকা জালিয়াতি

ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড (ইবিএল) থেকে ব্যাংকিং সেবা গ্রহণ করেন মাহাবুবা আক্তার। সাধারণত ব্যাংক থেকে টাকা তুললে তিনি মুঠোফোনে খুদে বার্তা পান। শুক্রবার সকালে ঘুম থেকে উঠেই তিনি মুঠোফোনে এ রকম দুটি খুদে বার্তা পেয়েছেন, যাতে বলা হয় রোকেয়া সরণিতে অন্য একটি ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে দু’বারে ৪০ হাজার করে ৮০ হাজার টাকা তোলা হয়েছে। কিন্তু তাঁর এটিএম কার্ডটি বাসাতেই তাঁর কাছে আছে। তিনি প্রথমে ভেবেছিলেন হয়তো খুদে বার্তাটি ভুলভাবে এসেছে। এরপর ব্যাংক হিসাব পরীক্ষা করে দেখেন সত্যিই ৮০ হাজার টাকা কম। এরপর ভুক্তভোগী এই গ্রাহক ইবিএলের গ্রাহকসেবা বিভাগে অভিযোগ করেন।

তখন তাঁকে জানানো হয়, এ রকম ঘটনা আরও কয়েকজনের সঙ্গেই ঘটেছে। গ্রাহকসেবা বিভাগের পরামর্শে সঙ্গে সঙ্গে তার কার্ডে লেনদেন বন্ধ করে দেন মাহাবুবা। মাহাবুবা আরও বলেন, ইবিএল থেকে তিনি একসঙ্গে ২০ হাজারের বেশি টাকা তুলতে পারতেন না। কিন্তু তার হিসাব থেকে দু’বারে ৮০ হাজার টাকা তোলা হয়েছে। এ বিষয়ে গ্রাহকসেবা বিভাগ তাকে বলেছে, ১ হাজার টাকার নোট হলে একবারে ৪০ হাজার টাকা ওঠানো সম্ভব। শুধু মাহবুবা আক্তারই নয়; গত শুক্রবার একদিনে এভাবেই ইবিএল’র ২১ জন গ্রাহকের …

খালি পেটে ভুলেও খাবেন না যে খাবার গুলি

ঘুম থেকে উঠে অনেকে অনেক কাজ করে থাকেন। কেউ খালি পেটে পানি পান করেন কেউ বা চা আবার কেউ খালি পেটে কফি পান করে থাকেন। কিন্তু আপনি কি জানেন খালি পেটে কোন খাবারগুলো খাওয়া উচিত আর কোন খাবারগুলো খাওয়া একেবারেই উচিত নয়? খালি পেটে লেবু পানি বা রসুনের কোয়া খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী তা আমরা জানি। এমন কিছু খাবার আছে যা দারুন স্বাস্থ্যকর, কিন্তু খালি পেটে খাওয়া একদমই উচিত নয়।

১। সোডা জাতীয় পানি পান : খালি পেটে কোক, মিরিন্ডা, বা সোডা জাতীয় খাবার খেলে কি হবে? এই খাবারগুলো অ্যাসিড লেভেল বৃদ্ধি করে দেয়, যার কারণে অ্যাসিডিটি সমস্যা, বমি বমি ভাব এমনকি জ্বালাপোড়ার সমস্যা দেখা দিয়ে থাকে।

২। কলা : স্বাস্থ্যকর এই ফলটি খালি পেটে খাওয়া বেশ ক্ষতিকর। আমরা সবাই জানি কলা ম্যাগনেসিয়ামের একটি বড় উৎস। কিন্তু খালি পেটে কলা খেলে শরীরের ম্যাগনেশিয়ামের পরিমাণ বৃদ্ধি করে দেয়। যার কারণে শরীরে ম্যাগনেশিয়াম এবং ক্যালসিয়ামের মধ্যে ভারসাম্যহীনতা দেখা দেয়। যা হৃদয় ও রক্ত ধমনী জন্য ক্ষতিকর হয়ে থাকে।

৩। টমেটো : টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে পেকটিন এবং ট্যানিক অ্যাসিড রয়েছে। টমেটো খালি পেটে খেলে, ট্যানিক এবং পেকটিন অ্যাসিডের সাথে গ্য…

হলুদ দাঁত ঝকে ঝকে সাদা করার কার্যকর ঘরোয়া উপায়

আমেরিকায় এক তথ্যে দাবি করা হয়, শুধু মাত্র সুন্দর দাঁতের সৌন্দর্য্যের জন্য আমেরিকাবাসী প্রতি বছর ব্য্য করে ১ লক্ষ কোটি মার্কিন ডলার। এই তথ্যটা এই কারণেই জানিয়ে রাখা, দাঁত নিয়ে উন্নত বিশ্ব কতটা মর্মস্পর্শী ও ভাবাবেগী। কেবল আমেরিকাই নয়, ভারত, বাংলাদেশ এমনকি বিশ্বের অন্যত্রও দাঁত নিয়ে মানুষ অনেক বেশি সেনসেটিভ। দাঁতের রূপকথা তৈরি করতে গিয়ে নানান টুথ পেস্ট, ব্রাশ আরও কত কিই না ব্যবহার করা হয়। কিন্তু আঁখেরে লাভ হয় না কিছুই। সাদা দাঁত হলুদ হয়ে যাচ্ছে, মাড়িতে যন্ত্রণা, দাঁতে পোকা, নরম মাড়ি থেকে দাঁতের যন্ত্রণা নানান সমস্যায় নানান মানুষের নানান সমস্যা। অনেক ডাক্তার, অনেক বার অনেক কিছু কসরত করেও উপশম হয়নি রোগের। জেনে রাখুন কয়েকটি ঘরোয়া উপায়, যা সুন্দর দাঁতের গোড়ার কথা-
উষ্ণ সোডা ও লেবুর রস দিয়ে পেস্ট তৈরি করে ব্রাশ করুন। পরিমিত আকারে সোড, পাতি লেবুর রস ও জল-এই তিন উপাদান দিয়ে তৈরি পেস্ট দাঁতে লাগিয়ে ১ মিনিট রাখুন তারপর অন্তত ৩ মিনিট ব্রাশ করুন। এরপর মুখ কুলকুচি করে ফেলুন।

স্ট্রবেরি, নুন ও বেকিং সোডা দিয়ে ব্রাশ করার অভ্যাস করুন। স্ট্রবেরিতে প্রচণ্ড পরিমাণ ভিটামিন-সি থাকে, যা আপনার দাঁতের মাড়ি পো…

স্মৃতিশক্তি বাড়াতে আল কোরআনে বর্ণিত ১০ পরামর্শ!

স্মৃতি বলতে মূলত তথ্য ধারণ করে পুনরায় তা ফিরে পাওয়ার প্রক্রিয়াকে বোঝায়। বিজ্ঞানীরা আমাদের স্মৃতিকে প্রধানত দুভাগে ভাগ করেছেনঃ ১. স্বল্পস্থায়ী বা স্বল্প মেয়াদী স্মৃতি, ২. দীর্ঘস্থায়ী বা দীর্ঘ মেয়াদী স্মৃতি। খুব অল্প সময়ের জন্য আমাদের মস্তিষ্ক যে সব স্মৃতি স্থায়ী থাকে সেগুলো হচ্ছে স্বল্পস্থায়ী স্মৃতি। আর দীর্ঘ সময়ের জন্য আমাদের মস্তিষ্ক যেসব স্মৃতি সংরক্ষিত থাকে সেগুলো হচ্ছে দীর্ঘস্থায়ী স্মৃতি।

এই লেখায় আমরা মূলত দীর্ঘস্থায়ী স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর কিছু কৌশল নিয়ে আলোচনা করবো।

১. ইখলাস বা আন্তরিকতাঃ যে কোনো কাজে সফলতা অর্জনের ভিত্তি হচ্ছে ইখলাস বা আন্তরিকতা। আর ইখলাসের মূল উপাদান হচ্ছে বিশুদ্ধ নিয়ত। নিয়তের বিশুদ্ধতার গুরুত্ব সম্পর্কে উস্তাদ খুররাম মুরাদ বলেন, “উদ্দেশ্য বা নিয়ত হল আমাদের আত্মার মত অথবা বীজের ভিতরে থাকা প্রাণশক্তির মত।

বেশীরভাগ বীজই দেখতে মোটামুটি একইরকম, কিন্তু লাগানোর পর বীজগুলো যখন চারাগাছ হয়ে বেড়ে উঠে আর ফল দেওয়া শুরু করে তখন আসল পার্থক্যটা পরিস্কার হয়ে যায় আমাদের কাছে। একইভাবে নিয়ত যত বিশুদ্ধ হবে আমাদের কাজের ফলও তত ভালো হবে।” এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তা’আলা বলেন, “তাদেরকে এছাড়া ক…