সর্বশেষ আপডেট
অপেক্ষা করুন...
সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬

বাংলাদেশি নাগরিকদের মধ্যে যারা প্রাপ্ত বয়স্ক তাদের সবারই জাতীয় পরিচয় পত্র রয়েছে। অনেকেই এটাকে আইডি ভোটার আইডি কার্ড হিসেবে জেনে থাকে। তবে যারা এটাকে ভোটার আইডি কার্ড হিসাবে জেনে থাকেন তারা ভুল জানেন।

মূলত এটা জাতীয় পরিচয় পত্র। যা সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়। পাঠক, একটু লক্ষ্য করলে দেখবেন জাতীয় পরিচয়পত্রের নীচের দিকে লাল রংয়ের কালি দিয়ে লেখা ১৩ সংখ্যার একটা নম্বর আছে যাকে আমরা আইডি নম্বর হিসাবে জানি। কিন্তু এই ১৩ সংখ্যার মানে কি? তাহলে জেনে নিন এখুনি
১) প্রথম দুই সংখ্যা: জেলা কোড। ৬৪ জেলার আলাদা আলাদা কোড আছে। ঢাকার জন্য এই কোড ২৬।

২) পরবর্তী এক সংখ্যা: এটা আরএমও (RMO) কোড। সিটি কর্পোরেশনের জন্য ৯, ক্যান্টনমেন্ট ৫, পৌরসভা ২, পল্লী এলাকা ১। পৌরসভার বাইরে শহর এলাকা ৩, অন্যান্য ৪।

৩) পরবর্তী দুই সংখ্যা: এটা উপজেলা বা থানা কোড।

৪) পরবর্তী দুই সংখ্যা: এটা ইউনিয়ন (পল্লীর জন্য) বা ওয়ার্ড কোড (পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশনের জন্য)।

৫) শেষ ছয় সংখ্যা: আইডি কার্ড করার সময় আপনি যে ফর্ম পূরণ করেছিলেন এটা সেই ফর্ম নম্বর।

বর্তমানে আবার ১৭ ডিজিটের আইডি কার্ড দেয়া হচ্ছে যার প্রথম চার ডিজিট হচ্ছে জন্ম সাল।
আধুনিক হোমিওপ্যাথি, ঢাকা
ডাক্তার হাসান; ডি. এইচ. এম. এস(BHMC)
যৌন ও স্ত্রীরোগ, লিভার, কিডনি ও পাইলসরোগ বিশেষজ্ঞ হোমিওপ্যাথ
১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪, বাংলাদেশ
ফোন :- +88 01727-382671 এবং +88 01922-437435
স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্য যেকোন সময় নির্দিধায় এবং নিঃসংকোচে যোগাযোগ করুন।

0 comments:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

 
[X]