সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

পোস্টগুলি

March, 2016 থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

ইনহেলার ছাড়াই শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তি!

শ্বাসকষ্টে যারা ভোগেন, তারাই জানেন এর কী কষ্ট! সঙ্গে থাকা ইনহেলার সে সময় সামান্য হলেও স্বস্তি দেয় বটে। কিন্তু যদি কেউ কোনো দিন ইনহেলার নিয়ে বেরোতে ভুলে যান! তাহলে কী করে শ্বাসকষ্ট থেকে রেহাই পাবেন? ইনহেলার ছাড়া শ্বাসকষ্ট থেকে রেহাই পেতে হলে মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলি-
১) শিরদাঁড়া সোজা করে বসুন। মাথা ঝুঁকাবেন না বা মাথা হেলাবেন না।
২) ভয় পাবেন না। মনকে শান্ত রাখুন। ভয় পেলে বুকের পেশী সঙ্কুচিত হয়ে যায়।
৩) লম্বা ও গভীর শ্বাস নিন । নাক দিয়ে শ্বাস নিন । মুখ দিয়ে ছাড়ুন ।
৪) গরম কফি খান। সাময়িক স্বস্তি মিলবে ।
৫) ধুলোবালি, সিগারেটের ধোঁয়া এড়িয়ে চলুন।
৬) তারপরেও সমস্যা না মিটলে অবিলম্বের নিকটবর্তী ডাক্তারের কাছে যান ।

যে কাজটি করলে আর কখনোই আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকবে না!

আমাদের দেশে গ্যাস্টিকের সমস্যা নেই এমন মানুষ হয়তো খুঁজে পাওয়াই যাবে না। এই সমস্যাটি মূলত ভাজাপোড়া খাবার খেলেই বেশি হয়ে থাকে। অনেকেরই এ সব খাবার খাওয়ার পরে পেট ব্যথা বা বুকে ব্যথা কিংবা বদ হজম হয়।

অথচ এই সমস্যা দূর করার জন্য ওষুধ না খেয়ে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে নিচের যেকোন একটি নিয়ম মানলেই চলবে।

১। আধা ইঞ্চি পরিমাণ কাঁচা আদা নিন। তারপর অল্প একটু লবন মাখিয়ে খেয়ে ফেলুন। আদা খাওয়ার কিছুক্ষণ পর এক কাপ কুসুম গরম পানি খান। গভীর রাতে আর গ্যস্ট্রিকের সমস্যা হবে না।
অথবা ২। এক গ্লাস পানি একটি হাড়িতে নিয়ে চুলায় বসান। এর আগে এক ইঞ্চি পরিমাণ কাঁচা হলুদ পানিতে দিয়ে দিন। পানি অন্তত পাঁচ মিনিট ফুটতে দিন। তারপর নামিয়ে আনুন। পানি ঠাণ্ডা হলে হলুদসহ খেয়ে ফেলুন। গ্যাস্ট্রিক দৌঁড়ে পালাবে।
অথবা
৩। ওপরের সমস্ত পদ্ধতি ঝামেলার মনে হলে শুধুমাত্র এক গ্লাস পানিতে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করুন। কখনোই রাতে পেট বা বুক ব্যথা করবে না।

ওজন কমাতে কী খাচ্ছেন? দেখুন কোন খাবারগুলি দুটি এক সাথে খাওয়া উচিত নয়

অধুনা ওজন কমানোর জন্য যে যা খেতে বলেন তা-ই খাই আমরা। বুঝতে পারি না কী খেতে হবে। এমন কিছু খাবার আছে, যা একসঙ্গে খাওয়ার ফলে বুকে জ্বালাপোড়া ও হজমে সমস্যা হয়। একেকটা খাবারের একেক রকম গুণাগুণ। কিন্তু না বুঝে বা চিকিৎসকের পরামর্শ না নিয়ে খেলে সমস্যা হতে পারে। বারডেম জেনারলে হাসপাতালের প্রধান পুষ্টিবিদ আখতারুন নাহার আলোর মতে, যেকোনো খাবার গ্রহণের আাগে সেই খাবারের পুষ্টির গুণাগুণ সম্বন্ধে জানতে হবে। কোন খাবারের সঙ্গে কোনটা খাওয়া উচিত আর কোনটা উচিত না, তা জানতে হবে। একসঙ্গে সব খাবার খেলে হজমে সমস্যা হয়, পেটের পীড়া দেখা দেয়।

ওজন কমার আগে অসুস্থ হয়ে পড়বেন। তাই ডায়েট করার সময় কোন কোন খাবার খাবেন, কোনগুলো এড়িয়ে চলবেন, তা জেনে নিন।
দই ও টক ফল :- দই দুধের তৈরি খাবার। দই খাওয়ার পর টক ফল খেলে অ্যাসিডিটির সমস্যা হতে পারে।

আম ও শসা :-
আম ও শসা দুইটা দুই ধরনের খাবার। মুম্বাই সেলফকেয়ারের পুষ্টিবিদ সুমন আগারওয়ালের মতে, আম ফল এবং শসা সবজি। এই দুই খাবারে দুই ধরনের পদার্থ রয়েছে। ফলে এই দুই খাবার একসঙ্গে গ্রহণ করলে হজমে সমস্যা হয়।

দুধ ও অ্যান্টিবায়োটিক :- দুধ ও অ্যান্টিবায়োটিক কখনো একসঙ্গে গ্রহণ করা উচিত …

ঘরোয়া পদ্ধতিতে পেটের কৃমি দূর করুন ঔষধ ছাড়াই

কৃমি মূলত এক ধরণের পরজীবী যা অন্ত্রে বাস করে থাকে। কৃমি শুধু মানুষ নয়, অন্যান্য প্রাণীর শরীরেও দেখা দিয়ে থাকে। মূলত ত্বকের মাধ্যমে কৃমি দেহে প্রবেশ করে থাকে। কৃমি বিভিন্ন প্রকার হয়ে থাকে। সুতা কৃমি, বক্র কৃমি, গোল কৃমি, ফিতা কৃমি হয়ে থাকে। কৃমি দ্বারা ছোট বড় সবাই আক্রান্ত হয়ে থাকে।

কৃমি দূর করার জন্য সাধারণত ঔষধ খাওয়া হয়ে থাকে। তবে কিছু ঘরোয়া উপায় আছে যার মাধ্যমে কৃমি দূর করা সম্ভব।

১. মিষ্টি কুমড়োর বীচি :- দুই টেবিল চামচ মিষ্টি কুমড়োর বীচির গুঁড়ো তিন কাপ পানিতে ৩০ মিনিট ধরে সিদ্ধ করুন। সকালে খালি পেটে খাওয়ার চেষ্টা করুন। এছাড়া এক টেবিল চামচ মিষ্টি কুমড়োর বীচির গুঁড়োর সাথে সমপরিমাণের মধু মিশিয়ে নিন। খালি পেটে এটি খান। তারপর নাস্তায় একটি কলা খেতে পারেন।

২. করলা :- প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ১ গ্লাস করলার জুস করে খেতে পারেন। গুঁড়ো কৃমির ক্ষেত্রে করলার পাতার রস বয়স্ক হলে ১-২ চা চামচ এবং শিশু হলে আধা চা চামচ সকালে ও বিকেলে অল্প পানি মিশিয়ে খেতে হয়। আবার পাকা করলা বা উচ্ছের বীজ শুকিয়ে রেখে প্রতিদিন প্রায় ১ চা চামচ (৩/৪ গ্রাম) মাখনের মতো বেটে তাতে ৭/৮ চা চামচ পানি মিশিয়ে চা ছাঁকনিতে ছেঁকে সে প…

মহাষৌধ মাছ ! মাছ খেলে যে জটিল রোগগুলি থেকে রেহাই পাবেন আপনি।

বাংলাদেশের মানুষ মাছে-ভাতে থাকতে ভালোবাসে। সারা দুনিয়ায় এই সুনাম আমাদের রয়েছে। ভাতের সঙ্গে একটুকরো মাছ না হলে বহু মানুষ রয়েছেন যাদের খাওয়া অতৃপ্ত থেকে যায়। তবে এই অভ্যাস যে কতোটা উপকারী স্বাস্থ্যের পক্ষে, তা এবার জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরাই। মাছের মধ্যে এমন সব উপাদান রয়েছে যা সুস্থ থাকতে অনুঘটকের কাজ করে। তাই আমিশাষীরা মাংসের বদলে মাছ বেশি করে খাওয়া অভ্যাস করলে অনেক বেশি উপকার পাবেন। জেনে নিন কোন কোন উপকার পেতে মাছকে রাখবেন আপনার প্রতিদিনের খাবার টেবিলে।

নানা পুষ্টিগুণে ঠাসা : মাছ নানা ধরনের মাছের মধ্যে রয়েছে হাজারো পুষ্টিগুণ। ভিটামিন ডি, ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের মতো উপাদানগুলি শরীরের হাজারো সমস্যায় প্রতিষেধকের কাজ করে। এছাড়াও নানা ধরনের প্রোটিন ও আয়োডিন থাকে মাছের মধ্যে।

সুস্থ বৃদ্ধির সহায়ক : ছোটবেলা থেকেই মাছ খেলে বাচ্চাদের বৃদ্ধি অনেক ভালো হয়। এছাড়াও মস্তিষ্কের বিকাশ ও চোখের দৃষ্টি মজবুত হয় মাছ খেলে।
অবসাদ কমাতে : সাহায্য করে অবসাদগ্রস্ত মানুষদের মেজাজ অনেক সময়ই খারাপ থাকে। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, মাছের মধ্যে থাকা ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড অবসাদ কমাতে সাহায্য করে।

হার্টের রোগ কমায় : হার্টের যেকো…

বাংলাদেশের যে দোকানে দোকানী ছাড়াই বিক্রি হচ্ছে জিনিস পত্র

দোকানের ভেতর থরে থরে সাজানো আছে লুঙ্গি, গামছা, তোয়ালে ও রুমাল। আছে প্রতিটি পণ্যের গায়ে দাম লেখা ট্যাগ। পণ্য কেনার পর ক্রেতারা যাতে নির্দিষ্ট দাম দিতে পারেন, এ জন্য রাখা আছে একটি ক্যাশবাক্সও। নেই শুধু বিক্রেতা। ‘ভিন্নরকম দোকান’ নামের বিক্রেতাহীন এই দোকানটি কুষ্টিয়ার কুমারখালী রেলওয়ে স্টেশনে।
দোকানের মালিক হামিদুর রহমান ওরফে শিপন। পেশায় তিনি হকার। হামিদুর বলেন, চালু হওয়ার পর থেকে সাত মাস ধরে দোকানটি বিক্রেতা ছাড়াই চলছে। তিনি মূলত হকার। শুধু দোকানে বসে থাকলে পরিবারের খরচ জোগাতে পারবেন না। তাই বিভিন্ন স্টেশনে গিয়ে লুঙ্গি-গামছা বিক্রি করেন। একই সঙ্গে বিক্রেতাহীন দোকানও খুলেছেন। ক্রেতারা এসে পছন্দমতো জিনিস কিনে মূল্য দেখে টাকা ক্যাশবাক্সে রেখে চলে যান। দোকানে না বসার বিষয়ে হামিদুর বলেন, ‘দোকানে বসে থাকা আমার পক্ষে সম্ভব না। কারণ সংসার চালানোর রোজকার খরচ দোকান থেকে না-ও উঠতে পারে।’ তিনি জানান, দোকানে কোনো বিক্রেতা না থাকলেও চুরি হয় না।হামিদুর রহমান বলেন, ‘মানুষকে বিশ্বাস করি। তাঁদের বিশ্বাসের ওপর দোকান করেছি। সাত মাসে এভাবেই দোকান চলছে। মাসিক ৫০০ টাকায় দোকানটি ভাড়া নিয়েছি। প্রতিদিন ৮০০ থেকে …

বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্ক, ডেকে আনে বিবাহ বিচ্ছেদ

নারী ও পুরুষের সম্পর্ক সংজ্ঞায়িত বিভিন্ন পর্যায়ে। ডেটিং থেকে শুরু করে বিয়ের আগে সহবাস তারপর বিয়ে পর্যন্ত নানা পর্যায়ে চলে এ সম্পর্কের সংজ্ঞায়ন।

কিন্তু সম্প্রতি ডেনবার বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সমীক্ষা প্রকাশিত হয়েছে ‘জার্নাল অব ফ্যামিলি সাইকোলজি’তে। এ সমীক্ষায় উল্লেখ করা হয়েছে কোহেভিটিং অর্থাৎ বিয়ের আগে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে একসাথে বসবাস নারী-পুরুষের সম্পর্কে বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে।

বিয়ের আগে কোহেভিটিং পরবর্তী বিবাহিত জীবনে বিচ্ছেদ ডেকে আনতে পারে। এক হাজার বিবাহিত নারী-পুরুষের ওপর সমীক্ষা চালিয়ে দেখা গেছে, যেসব নারী-পুরুষ এনগেজমেন্টের আগেই একত্রে বসবাস ও সহবাস করে, তাদের বিয়ে-বিচ্ছেদের হার সবচেয়ে বেশি।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, এ ধরনের নারী-পুরুষের ৪৩ শতাংশের মধ্যেই বিয়ের পর বিবাহিত জীবনে সন্তুষ্টির মাত্রা ধীরে ধীরে কমে গেছে। তাদের চেয়ে বিবাহিত তারাই বেশি সন্তুষ্ট যারা এনগেজমেন্টের পর সহবাস করেছে। এনগেজমেন্টের পর সহবাস করেছে এমন নারী-পুরুষের সংখ্যা ১৬ শতাংশ। তাদের চেয়ে বিয়ের পরবর্তী জীবন আরো বেশি সুখকর হয়েছে যারা সহবাস করেছে বিয়ে সম্পন্ন হওয়ার পর। তাদের সংখ্যা ৪১ শতাংশ।

ঊর্ধ্বতন গবেষক গ্যালেনা রোডস…

মশা থেকে চিরতরে রেহাই!

সারা বছর মশার প্রচন্ড উপদ্রব-এ আমরা প্রচুর বিরক্ত। মশা থেকে মুক্ত থাকার জন্য আপনার মনে হয়তোবা কয়েলের ছবি ভাসছে। কিন্তু একবারও ভেবে দেখেছেন, এক বছরে আপনি কয়েলের পিছনে কত টাকা খরচ করেছেন? আর সব থেকে বড় কথা হলো, কয়েল মানব শরীরের জন্য কতটা ক্ষতিকর সেটা কি আপনি জানেন? এ্যারোসল যদি ব্যবহার করার চিন্তা থাকে তবে সেক্ষেত্রে সেটা মানব শরীরের জন্য আরো ভয়াবহ ক্ষতিকর। অথবা ইলেকট্রিক ব্যাট আছে কিন্তু মশার সাথে কতদিন ব্যাডমিন্টন খেলবেন? ১০টা মারবেন ১০০ মশা সামনে এসে হাজির হবে। আপনি মরে যাবেন কিন্তু আপনার মশা মারা আর শেষ হবে না!

মশা মারার কয়েলের ক্ষতিকর দিকঃআপনি যদি একটি মশার কয়েল টানা ৮ ঘন্টা জ্বালিয়ে রাখেন তাহলে ১৩৭টি সিগারেটের পরিমান বিষাক্ত ধোঁয়া আপনি গিলছেন।কয়েলে যে গুঁড়া দেখেন সেটা এতটাই সূক্ষ্ম যে তা সহজেই আমাদের শ্বাসনালীর এবং ফুসফুসের পথে গিয়ে জমা হয়ে বিষাক্ততা তৈরি করে।কয়েলের ধোঁয়া চোখের ভীষন ক্ষতি করে, দীর্ঘদিন ব্যবহারে চোখের ভয়াবহ ক্ষতিসাধন হতে পারে।কয়েল মশাকে তাৎক্ষনিক মারে কিন্তু মানব দেহে স্লো পয়জনিং করে, ধীরে ধীরে মানুষ মৃত্যুর দিকে ধাবিত হয়। এ্যারোসলের ক্ষতিকর দিকঃএ্যারোসল হার্টের জন্…

ডায়াবেটিস থেকে বাঁচার ঘরোয়া টোটকা

বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ৩৮ কোটি ২০ লাখ মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। ২০৩০ সালের মধ্যে এ সংখ্যা ৫০ কোটি ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ডায়াবেটিস সম্পর্কে এখনই সচেতনতা না বাড়ালে পুরো বিশ্বে এক সময় এটি মহামারী আকারে দেখা দিতে পারে। 
অনেকেই মনে করেন, মিষ্টি বেশি খেলেই ডায়াবেটিস হয়। শুধু মিষ্টি নয়, ডায়াবেটিসের অন্যতম কারণ হচ্ছে শারীরিক ও মানসিক চাপ এবং জিনগত কারণ। জিনগত কারণে কারো ডায়াবেটিস হয় সেক্ষেত্রে তেমন কিছু করার থাকে না। তবে ডায়াবেটিস প্রতিরোধের চেষ্টাতে ক্ষতিকর কিছু নেই। ডায়াবেটিস প্রতিরোধ বা নিয়ন্ত্রণে আপনাকে প্রতিদিন অনেক ওষুধ খাওয়ার দরকার নেই। দৈনন্দিন খাদ্যাভ্যাসে সামান্য পরিবর্তনই ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে পারেন। এখানে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ এবং নিয়ন্ত্রণে কিছু টিপস দেয়া হলো:  ওষুধের চেয়ে ফলমূল এবং শাকসবজি খাওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। তিতা যাদের পছন্দ, তারা খালি পেটে করলার রস পান করতে পারেন। অথবা করলা চিপসের মতো কেটে ভেজে খেতে পারেন। এটি আপনার স্বাদে পরিবর্তন আনবে এবং স্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী। এক টেবিল চা চামচের এক চতুর্থাংশ মেথি পুরো রাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে দাঁত ব্রাশ করা…

আপনার কিডনি কি ভালো আছে? বুঝে নিন সহজ দুই পরীক্ষায়

কিডনি কখন যে বিগড়োবে, আগাম কোনও লক্ষণ দেখে বোঝার বা চেনার উপায় নেই। যে কারণে রোগ ধরতে ধরতেই অনেক দেরি হয়ে যায়। যাদের কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কোনোরকম আশঙ্কা রয়েছে, মানে, কেউ যদি ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপের রোগী হয়ে থাকেন বা কারও পরিবারে কিডনির অসুখ থেকে থাকে বা যাঁদের বয়স ৬০ পেরিয়েছে, তাঁদের উচিত বছরে অন্তত দু-বার দুটো পরীক্ষা করানো। ন্যাশনাল কিডনি ফাউন্ডেশন জানাচ্ছে, ACR ও GFR-এর মতো দুটো সিম্পল টেস্ট করালেই ধরা পড়ে যাবে আপনার কিডনি ঠিকঠাক কাজ করছে কি না। 
১. মূত্র পরীক্ষা বা ACR ACR :- হল অ্যালবুমিন ও ক্রিয়েটিনিনের অনুপাত। অ্যালবুমিন হল বিশেষ ধরনের প্রোটিন। মূত্রে অ্যালবুমিন আছে কি না, পরীক্ষা করে সেটাই দেখা হয়। আমাদের শরীরের জন্য প্রোটিন অত্যন্ত জরুরি। যে কারণে রক্তে প্রোটিন থাকা খুব স্বাভাবিক। কিন্তু, এই প্রোটিন কখনোই মূত্রে থাকার কথা নয়। যদি মূত্র পরীক্ষায় প্রোটিন পাওয়া যায়, তার মানে হল, কিডনি ঠিকঠাক ভাবে রক্তকে ছাঁকতে পারছে না। তাই ইউরিন টেস্টে প্রোটিন পজিটিভ হলে, নিশ্চিত হতে তাঁর NFR করাতে হবে। যদি, তিন মাস বা তার বেশি সময় ধরে রেজাল্ট পজিটিভ হয়, তা কিডনি অসুখের লক্ষণ।  ২. GFR …

যে অভ্যাসগুলোর কারনে কম বয়সে চুল পড়ে

ঘাস ছাড়া মাঠ, পাতা ছাড়া গাছ ও চুল ছাড়া মাথা দেখতে খুব খারাপ লাগে সন্দেহ নেই। বলা হয়, মানুষের প্রতিদিন গড়ে শ'খানেক মাথার চুল পড়ে। তবে এটা স্বাভাবিক। এতে অস্বাভাবিকত্ব কিছু নেই। তবে বেশি চুল উঠতে থাকলে তা অবশ্যই চিন্তার বিষয়।

খারাপ স্বাস্থ্য ও বদ অভ্যাসের ফলে অনেকেই কম বয়সে টাক মাথা হয়ে যান। কিছু মানুষের ক্ষেত্রে ধূমপান, মদ্যপান, ড্রাগ নেওয়া ইত্যাদির ফলে যেমন চুল পড়ার সমস্যা হয়, কারও ক্ষেত্রে আবার বংশের ধারা বা ক্লান্তি ও অবসাদ চুল ধরে রাখার ক্ষেত্রে প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এসব ছাড়া আরো কিছু অভ্যাসের কারনে চুল পড়ে।

ভুল শ্যাম্পু নির্বাচন : ভুল শ্যাম্পু নির্বাচনের ফলে চুল পড়ার সমস্যা দেখা দেয়। চুলের গোড়া নড়বড়ে হলে হালকা শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। ভেষজ শ্যাম্পু দুর্বল চুলের জন্য উপযোগী।

চুলে গরম পানি দেওয়া : চুলে গরম পানি কখনও দেওয়া উচিত নয়। এতে চুলের গোড়া শুকনো হয়ে যায় এ দেখতে বাজে লাগে। এছাড়া গরম পানি চুলের গোড়া নষ্ট করে ফেলে। ফলে কম বয়সেই টাক পড়ে যায়।

ক্ষারযুক্ত জল পানি : ক্ষার বেশি থাকলে তা চুলের ক্ষতি করে। চুলের গোড়ার চামড়ার ক্ষতি হয় ফলে বেশি করে চুল পড়তে থাকে। কম ক্ষারযুক্ত পানি চুলের জ…

তুলসি পাতা হৃদযন্ত্র এবং ডায়বেটিক রোগীদের জন্যও উপকারী

ঠাণ্ডা ও কফের সমস্যায় আরাম দেওয়ার পাশাপাশি এই ভেষজ পাতায় রয়েছে নানান উপকারিতা। স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে তুলসি পাতার বিভিন্ন উপকারী দিক তুলে ধরা হয়।
জ্বর সারাতে: অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল এবং অ্যান্টিবায়োটিক উপাদানে ভরপুর। তাই মৌসুমী রোগ এবং সংক্রমণ সারাতে বেশ সাহায্য করে তুলসি। আধা লিটার পানিতে মুঠ তুলসি পাতা এবং খানিকটা দারুচিনির গুঁড়া ফুটিয়ে নিতে হবে, যতক্ষণ না পানির পরিমাণ অর্ধেক হয়ে আসে। খানিকটা চিনি মিশিয়ে তিন ঘণ্টা পরপর এক চুমুক করে এই মিশ্রণ পান করলে জ্বর এবং ঠাণ্ডার সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া যায়। 
ডায়বেটিক রোগীদের জন্য উপকারী: তুলসি পাতায় রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং প্রাকৃতিক তেল করায়ফালিন, ইউজিনল এবং মেথিল নামক উপাদান। এগুলো অগ্নাশয়ের ‘বেটা সেল’গুলোর কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। যা ইনসুলিন সংরক্ষণ এবং নিঃসরণ ঘটায়। এটি ইনসুলিনের তারতম্য নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। ফলে রক্তে শর্করার পরিমাণ কমে আসে যা ডায়বেটিসের জন্য উপকারী।  হৃদযন্ত্রের জন্য উপকারী: তুলসি পাতায় রয়েছে ইউজিনল নামক উপাদান যা রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এছাড়াও রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রাও কমায় এই উপাদান। প্রতিদ…

মাত্র একটি ব্যায়ামে পান সুগঠিত বাহু এবং পেট (ভিডিও সংযুক্ত)

এমনিতে ব্যায়াম না করলেও অনেকেই মেদ কমানোর জন্য ব্যায়ামের দিকে ঝুঁকে থাকেন। বেশীরভাগ মানুষ পেটের মেদ কমানোর জন্য ব্যায়ামের সহায়তা নেন। কিন্তু এর পাশাপাশি ঊর্ধ্ববাহুর মেদ কমানো বা বাহুকে সুগঠিত করারও দরকার পড়ে অনেকের। সেক্ষেত্রে সুগঠিত পেট এবং বাহু দুই-ই দিতে পারে এমন একটি ব্যায়াম হলো ডাম্বেল উড চপ। চলুন দেখে নেই এই দারুণ কার্যকরী ব্যায়ামের খুঁটিনাটি। 
প্রথম ধাপ :-  শুরু করতে হবে একটা ডাম্বেল দুই হাতে শক্ত করে ধরে। এর জন্য ডাম্বেলের মাঝের জায়গাটা নয়, বরং এর দুই পাশের ওজনদার অংশগুলো হাতে মুঠো করে ধরতে হবে। 
দ্বিতীয় ধাপ :-  আপনার দুই হিপের মাঝের যে দুরত্ব, তার চাইতে বেশি ছড়িয়ে রাখুন আপনার পা দুটোকে। হাঁটু একটু বাঁকিয়ে রাখুন। 
তৃতীয় ধাপ :-  ডাম্বেলটাকে এক কাঁধের ওপর তুলে ধরুন। এবার নিজের শরীর বাঁকিয়ে এই ডাম্বেল কাঁধের বিপরীত হিপের দিকে নামিয়ে নিয়ে আসুন। এই ওজন আবার ঘুরিয়ে ওপরের দিকে আনার জন্য আপনাকে একটু উবু হতে হবে। যতো বেশি ঝুঁকবেন, এই কাজটার পেছনে তত বেশি শক্তি ব্যয় করতে পারবেন। কিন্তু এই কাজটা করার সময়ে আপনি যেন চোট না পান সেদিকে বিশেষ নজর রাখা জরুরী। কম ওজন ব্যবহার করে শুরু করুন। ব্যথ…

যে কারনে বিয়েতে দেরি নয়

পুরুষদের একটা সাধারন ধারনা আছে বিয়ে করলেই জীবনের সব সুখ শেষ৷ কিন্তু স্ট্যাটিসটিক্স অনুযায়ী বিবাহিত পুরুষেরা শুধু দীর্ঘজীবীই হন না, তাঁরা সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হন এবং সুখী মানুষও হন...

ইংরেজিতে একটি কবিতা আছে, 'লাভ অ্যান্ড ম্যারেজ, লাভ অ্যান্ড ম্যারেজ/গো টুগেদার লাইক আ হর্স অ্যান্ড ক্যারেজ/দিস আই টেল ইউ ব্রাদার/ইউ কান্ট হ্যাভ ওয়ান উইদাউট দ্য আদার'৷ সহজ বাংলায়, শুধু প্রেম করলেই হবে না, পাশাপাশি বিয়েটাও করে ফেলতে হবে৷ প্রেম এবং বিয়ে একেবারেই ঘোড়া এবং গাড়ির মতো৷

সংখ্যাতত্ত্ব অনুযায়ী একা এবং অবিবাহিত পুরুষের তুলনায় বিবাহিত পুরুষের আয়ু অনেক বেশি৷ যে সব পুরুষ প্রেম করেন এবং বিয়েটাকে ক্রমশ পিছনে ঠেলতে থাকেন তাঁরা যে খুব নিশ্চিন্ত জীবন কাটান তা নয়৷ কারণ, অবিবাহিত প্রেমের মধ্যে নানা ধরনের টেনশন এবং স্ট্রেস জড়িত৷ অনেক কিছুই করতে হয় অনিশ্চিত ভবিষ্যত্ মাথায় রেখে৷ এর মধ্যে 'শাররীক সম্পরক একটা গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর৷ তার ফলেই মনের মধ্যে এসে ভিড় করে চাপ, শরীর এতেই নষ্ট৷
সমীক্ষা করে দেখা গিয়েছে শতকরা ৯৪ জন দম্পতি জানিয়েছেন, বিয়ের পর তাঁরা অনেক নিশ্চিন্ত৷ আরও বিস্ময়ের এই সব দম্পতিরাই যখন বাবা…

যৌন জীবনে পূর্ণাঙ্গ তৃপ্তির বৈজ্ঞানিক কিছু উপায়

যৌন জীবনে পুরুষের তুলনায় মহিলাদের অসুখী হওয়ার হার অনেক বেশি। এমনকি নিজের ভালোবাসার পুরুষটির সঙ্গেও যৌন জীবন নিয়ে খুশী নন অনেক মহিলাই। মুখে প্রকাশ না করলেও মনের মধ্যে ক্ষোভ নিয়ে জীবন যাপন করেন, মুখ ফুটে অনেকে বলতে পারেন না যৌন জীবনে নিজের অসুবিধার কথা। কিন্তু এরকম কেন? কেন অনেক নারী যৌন জীবনে অসুখী ও অতৃপ্ত? ভুল ধারণা এবং অজ্ঞতা যৌন জীবনে অসুখী রয়ে যাওয়ার মূল কারণ। সঙ্গে পর্যাপ্ত যৌন শিক্ষার অভাব। যৌনতা যে কেবল সন্তান উৎপাদনের মাধ্যম নয়। নারী এবং পুরুষ উভয়ের জন্য একটি আনন্দের ব্যাপার। এই বিষয়টি সম্পর্কে আজও অজ্ঞ প্রচুর নারী। কী করতে হবে কিংবা কীভাবে করলে আরও আনন্দময় হয়ে উঠবে যৌন মিলন। সেটা জানা নেই বলে তারা রয়ে যান অসুখী ও অতৃপ্ত। 
১. নিজেকে বুঝতে না পারা :- আসলে কী চাইছেন? তার শরীর কোন ডাকে কীভাবে সাড়া দিচ্ছে। কোন অঙ্গগুলো যৌনতার ক্ষেত্রে স্পর্শকাতর কিংবা নিজের শরীরের চাহিদাগুলো কী কী ইত্যাদি বিষয়ে অজ্ঞতা এবং বুঝতে না পারাও যৌন জীবনে অসুখী হবার একটি বড় কারণ।  ২. কি চাই সেটা বলতে না পারা:- নিজের চাহিদাও জানেন, কিন্তু মুখ ফুটে বলতে পারছেন না নিজের ভালো লাগা না লাগার কথা। …

ওজন কমাতে - টানা সাতদিন নারকেলের পানি পান করুন!

নারকেলের পানি পান করলে তা ওজন কমাতে সাহায্য করে। নারকেলের পানির মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর অনেক উপাদান। এটি শরীরকে পরিশোধিত করতে সাহায্য করে। সারা পৃথিবীতেই এই পানির বেশ কদর রয়েছে। এর স্বাস্থ্য উপকারিতাও অনেক বেশি। টানা সাতদিন নারকেলের পানি খেলে শরীরের অনেক উপকার হয়। তবে যেকোনো খাবার নিয়মিত খাওয়ার আগে আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে তা গ্রহণ করুন।
আসুন জেনে নেই নারিকেলের পানির উপকারিতা –
নারকেলের পানির মধ্যে রয়েছে মূত্রবর্ধক উপাদান। এটি ইউরিনারি ট্র্যাক্ট পরিষ্কারে সাহায্য করে।শরীরে শক্তি জোগাতে সাহায্য করে। থাইরয়েড হরমোনের উৎপাদন বাড়ায়।ব্যায়াম করার পর এক গ্লাস নারকেলের পানি শরীরের শক্তি পুনরুদ্ধারে সাহায্য করে। প্রতিদিন এক কাপ নারকেলের পানি পান করলে ত্বককে আর্দ্র থাকে। এটি ব্রণের সমস্যা কমায়।নারকেলের পানির মধ্যে রয়েছে আঁশ। এটি হজমে বেশ সাহায্য করে। নিয়মিত নারকেলের পানি পান করলে গ্যাসট্রিকের সমস্যা কমায়।নারকেলের পানি শরীরের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এটি ইউরিনারি ট্র্যাক্টে সংক্রমণকারী ব্যাকটেরিয়াকে প্রতিরোধ করে। এ ছাড়া মাড়ির রোগ, ঠান্ডা ইত্যাদি প্রতিরোধে স…

জনতা ব্যাংক নেবে ৮৩৪ এক্সিকিউটিভ অফিসার

এই পদে আগ্রহী প্রার্থীরা ১০ এপ্রিল ২০১৬ তারিখ পর্যন্ত পদটিতে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের সব প্রক্রিয়া অনলাইনে করতে হবে
সোনালী ব্যাংকের পর এবার রাষ্ট্রায়ত্ত জনতা ব্যাংক লোকবল নেওয়ার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত বিজ্ঞাপন অনুযায়ী জনতা ব্যাংকে এক্সিকিউটিভ অফিসার (ইও) পদে ৮৩৪ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে।

বেতন :- বিজ্ঞপ্তি অনুসারে এক্সিকিউটিভ অফিসাররা জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুসারে চাকরিতে যোগ দেওয়ার শুরুতেই ২২ হাজার টাকা বেতন পাবেন। এ ছাড়া নিয়ম অনুযায়ী অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাও পাবেন।

শিক্ষাগত যোগ্যতা :- যেসব প্রার্থী এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে আবেদন করবেন, তাঁদের স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চার বছর মেয়াদি স্নাতক বা স্নাতকোত্তর পাস হতে হবে। প্রার্থীর শিক্ষাজীবনে ন্যূনতম দুটি প্রথম শ্রেণি বা সমমানের সিজিপিএ থাকতে হবে। কোনো ক্ষেত্রে তৃতীয় শ্রেণি থাকলে আবেদন করা যাবে না। এ ছাড়া কম্পিউটার চালনায় অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
বয়স :- আবেদনকারীর বয়স ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে ২১ থেকে ৩০ বছর হতে হবে। তবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য।
আবেদন প…

নখকুনি নিরাময়ের ঘরোয়া এবং প্রাকৃতিক উপায়

পায়ের নখ ভেতরের দিকে বৃদ্ধি পাওয়াকে ওনাইকোক্রিপ্টোসিস বলে যা খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। একে নখকুনিও বলা হয়। যখন পায়ের নখের কোনার অংশ বা প্রান্তের অংশ নরম মাংসের ভেতরের দিকে প্রবেশ করে তখন খুবই অস্বস্তি ও ব্যথার সৃষ্টি করে। সাধারণত নখকুনি পায়ের আঙ্গুলেই হয়ে থাকে কিন্তু হাতের আঙ্গুলেও হতে পারে তবে তা খুবই বিরল।

নখকুনি হওয়ার কারণ খুব বেশি টাইট-ফিটিং জুতা পরলে, নখ সঠিক ভাবে না কাটলে, নখে ব্যথা পেলে এবং অস্বাভাবিক বাঁকানো নখ থাকলে। ডায়াবেটিস ও অন্য স্বাস্থ্যগত সমস্যা থাকলে পায়ের রক্ত সংবহন কমে যায় ফলে পায়ের নখের এই সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়।

নখে খুব বেশি ব্যথা হওয়া, লাল হওয়া এবং ফুলে যাওয়ার মত উপসর্গগুলো দেখা যায় নখকুনি হলে। যদি এর চিকিৎসা করা না হয় তাহলে ইনফেকশন হয়ে যেতে পারে। ইনফেকশন হলে নখের চারপাশ লাল হয়ে ফুলে যায়, পুঁজ ও রক্ত বাহির হয়। যদি শুরুতেই বুঝতে পারা যায় তাহলে ঘরেই এর যত্ন নেয়া যায়। যদি ইনফেকশন হয়ে যায় তাহলে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিৎ। নখকুনির ঘরোয়া প্রতিকারগুলো জেনে নেই আসুন।
১। উষ্ণ জলে ভিজানো :- উষ্ণ জলে কিছুক্ষণ পা ডুবিয়ে রাখলে নখকুনির ব্যথা ও ফোলা কমে যায়। এজন্য একটি ছোট ব…

সহজ ঘরোয়া পরীক্ষায় জেনে নিন গর্ভের সন্তান ছেলে না মেয়ে ?

গর্ভের শিশুটি ছেলে না কি মেয়ে হবে? মা-বাবারও জানার আগ্রহের কমতি থাকে না। তবে ২০ সপ্তাহের আগে শিশুটির লিঙ্গ Gender সম্পর্কে ডাক্তার জানাতে পারেন না। ২০ সপ্তাহ তো অনেক সময়, একটু চেষ্টা করলেই আগে জানা যায়। অনেক মায়েরাই তাদের গর্ভের সন্তান সম্পর্কে আলট্রাসনগ্রাম করার আগেই জানতে পারেন। কিন্তু, কীভাবে তা সম্ভব হয়, আজ আপনারাও তা জেনে নিন –
১. কোন খাবারের প্রতি আপনার আকর্ষণ : বেশীরভাগ মহিলা গর্ভাবস্থায় হরমোন ভারসাম্যহীনতায় ভোগে। যার ফলে তাদের মাঝে বিভিন্ন কিছু খাওয়ার প্রবল ইচ্ছা জাগে। আপনার ক্ষুধিত খাদ্য টাইপ আপনার গর্ভস্থ শিশুর লিঙ্গ নির্ধারণ করতে পারে। আপনার যদি মিষ্টি বা চিনিযুক্ত খাবার ইচ্ছা হয়, তাহলে সম্ভবত মেয়ে হবে আর যদি নিমকি এবং মসলাদার খাবার খাওয়ার ইচ্ছা হয়, তাহলে ছেলে হতে পারে।

২. পেটে সমস্যা হচ্ছে কি : সমীক্ষায় দেখা গেছে, যাদের গর্ভাবস্থায় সকালে হালকা বমি বা অন্য কোন সমস্যা হয় নি তাদের ছেলে হয়েছে। তবে, শিশুটি মেয়ে হলে পেটে ব্যথার সৃষ্টি হয় এবং সকালে শারীরিক অসুস্থতা বেশি বৃদ্ধি পায়।
৩. পেটের অবস্থান : গর্ভাবস্থায় পেট বেশি ভারী মনে হলে, মেয়ে শিশু হবে। আর যদি ভার কম অনুভূত হয় তাহলে ছে…

জেনে নিন স্বাভাবিক যৌন মিলনের সময়সীমা কত?

যৌনতা আমাদের দেশে এখনো অনেকটা ট্যাবু’র মত। ফলে অনেকেই যৌনতা নিয়ে কোন ধরণের প্রশ্ন করতে সংশয় প্রকাশ করে। যৌন মিলনের সময় কত মিনিট হওয়া উচিত? এই প্রশ্নটা সাধারনত আমাদের দেশের তরুণদের কাছ থেকেই বেশি এসে থাকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষজ্ঞরা এক সমীক্ষাতে জানিয়েছেন বেস্ট সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্স ৭-১৩ মিনিটের মধ্যে হয়৷ সমীক্ষা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছে সাধারণত ৩ মিনিটের সেক্স পর্যাপ্ত সময় হয়৷

এই সমীক্ষা করা হয়েছিল পেনিট্রেটিব সেক্সের জন্য আদর্শ সময় কি এটা বার করার জন্য৷ আমেরিকা ও কানাডার লোকেদের উপর সমীক্ষাতে রায় পাওয়া গেছে ৭-১৩ মিনিটের মত সময় সবচেয়ে বাঞ্ছনীয় হয়৷ সমীক্ষাতে আরও জানা গেছে ইন্টারকোর্স চলার সময় ৩-৭ মিনিট আদর্শ৷

সেক্সের জন্য এর থেকে কম সময়কে ‘সবচেয়ে কম সময়’ ও ১৩ মিনিটের অধিক সময়কে ‘বেশি লম্বা’ বলা হয়েছে৷ এই সমীক্ষা ‘শান্ত স্বভাবের’ জুড়ির পক্ষে আদর্শ যারা বুঝতে পারে স্বাস্থ্যকর সেক্স অনেকক্ষণ সময় ধরেই চলা উচিত৷
সমীক্ষক দলের আরও মন্তব্য পুরুষদের ক্ষেত্রে সেক্সের সময় পুরুষদের লিঙ্গ কঠোর, বড় হতে হবে এবং পুরো রাত যেন সেটা সেক্সুয়াল কার্যকারিতা জন্য তৈরী থাকতে পারে৷ এই…

ওয়াই-ফাই সংযোগ শক্তিশালী করতে করণীয়

একাধিক ব্যক্তি মিলে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে গেলে ওয়াই-ফাই এর বিকল্প নেই। স্মার্টফোন কিংবা ল্যাপটপেও হটস্পট করে ব্যবহার করা গেলেও সেটি অস্থায়ী। স্থায়ী হলো ওয়াই-ফাই সংযোগ। সেটি শক্তিশালী করতে করণীয় জেনে নিন।

ওয়াই-ফাই এর ইন্টারনেট গতি দুর্বল হলে কিংবা রাউটার ঠিকঠাক কাজ না করলে হয়তো আপনি ঘাবড়ে যান। তবে ঘাবড়াবার কিছু নেই। আপনি ইচ্ছে করলে সেটি শক্তিশালী করতে পারেন। এজন্য আপনাকে কিছু পদক্ষেপ নিতে হবে।

# ওয়াই-ফাই-এ ব্যবহার করতে হলে ভালো রাউটার ব্যবহার করুন। যেমন ডাবল রাউটার ব্যবহার করুন। রাউটারটি ২.৪ গিগাহার্জ হতে ৫ গিগাহার্জ এবং ৮০২.১১ এসি কিংবা ৮০২.১১ এন স্ট্যান্ডার্স-এর কি না তা দেখে নেওয়া ভালো।

# ওয়াই-ফাই রাউটারটিকে বাড়ির একটি মাঝামাঝি স্থানে রাখুন, যাতে বাড়ির সর্বত্রই সহজে ইন্টারনেট কানেক্ট পায়।
# আপনি বাড়ির এমনটা একটা অংশে রয়েছেন, যেখান থেকে রাউটার অনেকটাই নিচে রয়েছে। এমন অবস্থায় রাউটারের ২.৪ গিগাহার্জের চ্যানেল ব্যবহার করুন।

# দেখা যায় অনেক সময় ডেস্কটপ ও ম্যাক কম্পিউটারের সঙ্গে ওয়াই-ফাই রাউটার ঠিক মতো সংযোগ করতে পারে না। সেজন্য, পিএলআইএসটি জাতীয় ফাইলগুলো ডিলিট করতে হবে।

# যে ওয়াই-ফাই আপনি…

গলায় মাছের কাঁটা আটকে গেলে নামানোর কার্যকর উপায়

গলায় মাছের কাঁটা আটকে গেলে কি যে যন্ত্রণা হয় তা কেবল ভুক্তভোগিরাই বলতে পারেন। জীবনে চলার পথে এর শিকার হননি এরকম মানুষও হয়তো খুজেঁ পাওয়া মুশকিল। গলায় মাছের কাঁটা বিঁধলে সবার মনে অসম্ভব অস্বস্তির সৃষ্টি হয়। যা খুবই পীড়াদায়ক। তাই গলায় আটকা মাছের কাঁটা নামানোর উপায় সম্পর্কে আমাদের জ্ঞাত থাকা দরকার। নিচে গলা থেকে মাছের কাঁটা নামানোর সহজ ৮টি উপায় নিয়ে আলোচনা করা হলো : 
পানি পান করুন : গলায় মাছের কাঁটা আটকে গেলে পানি পান করুন। পারলে হালকা গরম পানির সঙ্গে সামান্য পরিমাণ লবণ মিশিয়ে পান করুন। এতে গলায় আটকা মাছের কাঁটা নরম হয়ে নেমে যায়।  সাদা ভাত গিলুন: গলায় আটকা মাছের কাঁটা সাদা ভাত খেয়ে খুব সহজে নামানো যায়। এজন্য আপনাকে ভাতকে ছোট ছোট বল বানিয়ে নিতে হবে। তারপর পানি দিয়ে গিলে ফেলতে হবে। এতে সহজে গলায় আটকা মাছের কাঁটা নেমে যাবে। মনে রাখবেন, শুধু ভাত খেলে কিন্তু কাঁটা নামবে না।  কলা খান: গলায় মাছের কাঁটা বিঁধলে দেরি না করে পারলে চটজলদি একটি কলা খান। কলা খেতে খেতে কখন যে কাঁটা নেমে যাবে তা আপনি টেরও পাবেন না।  লেবু খান: গলায় মাছের কাঁটা আটকে গেলে এক টুকরা লেবু নিন। তাতে একটু লবণ মাখিয়ে চুষে চুষে এর…

ঘন ও লম্বা চুল দ্রুত চাইলে রোজ খেতে হবে এই খাবারগুলো!

সৌন্দর্যের বর্ণনায় সবার প্রথমে যে জিনিসটি আসে তা হচ্ছে চুল। নানান ধরণের উপমা দিয়ে চুলের সৌন্দর্য বর্ণনা করা হয়। কিন্তু বর্তমানে নানান ধরণের সমস্যার কারণে চুলের সৌন্দর্য কমে যাচ্ছে সবারই। আগের মত ঘন কালো লম্বা চুলের উপমা দেয়ার মত সুন্দর চুলের অধিকারী কাউকে খুঁজে পাওয়া বেশ কষ্টকর। আমরা অনেকেই অনেক রকমের হেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করে চুলের সৌন্দর্য ধরে রাখার প্রাণপণ চেষ্টা করি। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই সব কাজ বিফল হয়ে যায়। কারণ এইসকল প্রোডাক্ট চুলকে ভেতর থেকে পুষ্টি যোগাতে পারে না।

কিন্তু এভাবে তো বসে থাকা যায় না। তাই আমাদের খুঁজতে হবে এমন কিছু যা আমাদের চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি এবং চুলকে দ্রুত বাড়তে সাহায্য করে। প্রকৃতি এমন একটি জিনিস যা আমাদের সকল সমস্যার সমাধান করে দিতে পারে। চুলকে ভেতর থেকে পুষ্টি যোগাতে আমাদের চুলকে দিতে হবে সঠিক খাদ্য। আর এতেই দ্রুত বাড়বে চুল। চলুন তবে দেখে নেয়া যাক সেই সকল অসাধারণ খাদ্য যা চুলকে দ্রুত বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে।  ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ খাবার :- ফ্যাটি এসিড চুলের বৃদ্ধিতে অনেক বেশি সহায়তা করে। কিন্তু এইসকল ফ্যাটি এসিড দেহে উৎপন্ন হয় না। ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ খাবার খ…

সুখী দাম্পত্য জীবনের পূর্বশর্ত সুস্থ যৌন স্বাস্থ্য

সুখী দাম্পত্য জীবনের জন্য প্রয়োজন সুস্থ যৌন স্বাস্থ্য। দাম্পত্য জীবনে শারীরিক সম্পর্কে সুখী হতে না পারলে দম্পতিদের মধ্যে ধীরে ধীরে মানসিক ও শারীরিক দূরত্ব সৃষ্টি হয়ে যায়। ফলে পরকীয়া, অশান্তি কিংবা সংসার ভাঙার মতন সমস্যাও সৃষ্টি হয়ে যায় ।আমরা প্রতিদিন যে খাবারগুলো খাচ্ছি তা কি আমাদের যৌন স্বাস্থ্যের ক্ষতি করছে? সুস্থ যৌন স্বাস্থ্যের জন্য কিছু বিশেষ খাবার এড়িয়ে চলা উচিত। বিশেষ কিছু খাবার আছে যেগুলো শরীরে যৌন উত্তেজনা কমিয়ে দিতে ভূমিকা রাখে। আসুন জেনে নেয়া যাক যৌন স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এমন ৬টি খাবার সম্পর্কে।

অ্যালকোহল:-  যারা অ্যালকোহল গ্রহণ করে তারা অ্যালকোহল সম্পর্কে নেতিবাচক কিছু শুনতে রাজি নন। কিন্তু নিয়মিত অ্যালকোহল গ্রহণ করলে পুরুষের টেস্টসটেরন হরমোনের উৎপাদন কমে যায় এবং যৌন জীবন মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।  দুগ্ধজাতীয় খাবার :- অবাক হচ্ছেন? দুধকে আমরা আদর্শ খাবার হিসেবেই জানি। কিন্তু দুগ্ধজাতীয় কিছু খাবার, যেমন- পনির, ছানা ইত্যাদি শরীরে এক ধরণের এস্ট্রোজেন তৈরী করে যা যৌন উত্তেজনা কমিয়ে দিতে পারে। তাই অতিমাত্রায় দুগ্ধ জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন।  কফি :-  প্রতিদিন অতিরিক্ত কফি পান করলে য…

গর্ভকালে যে ৫টি খাবার বুক জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করে

বুক জ্বালাপোড়া করা খুব সাধারণ একটি সমস্যা। গর্ভকালে এই সমস্যাটি কম বেশি সব নারীদের হয়ে থাকে। মূলত গ্যাসের কারণে এই সমস্যাটি হয়ে থাকে। কিছুটা সচেতন থাকলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। কিছু খাবার আছে যা গর্ভকালে খাওয়া উচিত নয়। এই খাবারগুলো পেটে গ্যাস তৈরি করে বুক জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করে। গর্ভধারণ সময়ে এই খাবারগুলো খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। 
১। চা এবং কফি চা:-  কফি অনেকের পছন্দের পানীয়। কিন্তু গর্ভকালে বেশি পরিমাণে চা-কফি পান বুক জ্বালাপোড়ার অন্যতম একটি কারণ হতে পারে। এইসময় এমনসব খাবার খাওয়া উচিত যা আপনার শরীরকে ঠান্ডা করে থাকবে।  ২। সাইট্রাস জাতীয় খাবার:- সাইট্রাস জাতীয় ফল যেমন লেবু, কমলা, আঙ্গুর এবং টমেটো বুক জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করে থাকে। কমলা অথবা আঙ্গুর আপনার বুক জ্বালাপোড়া সৃষ্টি নাও করতে পারে। তাই খাবার খাওয়ার সময় লক্ষ্য করুন, কোন খাবারটি বুক জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করছে।  ৩। ফ্যাটি খাবার চর্বিযুক্ত :- খাবার যেমন মাখন, ঘি ওমেগা থ্রি যুক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড যুক্ত খাবার, তেলে ভাজা খাবার, এবং জাংক ফুড এই সময় এড়িয়ে চলুন। চর্বিযুক্ত খাবার বুক জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করে থাকে। ৪। চকলেট চকলেট:- আরেকটি খাবার…

উচ্চরক্তচাপ কমতে সাহায্য করে যে খাবারগুলো

যখন স্বাভাবিক চাপের হারের চেয়ে বেশি উচ্চ মাত্রায় ধমনীর মধ্য দিয়ে রক্ত প্রবাহিত হয় তখন তাকে উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন হয়েছে বলা হয়। এর ফলে ধমনী ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং স্ট্রোক ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে। এটি বেশিরভাগ পূর্ণ বয়স্ক মানুষের সাধারণ স্বাস্থ্যগত সমস্যা হলেও বছরের পর বছর তা অলক্ষেই থেকে যায়। এই অবস্থার উন্নতি করা সম্ভব ওজন নিয়ন্ত্রণে রেখে ও পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবার খেয়ে, যাতে রক্তনালী গুলো উন্মুক্ত ও প্রসারিত থাকে এবং শরীর থেকে অতিরিক্ত সোডিয়াম বাহির হয়ে যায়। যদি আপনি প্রাকৃতিক উপায়ে হাইপারটেনশনকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে চান তাহলে কিছু স্বাস্থ্যকর, সুস্বাদু ও হার্টের জন্য উপকারি বেছে নিতে পারেন। আমরা জানি উচ্চমাত্রার সম্পৃক্তচর্বি ও কোলেস্টেরল সমৃদ্ধ খাবার বর্জন করে রক্তচাপ কমানো যায়। তাজা ফলমূল, শাকসবজি, কম চর্বিযুক্ত দুধ ও দুগ্ধ জাতীয় খাবার খেলে রক্তচাপ কমে। আজ তাহলে এমন কিছু খাবারের কথাই জেনে নেই আসুন যা আপনাকে হাইপারটেনশন মুক্ত রাখতে সাহায্য করবে। 
১। কলা কলা শুধুমাত্র সুস্বাদুই নয় বরং স্ট্রোক ও হার্ট ডিজিজ হওয়ার ঝুঁকিও কমায়। কলাতে পটাসিয়াম থেকে সোডিয়াম পর্যন্ত সকল ধরণের খনিজ থ…

মাত্র তিন মিনিটে ঝকঝকে দাতের জন্য যা করতে হবে

হাসিতেই মন চুরি করে নিয়ে যায় যারা, তাঁদের অন্য যা কিছুই ম্যাজিক্যাল থাকুক না কেন, প্রাথমিক ও নূনতম শর্ত দাঁতের সৌন্দর্য-এটা আবশ্যিক। ঝকঝকে সুন্দর দাঁত আর ঠোঁটের দরজা খুলে সেই হীরের ঝলকানি সঙ্গে মিষ্টতা, ব্যস গোটা দুনিয়ার দখল হাসিতেই। কিন্তু এমনটা সবার ক্ষেত্রে হয়? হয় না।
সাদা দাঁত নিয়ে জন্ম তো হয় সবারই কিন্তু দাঁতের সৌন্দর্য ধরে রাখতে পারেন খুব কম মানুষই! অতিরিক্ত ধূমপান, ঔষধের প্রভাব, লিভারে সংক্রমণ, নানান শারীরিক ব্যাধি, পানিতে আয়রন, পরিবেশ, জিনগত সমস্যা আর নানা রকমের খাবার , এই সব কিছুর প্রভাবে সাদা দাঁতের ওপর দেখা যায় হলুদ আস্তরণ। কারো দাঁতের ফাঁকে ফাঁকে বিশ্রী দেখতে আস্তরণ, দাঁতের ওপর স্পট, সুন্দর হাসিকেই নষ্ট করে দেয়। যার ভয়ে খোলা মনের হাসি প্রাণ থেকে আসে বটে কিন্তু ঠোঁটের ব্যারিকেড থেকে আর বেরোতে পারে না।
এই সমস্যার সমাধান মাত্র ৩ মিনিটে। কীভাবে?

এক চামচ বেকিং সোডা আর তাতে লেবু এবং পানি দিয়ে ঝটপট তৈরি করে নিন একটা মিশ্রণ। ততক্ষণ পর্যন্ত ভাল করে ফেটিয়ে, যতক্ষণ না তা পেস্টের মত হচ্ছে। এরপর ব্রাশে সেই বেকিং সোডা ও লেমনের পেস্ট লাগিয়ে দাঁত মাজুন অন্তত পক্ষে এক মিনিট। তারপর কুলকুচি …

সুন্দরী নারী দেখলে মুখে লালা আসে পুরুষের

বিজ্ঞানীরা প্রতি মুহূর্তে নিত্য নতুন গবেষণা করছেন। গবেষণার ফলাফলে বেরিয়ে আসছে বিস্ময়কর সব তথ্য। এরকমই নতুন একটি গবেষণায় দেখা গেছে, সুন্দরী নারীর সাথে কথা বলার সময় পুরুষের মুখের লালাগ্রন্থিতে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটে। 
গবেষণায় পাওয়া গেছে, মেয়েদের সাথে এমনকি সামান্যতম ছলাকলা করার সময়ও ছেলেদের লালা ঝরতে শুরু করে। এবং ছেলেরা মেয়েদের যত বেশি আকৃষ্ট এবং মুগ্ধ করার চেষ্টা করে তাদের লালার পরিমাণ তত বাড়তে থাকে।  আমেরিকার শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞরা পুরুষের হরমোনের প্রতিক্রিয়ার উপরে এই পরীক্ষা করেন। এতে অংশ নেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা। তাদেরকে অল্প সময়ের জন্য তরুণ ছেলে এবং মেয়েদের সাথে কথা বলতে দেয়া হয়।  অংশগ্রহণকারীদের প্রত্যেকেই বিশ-একুশ বছর বয়সি। পরীক্ষার আগে এবং পরে তাদের লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ফলাফলে দেখা যায়, সুন্দরী মেয়েদের সাথে মাত্র ৫ মিনিট কথা বলার পরই ছেলেদের লালা ক্ষরণের মাত্রা বেড়ে যায় উল্লেখযোগ্য হারে।  কিন্তু ছেলেরা যখন অন্য ছেলেদের সাথে কথা বলে তখন লালা ক্ষরণ হয় না। শুধু তাই না, মেয়েদের সাথে কথা বলার সময় ছেলেদের যে লালা ক্ষরণ হয় তাতে প্রচুর পরিমাণ পুরুষদের যৌন হরমোন টেসটস…

পুরুষত্বহীনতা ও কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ একই! কি বলছেন গবেষকরা

পুরুষত্বহীনতা৷ যে কোন পুরুষ মানুষের কাছেই দুঃস্বপ্ন এই ব্যাধি৷ সে জন্যই পুরুষত্বহীনতার সমাধান খুঁজতে প্রতিযোগিতায় নেমেছে বিশ্বের বহু গবেষক দল৷ অবশেষে সাফল্যের দাবি করছেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বাঙালি গবেষক৷

হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের গবেষকরা অবশ্য শুরু করেছিলেন কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ চিহ্নিত করতে৷ কিন্ত্ত পাঁচ বছরের গবেষণা শেষে বেড়িয়ে আসে অন্য তথ্য৷ তাঁরা দেখেন, পুরুষত্বহীনতা এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যার পিছনে একই কারণ বিদ্যমান ৷ 'মায়োসিন ভা (মায়োসিন ভি এ)' প্রোটিন এই সমস্যার মূল কারণ৷ স্নায়ু কোষের মধ্যে অবস্থিত এই বিশেষ প্রোটিনের অভাবেই বাড়ে পৌরুষহীনতা থেকে কোষ্ঠকাঠিন্যের প্রকোপ৷

প্রাণীর শরীরে গবেষণা করে পাওয়া এই ফলাফল সম্প্রতি প্রকাশিতও হয়েছে 'প্লস ওয়ান' নামে একটি জনপ্রিয় বিজ্ঞান পত্রিকাতে৷ এই গবেষক দলের প্রধান, কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ এবং এআইএমএসের প্রাক্তন ছাত্র অরুণ চৌধুরী। তাঁর আশা এর ফলে এক ঢিলে দুই পাখি মারা সম্ভব হবে৷ অচিরেই সহজ সমাধান মিলবে এই দুই রোগের৷
সাধারনত ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীরে মাইয়োসিন ভা প্রোটিনের ঘাটতি দেখা দেয়৷ ফলে ডায়াবিটিসে আক্রান্তরা…

বৃটেনে সেনা ক্যাম্পে নারী সৈন্যকে যেভাবে ধর্ষণ করা হয়

ঘটনার দু-দশক পরেও মহিলা সৈনিকের মৃত্য-রহস্য উন্মোচন হয়নি। মেয়েকে যে সেনা ব্যারাকের মধ্যে, রেপ করে খুন করা হয়েছে, সে ব্যাপারে নিশ্চিত পরিবার। এতগুলো বছর পরেও তারা আগের সিদ্ধান্তে অটল। এরই মধ্যে তাদের আইনজীবী আবার আদালতে দাবি করেছেন, ধর্ষণ যে হয়েছিল, সে প্রমাণ তাঁরা জোগাড় করেছেন। তার ভিত্তিতে আগামী মাস থেকে নতুন করে শুনানি হতে চলেছে বিশ বছর আগের এই মামলার। ইতিমধ্যে হাইকোর্টও আগের রায় বাতিল করে, ফের তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে।

১৯৯৫-এর নভেম্বরে সারের কামবারলি ব্যারাকে রহস্য-মৃত্যু হয় প্রাইভেট শেরিল জেমসের। শেরিল তখন ১৮-র যুবতী। সদ্য সেনায় যোগ দিয়েছেন। নভেম্বরের এক রাতে মাথায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার হয়। ব্যারাকের মধ্যে ওই তরুণী নিজের রাইফেল থেকে গুলি চালিয়ে আত্মহত্যা করেছেন, নাকি তাঁকে খুন করা হয়েছে, ধোঁয়াশা সেদিন থেকেই। যদিও, আত্মহত্যা বলেই তদন্তে চালানো হয়। কিন্তু, শেরিল জেমসের পরিবার প্রথম থেকেই সেই তদন্ত রিপোর্ট মানতে অস্বীকার করে।
সেই তদন্ত রিপোর্টের বিরোধিতা কের আদালতে শেরিলের পরিবারের আইনজীবী দাবি করেন, রাতভর ধর্ষণ করে গুলি করে মারা হয় শেরিলকে। সদ্য সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়া …

হাতের পেশী কিভাবে বাড়ানো বা মোটা করা যায়?

প্রচুর ক্যালরী সমৃদ্দ খাবার গ্রহন করুন নিয়মিত। সেই সাথে হাতের ব্যায়াম করার জন্য ডাম্বেল ব্যবহার করতে পারেন। সকালে খালি পেটে কাচাছোলা খাবেন প্রতিদিন। দেহে পরিমিত খাদ্য গ্রহনের পাশাপাশি নিয়মিত বিভিন্ন ধরনের ব্যায়ামে অভ্যস্ত হওয়ার চেষ্টা করুন। ঠিকমতো ঘুম হচ্ছে কিনা সেটাও খেয়াল রাখুন।

পুষ্টিকর খাদ্য, সঠিক নিয়মে প্রতিদিন ব্যায়াম, পরিমিত ঘুম এই তিনটি বিষয় ঠিকমতো মেইনটেইন করতে পারলে দেহকে যেকোন শেপে গড়ে তোলা সম্ভব। আরো ভালো হয় কোন অভিজ্ঞ জিম ইন্সট্রাক্টর থেকে পরামর্শ নিয়ে সে মোতাবেক কাজ করলে।

সকলেই সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে চান। সুস্বাস্থ্যের ব্যাপারটা নারী পুরুষ ভেদে একটু আলাদা । এই ভিন্নতার কারন হচ্ছে সুস্বাস্থ্যের সংজ্ঞা একেক জনের কাছে এক এক রকম। মেয়েদের ক্ষেত্রে মেদহীন ছিপছিপে গড়নের দেহকে সুস্বাস্থ্য মনে করা হয়। আর পুরুষদের ক্ষেত্রে মেদহীন পেশী বহুল দেহকে সুস্বাস্থ্য হিসেবে ধরা হয়। কিন্তু প্রকৃত সুস্বাস্থ্যের অধিকারী বলতে মানসিক ও শারিরীক ভাবে রোগমুক্ত,কর্মোদ্দ্যমী, প্রচুর প্রানশক্তি সম্পন্ন ব্যাক্তিকে বুঝায়। আপনার পেশী বহুল দেহ আছে কিন্তু সে তুলনায় প্রানশক্তি বা স্ট্যামিনা, ভারসাম্যতা…

ডাক্তার সাহেব আমার লিঙ্গ শক্ত বা উত্তেজিত হচ্ছেনা ?

যৌন উত্তেজনা কালে বা যৌনতা বিষয়ক চিন্তা ভবনা করা কালে লিঙ্গ শক্ত না হওয়া সমস্যাটি অনেকেরই আছে। হতে পারে এটা তার মনের দুর্বলতা, হতে পারে এটা তার কোন শরীরিক সমস্যা। পুরুষাঙ্গ শক্ত না হওয়ার বিষয়ে আমাদের অনলাইন বাংলা পোর্টালের আজকের এই পোষ্টটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অনেকই পেনিস ঠিকমত শক্ত না হওয়ার সমস্যায় ভুগছেন। যৌনতায় লিঙ্গের শক্ততা প্রাপ্ত না হওয়া সমস্যা নিয়ে আমাদের ফেনবুক ফ্যানপেজে প্রশ্ন করেছেন যে, যৌন চিন্তা, ভাবনা বা উত্তেজনাকালে লিঙ্গ শক্ত হয় না তার কারন কি?

ডক্টরের কাছে লিঙ্গ শক্ত না হওয়া বিষয়ে করা প্রশ্নঃ: আমি কিছুদিন আগে বিয়ে করেছি। বিয়ের আগে আমি প্রায়ই হস্তমৈথুন করতাম। আগের তুলনায় আমার লিঙ্গ তেমন শক্ততা প্রাপ্ত হত না। কিন্তু দুইদিন আগে আমার লিঙ্গ সহবাসের আগে উত্তেজিত হয়ে আর শক্ত হয়না এবং স্বাভাবিক ভাবেই আছে। আমি অনেক চেষ্টা করেও পেনিস শক্ত করতে পারলাম না। আমার নববধূ আমার ঘরে কিন্তু কি করব বুঝতে পারছি না। এখন আমার আত্মহত্যা ছাড়া আর কিছুই করার নেই।
--ভিডিওতে দেখুন কি বলছেন ডাক্তার সাহেব-- ডক্টরের উত্তর: মাত্র দুদিন লিঙ্গ শক্ত হয়নি বলে কেউ অবার আত্মহত্যার কথা ভাবে নাকি? ওসব…

স্বামীর আগে স্ত্রীর বীর্যপাত ঘটানোর কার্যকর উপায় জেনে নিন

অনেক স্ত্রীর ধাতু এমন কঠিন যে, স্বামী সহবাস করে উঠে গেলেও স্ত্রীর বীর্যপাত হয় না। যদি স্বামী বীর্য আগে বের হয়ে যায়, আর স্ত্রীর বীর্যপাত হয় না, সে নারীর মনের কষ্ট ব্যক্ত করার কোনো স্থান থাকে না। স্বামির মনেও একটি আক্ষেপ থেকে যায় যে, সে তার স্ত্রীর সাথে সহবাসে পেরে উঠলো না। সহবাসের ক্ষেত্রে সে তার স্ত্রীকে কষ্ট দেওয়া ছাড়া আর কিছুই দিতে পারলো না। এরূপ আক্ষেপ সৃষ্টি হওয়াতে অনেক স্বামী ধীরে ধীররে সহবাসের সাহস হারিয়ে ফেলে, ফলে ধীরে ধীরে তার সহবাসের আগ্রহ হ্রাস পায় এবং যখনই সহবাস করতে যায়, দেখা যায় যে, তার ঐ চিন্তার কারণে বীর্যপাত পূর্বের তুলনায় আরো তাড়াতাড়ি হয়ে গেছে। এজন্য স্বামীকে স্ত্রীর বীর্যপাত তার থেকে দ্রুত ঘটাতে নিম্মোক্ত তদবীর গ্রহণ করতে হবে। এতে সে তার স্ত্রীর সাথে সহবাসে জয়ী হতে পারবে।

দ্রুত বীর্যপাতের সমাধান
১. বিশুদ্ধহিং আধা তোলা, চামিলির তেলসহ কোনো পাত্রে গরম করে একটু গাঢ় করবে। সহবাস করার পূর্বে ঐ তেল পুরুষাঙ্গে মালিশ করে সহবাস করবে। এর দ্বারা স্বামীর আগেই স্ত্রীর বীর্যপাত হবে এবং স্ত্রীর মনে অধিক আনন্দ জম্মাবে। এমনকি সহবাসের সময় উভয়ে আত্মহারা হবে।
২. চৌকিয়া সোহাগা ও আরবী গদ, এ…

খুব সহজে প্রাকৃতিক উপায়ে মশার হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়!

এখন এমন একটা আবহাওয়া, কখনও বৃষ্টি কখনও গরম। এই সময়টা গরমের প্রভাব অতিরিক্ত হয়ে থাকে। গরম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে মশার অত্যাচার। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নতুন আতংক জিকা ভাইরাস। মঙ্গলবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় চট্টগ্রামে ৬৫ বছর বয়সি এক ব্যক্তি জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার বিষয় নিশ্চিত করেছে।

মশা তাড়াতে স্প্রে, মশার কয়েল কোন কিছুতেই যেন কাজ হয় না। মশার অত্যাচারে কোন কাজে মন দেওয়া যায়না। কিন্তু আপনি কি জানেন খুব সহজে এই মশার যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

জেনে নিনি খুব সহজে প্রাকৃতিক উপায়ে মশার হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়-

লেবু ও লবঙ্গের ব্যবহারঃ
একটি গোটা লেবু খণ্ড করে কেটে নিন। এরপর কাটা লেবুর ভেতরের অংশে কয়েকটি লবঙ্গ গেঁথে দিন। লেবুর মধ্যে লবঙ্গের পুরোটা ঢুকাবেন শুধুমাত্র লবঙ্গের মাথার দিকের অংশ বাইরে থাকবে। এরপর লেবুর টুকরাগুলো একটি প্লেটে করে ঘরের কোণায় রেখে দিন। ব্যস, এতে বেশ কয়েকদিন মশার উপদ্রব থেকে মুক্ত থাকতে পারবেন। এই পদ্ধতিতে ঘরের মশা একেবারেই দূর হয়ে যাবে। আপনি চাইলে লেবুতে লবঙ্গ গেঁথে জানালার গ্রিলেও রাখতে পারেন। এতে করে মশা ঘরেই ঢুকবে না।
কর্পূরের ব্যবহারঃ মশা কর্পূরের গন্ধ এ…

মাত্র এক দিনেই কাশি সারাবে পেঁয়াজ দেখুন ব্যবহার পদ্ধতি

মাত্র একদিনেই কাশি সারিয়ে তোলা সম্ভব পেঁয়াজ ব্যবহার করে। সর্দিতেও পেঁয়াজ ব্যবহার করে ভালো ফল পাওয়া যায়। সবচেয়ে ভালো ফল পাওয়া যায় কাঁচা ব্যবহারে। গবেষকরা জানান, পেঁয়াজের মধ্যে সালফার ও ফ্লাভোনয়েড নামক উপাদান থাকে।

এসব উপাদান হৃদরোগে ভালো ফল দেয়। এ ছাড়া বাতরোগ উপশম এবং ডায়াবেটিস ও কোলেস্টেরলের মাত্রা ঠিক রাখতেও এসব উপাদান ভূমিকা রাখে। এ ছাড়া রোগ প্রতিরোধেও পেঁয়াজ কার্যকর।

১.উপাদান :
এক কেজি পেঁয়াজতিন লিটার পানিতৈরির পদ্ধতি পেঁয়াজের ওপরের খোলস ও দুই পাশ পরিষ্কার করুন। প্রতিটি পেঁয়াজ চার টুকরো করুন। কাটা পেঁয়াজ একটি পাত্রের মধ্যে নিয়ে তিন লিটার পানি দিন। পাত্রটি চুলায় নিয়ে উত্তপ্ত করুন।
পানি অর্ধেক না হওয়া পর্যন্ত জ্বাল দিতে থাকুন। আগুন থেকে নামিয়ে মিশ্রণটি ঠান্ডা হতে দিন। কয়েকবার নেড়ে দিন। স্বাদের জন্য এর মধ্যে মধু বা লেবুর রস দেওয়া যেতে পারে।

ব্যবহারবিধি – দিনে দুবার দেড় গ্লাস করে পান করুন।

২. উপাদান –  দুটি মাঝারি আকৃতির অর্গানিক আপেল দুটি মাঝারি আকৃতির পেঁয়াজ১৪টি আখরোট (বাদাম)
প্রস্তুত প্রণালি –
পেঁয়াজ ধুয়ে পরিষ্কার করুন। প্রতিটি পেঁয়াজ চার টুকরোয় ভাগ করুন। আপেলও ধুয়ে চার টুকরোয় ভাগ করুন। আখ…

চরম আদরে মহিলাদের চাহিদা কতটা সময়, জানেন?

সঙ্গিনীকে উত্‍‌সাহিত করার জন্য যদি আপনি বলে থাকেন, তাঁকে আপনি সারারাত শারীরিক সুখ দেবেন। অথবা রাতভর যৌনমিলনে মেতে থাকবেন। তাহলে আপনি প্রথমেই মস্ত বড় ভুল করলেন। এতে আপনার সঙ্গিনী উত্‍‌সাহ পাওয়া তো দূর-অস্ত, শুরুতেই ভয় পেয়ে যাবেন। এবং আপনাকে এড়িয়ে যাবেন তিনি। আমরা নয়, বলছে সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষা। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, দীর্ঘক্ষণ উদ্দাম যৌনমিলন মহিলাদের একেবারেই না-পসন্দ।

উত্তর আমেরিকায় তাবড় সেক্স থেরাপিস্টরা সম্প্রতি একটি সমীক্ষা করেন মহিলাদের যৌনইচ্ছের উপরে। সমীক্ষার রেজাল্টে দেখা গিয়েছে, দীর্ঘক্ষণ ধরে শারীরিক মিলন একেবারেই পছন্দ করেন না একটা বড় অংশের মহিলা। বিশেষ করে, কোনও পুরুষ সঙ্গী যদি এহেন প্রস্তাব দিয়েও থাকেন, তাহলে তাঁরা সেই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করেন। না-হলে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিছু নির্দিষ্ট সময়ের জন্য মিলনই পছন্দ করেন তাঁরা।
শারীরিক মিলনের সময়কে ৪ ভাগে ভাগ করেছেন চিকিত্‍‌সা বিজ্ঞানীরা। তাতে বলা হয়েছে, ১ থেকে ২ মিনিট যৌনমিলন খুবই অল্প সময়ের, ৩ থেকে ৭ মিনিট মিলন পর্যাপ্ত, ৭ থেকে ১৩ মিনিট আকাঙ্খিত ও ১০ থেকে ৩০ মিনিট পর্যন্ত মিলন অতিরিক্ত।

গবেষক দলের প্রধ…

জিনস পড়ছেন ? জানেন কি - লো ওয়েস্ট জিনস মারাত্মক ক্ষতি করছে আপনার

লো-ওয়েস্ট জিনস্ পরা ইদানীং একটি ফ্যাশন। রাস্তাঘাটে এমন বহু মেয়েকে দেখা যায়। কিন্তু এই জিনস্ থেকে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে জানেন কি? লো-ওয়েস্ট জিনস্ এখন ফ্যাশনে ইন-থিং। শুধু অল্পবয়সীরা নয়, মাঝবয়সী মহিলারাও পরেন লো-ওয়েস্ট। আর পরবেন না-ই বা কেন? পোশাক তো পরার জন্যেই! কিন্তু এই জিনস্ থেকে কী কী মারাত্মক বিপদ হতে পারে তা জানলে আর হয়তো মহিলাদের পরতে ইচ্ছে করবে না। কী কী? দেখে নিন—

অত্যন্ত টাইট, স্কিনি লো-ওয়েস্ট জিনস্ পরলে তা স্নায়ু বিকল করে দিতে পারে। গত বছর এমন জিনস্ পরার চোটে এক অস্ট্রেলীয় মহিলার পা অবশ হয়ে যায়। প্রায় অজ্ঞান অবস্থায় তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। কাঁচি দিয়ে সেখানে জিনস্ কেটে ফেলতে হয়।

দীর্ঘক্ষণ পরে থাকলে যৌনাঙ্গের উপর চাপ সৃষ্টি করে। বিশেষ করে যদি বসার জন্য এমন কোনও চেয়ার না থাকে যার পিঠটি ঢাকা তবে তো মহাবিপদ। বসলে লো-ওয়েস্ট জিনস্ আরও একটু নেমে যায় ফলে শরীরের গোপন অংশ লোকের নজরে পড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই পিঠ ফাঁকা বা কোমরের কাছটি ফাঁকা এমন চেয়ারে বসতে গেলে মেয়েদের একটি বিশেষ ভঙ্গিতে বসতে হয় এই জিনস্ পরে। ভাবুন তো, ক্লাসরুমে বা অফিসে এইভাবে চার-পাঁচ ঘণ্টা বসে থাকলে যৌনাঙ্…

পুরুষদের জন্যও আসছে জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি

পুরুষদের জন্য জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি তৈরিতে সাফল্যের খুব কাছাকাছি পৌঁছেছেন বিজ্ঞানীরা। নিরাপদ যৌন-জীবনের জন্য পুরুষদের কনডম ব্যবহারের পক্ষে ব্যাপক প্রচারণা থাকলেও অনেক পুরুষই এতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না। এমন পুরুষদের জন্য একটা বিকল্প বের করার উপায় খোঁজা হচ্ছিল অনেকদিন থেকেই। সেই বিকল্প তৈরিতে সাফল্যের মুখ দেখতে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। ব্রিটিশ গণমাধ্যম ইন্ডিপেন্ডেন্ট জানিয়েছে, নারীদের জন্য জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি উদ্ভাবনের ৫০ বছর পেরিয়ে গেলেও পুরুষদের জন্য এখনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া-বিহীন কোনো বড়ি আবিষ্কার করতে পারেনি গবেষকরা। তবে এ ব্যাপারে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা। 
রোববার যুক্তরাষ্ট্রের ‘আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটি’র বাৎসরিক সম্মেলনে এ তথ্য জানান মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা। এর আগেও পুরুষদের জন্য জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি তৈরি করেছিলেন তারা। তবে বড় ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকায় সেটা ব্যবহারযোগ্য হয়নি।  এবার আগেরটিতেই সামান্য পরিবর্তন এনে পুরুষদের জন্য কার্যকর, দীর্ঘস্থায়ী এবং উল্লেখযোগ্য কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ামুক্ত জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি তৈরি করতে যাচ্ছেন তারা। এর সেবন পদ্ধতি ব্…

মুখের দুর্গন্ধ দূর করাসহ লেবুর খোসার রয়েছে আরো অজানা গুন

লেবুর রয়েছে নানা স্বাস্থ্য উপকারিতা। শুধু লেবুতেই নয়, লেবুর খোসাতেও রয়েছে নানারকম উপকারিতা। খাওয়া শেষে ফেলে না দিয়ে বিভিন্ন কাজে লাগানো যেতে পারে এটি। উপায় জানা নেই? চলুন জেনে নিই এটি ব্যবহারের উপায় ও উপকারিতা- 
১. মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে জুড়ি নেই লেবু বা কমলার খোসার। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এবং কিছুক্ষণ পরপর সারাদিন লেবু বা কমলার খোসা চিবাতে পারেন। এতে যেমন আপনার মাড়ি ভালো থাকবে তেমনি নিঃশ্বাসে থাকবে প্রাকৃতিক সজীবতা।  ২. চিকেন রোস্ট রান্নার সময় খাবারে লেবুর সুঘ্রাণ পেতে দুই-এক টুকরো লেবুর খোসা দিতে পারেন। সুঘ্রাণের পাশাপাশি খাবারও হবে সুস্বাদু।  ৩. রান্নাঘরের চিনির কৌটায় রেখে দিতে পারেন এক টুকরো লেবুর খোসা। এর ফলে চিনি থাকবে একেবারে ঝরঝরে।  ৪. আলমারি বা ওয়ারড্রবকে কীটপতঙ্গ থেকে মুক্ত রাখতেও লেবুর খোসার জুড়ি নেই। লেবুর শুকনো খোসা শুকিয়ে একটি ছোটো পলিপ্যাকে নিয়ে মোজা কিংবা অন্তর্বাসের ড্রয়ারে রেখে দিন। দুর্গন্ধ তো দূর হবেই, সাথে সাথে আপনার পোশাক হবে দারুণ সুরভিত।  ৫. জমে থাকা চা কিংবা কফির পট পরিষ্কার করতে পারেন লেবুর খোসা দিয়ে। এক্ষেত্রে কেটলিতে পানি নিয়ে লেবুর খোসা দিয়ে কিছুক্ষণ স…