সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

বিয়ের আনন্দে বিষাদের ছায়া, মন খারাপ মাহির স্বামী অপুর!

নানা জল্পনা-কল্পনার পর অবশেষে সবাইকে চমকে দিয়ে হঠাৎ বিয়ে করেছেন ঢাকাই ছবির জনপ্রিয় নায়িকা মাহিয়া মাহি। বিয়ের ঠিক একদিন পর স্বামী পারভেজ মাহমুদ অপুকে নিয়ে ঢালিউডের টপ মোস্ট নায়িকা মাহিয়া মাহি প্রকাশ্যে আসেন। গত বুধবার সন্ধ্যায় উত্তরার একটি রেস্টুরেন্টে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা এবং বরের সঙ্গে মিডিয়াকর্মীদের সঙ্গে পরিচয় করান ‘অগ্নিকন্যা’ মাহি।

মাহির বর সিলেটের কদমতলি এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী মাহমুদ পারভেজ অপু। বিয়ের পর প্রথমবারের মতো গত শুক্রবার দুপুরে শ্বশুর বাড়িতে পৌঁছেছেন মাহি। এর আগে গত মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় গায়ে হদুল অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। পরদিন বুধবার সিলেটি ছেলে অপুর সঙ্গে বিয়ের পিড়িতে বসেন মাহি।
ঐ পর্যন্ত সব কিছু ঠিকঠাকই ছিল। কিন্ত আনন্দে বিষাদের ছায়া নেমে আসে তখনই যখন মাহিকে স্ত্রী হিসাবে দাবি করেন তারই বন্ধু শাহরিয়ার শাওন। শুধু তাই নয়, মাহির সঙ্গে শাহরিয়ার শাওনের বেশ কিছু অন্তরঙ্গ ছবিও শাওন ফেসবুকে ছেড়ে দেয়। এসব ছবি ছড়িয়ে পরার পর পারভেজ অনেকটা আড়ালে চলে গেছেন। তার মন-মেজাজ খারাপ। মাহির সঙ্গে শাহরিয়ার শাওনের বিয়ের দাবির বিষয়টি পারভেজ মেনে নিতে পারছে না।

এ ব্যাপারে পারভেজের প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তাকে ফোন করা হলেও পাওয়া যায়নি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পারভেজ গণমাধ্যমকে এড়িয়ে চলছেন। মহিকে স্ত্রী হিসাবে শাওনের দাবি করা, শাওনের বিরুদ্ধে মাহির মামলা দায়ের, শাওন-মাহির আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পাড়ার পর থেকেই সে বন্ধুদেরও এড়িয়ে চলছেন। পুরো ঘটনায় পারভেজ বিরক্ত ও বিব্রত। এ ঘটনায় মাহিও বিরক্ত।

এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে মিডিয়াপাড়া সহ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে প্রকাশিত নায়িকা মাহির ‘পুরোনো বিয়ের কয়েকটি ছবি নিয়ে আলোচনা চলতে থাকে তুমুলে। রীতিমতো ভাইরাল হয়ে ওঠা এসব ছবি দেখে সমালোচনার ঝড় ছিলো ফিল্মি পাড়া সহ প্রায় সবক্ষেত্রেই। কেউ কেউ দাবি করেন যে, এগুলো ছিল মাহির বিয়ের ছবি।

তবে সবার প্রত্যাশা আর বিভ্রান্তি কাটাতে অবশেষে এই ঘটনা প্রসঙ্গে কথা বলেছিলেন মাহি। গত শনিবার একটি জাতীয় দৈনিকের কাছে দেয়া সাক্ষাতকারে ছবিগুলোকে ”ফেক” বলে দাবি করলেন তিনি। মাহি বলেন, “ফেসবুকে যে ছবিগুলো প্রকাশিত হয়েছে, সেগুলো ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্য প্রণোদিত। মূলত এগুলো ছিল আমার একটি শ্যুটিংকালীন ছবির দৃশ্য। আর শাওন ওই সময় মজা করে আমার সঙ্গে এসব ছবি ক্যামেরাবন্দি করে। কিন্তু মানুষ ভুল বুঝে আমার সম্পর্কে নানা মন্তব্য ছুঁড়ছেন। তাদেরকে আশ্বস্ত করতে চাই ছবিগুলো সম্পূর্ণ ফেক। এছাড়া এ বিষয় নিয়ে নতুন করে ঘাটাঘাটি করতে চাই না।” পাশাপাশি এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ারও ঘোষণা দেন তিনি। এতে স্বস্তি ফিরে আসে চলচ্চিত্রাঙ্গন ও মাহি ভক্তদের মনে।

অবশেষে জানা গেল, এ ঘটনায় মাহির কথিত স্বামী শাওনের নামে মামলা করেছেন মাহি। সেই প্রেক্ষিতে রোববার (২৯ মে) শাওনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তাকে ২ দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। গত কাল তার রিমান্ড শেষ হয়। দুদিনের রিমান্ড শেষে শাওনকে যখন আদালতে হাজির করা হয় তখনই মাহির সঙ্গে বিয়ের প্রমাণপত্র হিসাবে কাবিননামা আদালতে উপস্থাপন করেন।

রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে শাওন জানিয়েছেন, ২০১৫ সালে বাড্ডার কাজী অফিসে তারা বিয়ে করেন। উত্তরা মডেল স্কুল এন্ড কলেজে একই ক্লাসের শিক্ষার্থী ছিলেন শাওন ও মাহী। ঐ সূত্র ধরে তাদের মধ্যে স্কুল জীবন থেকে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দুই বছর আগে তারা বিয়ে করেন। বিয়ের কাগজপত্রও জিজ্ঞাসাবাদে ডিবির তদন্তকারী টিমের কাছে উপস্থাপন করেছেন শাওন।

গ্রেফতারকৃত শাওনের বাবার নাম নজরুল ইসলাম। তিনি গুলশানের একজন ব্যবসায়ী। শাওন স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে ফিল্ম এন্ড মিডিয়া বিভাগে প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।
ডিবি দক্ষিণ বাড্ডার বাসা থেকে শাওনের কম্পিউটার জব্দ করেছে। একজন ডিবির কর্মকর্তা জানান, শাওনের কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক থেকে মাহী ও শাওনের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ফুটেজ জব্দ করা হয়েছে। শাওন স্বীকার করেছেন যে তিনিই মাহীর সঙ্গে তার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি ফেসবুকে আপলোড করেছেন। মাহীর অনুমতি নিয়েই তিনি এসব ছবি আপলোড করেন। তথ্যসূত্র: সময়ের কন্ঠসর

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

নিয়মিত ঘৃতকুমারী রস পানের ৭টি বিস্ময়কর উপকারিতা

অ্যালোভেরা বা ঘৃতকুমারী অতি পরিচিত একটি উদ্ভিদের নাম। বহুগুণে গুণান্বিত এই উদ্ভিদের ভেষজ গুণের শেষ নেই। এতে আছে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, আয়রন, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, জিঙ্ক, ফলিকঅ্যাসিড, অ্যামিনো অ্যাসিড ও ভিটামিনএ, বি৬,বি২ ইত্যাদি। অ্যালোভেরার জেল রুপচর্চা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য রক্ষায় ব্যবহার হয়ে আসছে। অনেকেই অ্যালোভেরা জুস পান করে থাকেন। আপনি জানেন কি প্রতিদিন অ্যালোভেরা জুস পান করার উপকারিতা?

১। হার্ট সুস্থ রাখতে :- আপনার হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে অ্যালোভেরা জুস। অ্যালোভেরা কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে দেয়। এটি দূষিত রক্ত দেহ থেকে বের করে রক্ত কণিকা বৃদ্ধি করে থাকে। এটি দীর্ঘদিন আপনার হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে থাকে।

২। মাংসপেশী ও জয়েন্টের ব্যথা প্রতিরোধ :- অ্যালোভেরা মাংসপেশীর ব্যথা কমাতে সাহায্য করে থাকে। এমনকি ব্যথার স্থানে অ্যালোভেরা জেলের ক্রিম লাগালে ব্যথা কমে যায়।

৩। দাঁতের যত্নে :- অ্যালোভেরা জুস দাঁত এবং মাড়ির ব্যথা উপশম করে থাকে। এতে কোন ইনফেকশন থাকলে তাও দূর করে দেয়। নিয়মিত অ্যালোভেরা জুস খাওয়ার ফলে দাঁত ক্ষয় প্রতিরোধ করা সম্ভব। ৪। ওজন হ্রাস করতে :- ওজন কমাতে অ…

দ্রুত ওজন কমাতে চান? সকালের চায়ের কাপে মিশিয়ে নিন শুধু এই তিনটি ঘরোয়া জিনিস…

জিমে গিয়ে কষ্টকর এক্সারসাইজ বা ডায়েটিং পছন্দ নয় অনেকেরই। তাঁরা চান ওজন কমানোর কোনও সহজতর প্রাকৃতিক পন্থা অবলম্বন করতে। এরকম মানুষের জন্য রইল ওজন কমানোর এক অতি সহজ উপায়ের হদিশ।

মোটা হয়ে যাওয়ার সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। দ্রুত ওজনও কমাতে চান তাঁরা। কিন্তু জিমে গিয়ে কষ্টকর এক্সারসাইজ বা ডায়েটিং পছন্দ নয় অনেকেরই। তাঁরা চান ওজন কমানোর কোনও সহজতর প্রাকৃতিক পন্থা অবলম্বন করতে। এরকম মানুষের জন্য রইল ওজন কমানোর এক অতি সহজ উপায়ের হদিশ।
আপনাকে যা করতে হবে তা হল, প্রথমেই এই তিনটি ঘরোয়া উপাদান মিশিয়ে তৈরি করে নিতে হবে একটি

মিশ্রণ—১ চা চামচ দারুচিনি,১/২ কাপ কাঁচা মধু,৩/৪ কাপ নারকোল তেল। তারপর এক চা চামচ পরিমাণ এই মিশ্রণ মিশিয়ে নিন সকালের গরম চায়ের কাপে। এবার পান করুন সেই চা। ব্যস্, ওজন কমানোর জন্য এইটুকুই যথেষ্ট।

অবিশ্বাস্য লাগছে? তাহলে জেনে রাখুন, ওজন কমানোর এই প্রাকৃতিক অভ্যাসে সায় রয়েছে ডাক্তারদেরও। দারুচিনি শরীরে শর্করা থেকে কর্মক্ষমতা সঞ্চয়ের প্রক্রিয়াকে তরান্বিত করে। কাঁচা মধু উপকারী কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। আর নারকেল তেল বাড়ায় শরীরের মেটাবলিজম। পরিণামে শরীরে মেদ ঝরে গিয়ে হ্রাস পায় ওজন।

কী ভা…

পুরুষত্বহীনতা, অকাল বীর্যপাত ও লিঙ্গ উথান সমস্যা দূর করে সুস্থ যৌনজীবন দেয় জাফরান৷

জাফরানের ২০টি ঔষধি গুন বিশ্বের সবচেয়ে দামী মশলা জাফরান। স্যাফরন বা কেশর নামেও এটি পরিচিত৷ এই মশলা নামীদামী অনেক খাবারে ব্যবহৃত হয়। খাবারের স্বাদ, ঘ্রাণ, রঙ বাড়িয়ে তুলতে এই ‘গোল্ডেন স্পাইস’ এর জুড়ি নেই। তবে জাফরানের কাজ শুধু এরমধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। জাফরানের মধ্যে রয়েছে অসাধারণ ঔষধিগুণ। জাফরানে রয়েছে বিস্ময়কর রোগ নিরাময় ক্ষমতা৷মাত্র ১ চিমটে জাফরান আপনাকে প্রায় ২০ টি শারীরিক সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। ১. জাফরানে রয়েছে পটাশিয়াম যা উচ্চ রক্ত চাপ ও হৃদপিণ্ডের সমস্যা জনিতরোগ দূর করে।
২. হজমে সমস্যা এবং হজম সংক্রান্ত যে কোনও ধরনের সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে জাফরান।
৩. জাফরানের পটাশিয়াম আমাদের দেহে নতুন কোষ গঠন এবং ক্ষতিগ্রস্থ কোষ সারিয়ে তুলতে সহায়তা করে।
৪. জাফরানের নানা উপাদান আমাদের মস্তিষ্ককে রিলাক্স করতে সহায়তা করে, এতে করে মানসিক চাপ ও বিষণ্ণতা জনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়৷
৫. মেয়েদের মাসিকের অস্বস্তিকর ব্যথা এবং মাসিক শুরুর আগের অস্বস্তি দূর করতে জাফরানের জুড়ি নেই।
৬. নিয়মিত জাফরান সেবনে শ্বাস প্রশ্বাসের নানা ধরণের সমস্যা যেমন অ্যাজমা,পারটুসিস, কাশি এবং বসে যাওয়া কফ দূর করতে…