সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

মুসলিম বিজ্ঞানীদের থেকে চুরি করে বিধর্মীদের কথিত বিজ্ঞানীরা আজ বিজ্ঞানী হিসেবে পরিচিত

গত কয়েকদিন যাবত বিজ্ঞানীদের নোবেল প্রাইজ দেওয়া চলছে। ইউরোপ-আমেরিকা মানুষ বিজ্ঞান চর্চায় এগিযে যাচ্ছে, এই নোবেল প্রাইজ যেন সেই কথাই প্রকাশ করতে চায়। আমার গত পোস্টে লিখেছি, পীযূষ বন্দোপাধ্যায় তার কবিতায় বলেছে- ‘হে পশ্চাৎপদ মোল্লা মৌলভী তোরা কবে হবি বিজ্ঞানমুখী’ ?

কি সুন্দর কথা। মোল্লা-মৌলভীদের বিজ্ঞানমুখী হতে বলে। অথচ ইতিহাস সাক্ষী দেয়, ইউরোপে যে বিজ্ঞান চর্চা হয়েছিলো তার শুরু ছিলো ১৭শ’ শতাব্দী থেকে। ১৭শ’ শতাব্দীর পূর্বে পশ্চিমাদের মধ্যে তেমন বিজ্ঞানীর অস্তিত্ব পাওয়া যায় না। এ জন্য তারা দাবি করে, ১৭’ শতাব্দী থেকে নাকি আধুনিক বিজ্ঞানের সূচনা ! উইলিয়াম গিলবার্ট, কেপলার, গ্যালিলিও, স্নেল, বাইসেল প্যাসকেল, রবার্ট বয়েল, রবার্ট হুক, আইজাক নিউটন সবাই যেন ১৭শ’ শতাব্দীতে এসে হঠাৎ করে টপ টপ করে পড়া শুরু করে। রহস্যটা কি ?
অথচ মুসলিম বিজ্ঞানীদের সময়টা দেখুন-
  • মুসা আল খোয়ারিজমি (৭৮০-৮৫০)
  • জাবির ইবনে হাইয়ান (৭২২-৮০৪)
  • আব্বাস ইবনে ফিরনাস (৮১০-৮৮৭)
  • আল বিরুনি (৯৭৩- ১০৪৮)
  • আবু নাসের আল ফারাবি (৮৭২-৯৫০)
  • আল বাত্তানি (৮৫৮ – ৯২৯)
  • ইবনে সিনা (৮৯০ – ১০৩৭)
  • ইবনে বতুতা (১৩০৪-১৩৬৯)
  • ওমর খৈয়াম (১০৪৮ – ১১৩১)
  • ইবনে কুরা (৮২৬- ৯০১)
  • আবু বরক আল রাজী (৮৬৫ –৯২৫)
  • আল কিন্দি (৮০১-৮৭৩)
  • ইবনে আল হাইথাম (৯৬৫ – ১০৪০)
  • ইবনে যুহর (১০৯১ – ১১৬১)
  • ইবনে খালদুন (১৩৩২ – ১৪০৬)
  • ইবনে আল বাইতর (১১৯৭ – ১২৪৮)
  • ইবনে রুশদ (১১২৬– ১১৯৮)
তারমানে মুসলমানরা যখন জ্ঞান-বিজ্ঞানের শীর্ষে, তখন ইউরোপ অজ্ঞতার গাঢ় অন্ধকারে। কিন্তু কিভাবে পেলো ইউরোপীয়রা সেই জ্ঞান বিজ্ঞানের ছোয়া, আসুন দেখি-

১) বাগদাদ পতন : ১২৫৮ সালে হালাগু খান মুসলিম জ্ঞান বিজ্ঞানের কেন্দ্রবিন্দু বাগদাদ নগরীতে ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। ধ্বংস করে মুসলিম জ্ঞান বিজ্ঞানের কেন্দ্র বাইতুল হিকমাহ লাইব্রেরী। এই লাইব্রেরী থেতে মুসলমানদের অনেক জ্ঞান-বিজ্ঞান গবেষণা চুরি যায়, যা পরবর্তীতে ইহুদী ও খ্রিষ্টান জাতি করাত্বয় করতে সক্ষম হয়।

২) স্পেন পতন : ১৪৯২ সালে পতন হয় স্পেন। এ সময় স্পেন ছিলো মুসলিম সভ্যতার অন্যতম প্রাণকেন্দ্র, যেখানে বিশাল লাইব্রেরীতে সংরক্ষিত ছিলো মুসলিম বিজ্ঞানীদের গবেষণাধর্মী বইসমূহ। স্পেন দখলের পর খ্রিস্টানরা স্পেনের লাইব্রেরীগুলো দখল করে, তারা অনেক বই সরিয়ে ফেলে, অনেক বই নদীতে ফেলে দেয়, আবার অনেকগুলো আগুনে ধ্বংস করে ফেলে।

১৫শ’ শতাব্দীতে (প্রায় ১৬শ’ শতাব্দী) মুসলিম বিজ্ঞানীদের থেকে চুরি করা বইগুলো নিয়েই ১৭শ’ শতাব্দীতে ইউরোপীয়দের মধ্যে জ্ঞান বিজ্ঞানের সূচনা ঘটে, যাকে তারা নাম দিয়েছিলো ১৭শ’ শতাব্দীর আধুনিক বিজ্ঞানের সূচনা। মুসলমানদের বইগুলো তারা অনুবাদ করে প্রকাশ করতো এবং সাজতো চাইতো বড় বিজ্ঞানী।
তবে মুসলিমদের লিখিত বই সমূহ অধিকাংশ ছিলো আরবী ভাষায়, খ্রিস্টানরা আরবী খুব একটা বুঝতো না, কিন্তু ইহুদীরা বুঝতো। তাই খ্রিস্টানরা মুসলমানদের বইগুলো ইহুদীদের কাছে দিয়েছিলো অনুবাদের জন্য। ইহুদীরা ছিলো ধূর্ত। তারা বলতো- ‘একটা একটা বই দিলে হবে না, সব দাও, আমরা ধারাবাহিকভাবে অনুবাদ করে দিবো’। ইহুদীদের এ কথা শুনে খ্রিস্টানরা তাদেরকে অধিকাংশ বই দেয়, যেখান থেকে ইহুদীরা বেশিরভাগ গুরুত্বপূর্ণ গবেষণা নিজেদের কাছে রেখে দেয়। এই কারণে ইহুদীদের মধ্যে বেশিরভাগ কথিত বিজ্ঞানীর দেখা মিলে।

লেখার শুরুর অংশ, মানে ‘নোবেল পুরষ্কার’ দিয়ে আমার লেখা শেষ করছি। নোবেল পুরষ্কার কে পেলো আর কে না পেলো সেটা নিয়ে গর্ব করার কিছু নেই । কারণ নোবেল পুরষ্কার পেলেই কেউ বড় হয় না, আবার না পেলেও কেউ ছোট হয় না। দ্বিতীয় হিটলার হিসেবে কুখ্যাত ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী মোনাচেম বেগিন কিংবা কসাই শিমন পেরেজ শান্তিতে নোবেল পেয়েছিলো, বারাক ওবামা ইরাকে মুসলিম গণহত্যা দীর্ঘায়িত করে শান্তিতে নোবেল পেয়েছিলো। নোবেলের শান্তিতেই যখন এত অশান্তি, তখন বাকিটার অবস্থা কি, আপনরাই বলুন ?

ছবি: মুসলিমদের মধ্যে আবির্ভাব হওয়া শীর্ষ বিজ্ঞানীদের তালিকা, যারা প্রায় সবাই ১৭শ’ শতাব্দীর আগে এসেছে।
 
ছবিঃ অমুসলিমদের মধ্যে আবির্ভাব হওয়া শীর্ষ বিজ্ঞীনের তালিকা, যারা প্রায় সবাই ১৭শ’ শতাব্দীর পরে এসেছে।

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

নিয়মিত ঘৃতকুমারী রস পানের ৭টি বিস্ময়কর উপকারিতা

অ্যালোভেরা বা ঘৃতকুমারী অতি পরিচিত একটি উদ্ভিদের নাম। বহুগুণে গুণান্বিত এই উদ্ভিদের ভেষজ গুণের শেষ নেই। এতে আছে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, আয়রন, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, জিঙ্ক, ফলিকঅ্যাসিড, অ্যামিনো অ্যাসিড ও ভিটামিনএ, বি৬,বি২ ইত্যাদি। অ্যালোভেরার জেল রুপচর্চা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য রক্ষায় ব্যবহার হয়ে আসছে। অনেকেই অ্যালোভেরা জুস পান করে থাকেন। আপনি জানেন কি প্রতিদিন অ্যালোভেরা জুস পান করার উপকারিতা?

১। হার্ট সুস্থ রাখতে :- আপনার হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে অ্যালোভেরা জুস। অ্যালোভেরা কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে দেয়। এটি দূষিত রক্ত দেহ থেকে বের করে রক্ত কণিকা বৃদ্ধি করে থাকে। এটি দীর্ঘদিন আপনার হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে থাকে।

২। মাংসপেশী ও জয়েন্টের ব্যথা প্রতিরোধ :- অ্যালোভেরা মাংসপেশীর ব্যথা কমাতে সাহায্য করে থাকে। এমনকি ব্যথার স্থানে অ্যালোভেরা জেলের ক্রিম লাগালে ব্যথা কমে যায়।

৩। দাঁতের যত্নে :- অ্যালোভেরা জুস দাঁত এবং মাড়ির ব্যথা উপশম করে থাকে। এতে কোন ইনফেকশন থাকলে তাও দূর করে দেয়। নিয়মিত অ্যালোভেরা জুস খাওয়ার ফলে দাঁত ক্ষয় প্রতিরোধ করা সম্ভব। ৪। ওজন হ্রাস করতে :- ওজন কমাতে অ…

দ্রুত ওজন কমাতে চান? সকালের চায়ের কাপে মিশিয়ে নিন শুধু এই তিনটি ঘরোয়া জিনিস…

জিমে গিয়ে কষ্টকর এক্সারসাইজ বা ডায়েটিং পছন্দ নয় অনেকেরই। তাঁরা চান ওজন কমানোর কোনও সহজতর প্রাকৃতিক পন্থা অবলম্বন করতে। এরকম মানুষের জন্য রইল ওজন কমানোর এক অতি সহজ উপায়ের হদিশ।

মোটা হয়ে যাওয়ার সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। দ্রুত ওজনও কমাতে চান তাঁরা। কিন্তু জিমে গিয়ে কষ্টকর এক্সারসাইজ বা ডায়েটিং পছন্দ নয় অনেকেরই। তাঁরা চান ওজন কমানোর কোনও সহজতর প্রাকৃতিক পন্থা অবলম্বন করতে। এরকম মানুষের জন্য রইল ওজন কমানোর এক অতি সহজ উপায়ের হদিশ।
আপনাকে যা করতে হবে তা হল, প্রথমেই এই তিনটি ঘরোয়া উপাদান মিশিয়ে তৈরি করে নিতে হবে একটি

মিশ্রণ—১ চা চামচ দারুচিনি,১/২ কাপ কাঁচা মধু,৩/৪ কাপ নারকোল তেল। তারপর এক চা চামচ পরিমাণ এই মিশ্রণ মিশিয়ে নিন সকালের গরম চায়ের কাপে। এবার পান করুন সেই চা। ব্যস্, ওজন কমানোর জন্য এইটুকুই যথেষ্ট।

অবিশ্বাস্য লাগছে? তাহলে জেনে রাখুন, ওজন কমানোর এই প্রাকৃতিক অভ্যাসে সায় রয়েছে ডাক্তারদেরও। দারুচিনি শরীরে শর্করা থেকে কর্মক্ষমতা সঞ্চয়ের প্রক্রিয়াকে তরান্বিত করে। কাঁচা মধু উপকারী কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। আর নারকেল তেল বাড়ায় শরীরের মেটাবলিজম। পরিণামে শরীরে মেদ ঝরে গিয়ে হ্রাস পায় ওজন।

কী ভা…

পুরুষত্বহীনতা, অকাল বীর্যপাত ও লিঙ্গ উথান সমস্যা দূর করে সুস্থ যৌনজীবন দেয় জাফরান৷

জাফরানের ২০টি ঔষধি গুন বিশ্বের সবচেয়ে দামী মশলা জাফরান। স্যাফরন বা কেশর নামেও এটি পরিচিত৷ এই মশলা নামীদামী অনেক খাবারে ব্যবহৃত হয়। খাবারের স্বাদ, ঘ্রাণ, রঙ বাড়িয়ে তুলতে এই ‘গোল্ডেন স্পাইস’ এর জুড়ি নেই। তবে জাফরানের কাজ শুধু এরমধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। জাফরানের মধ্যে রয়েছে অসাধারণ ঔষধিগুণ। জাফরানে রয়েছে বিস্ময়কর রোগ নিরাময় ক্ষমতা৷মাত্র ১ চিমটে জাফরান আপনাকে প্রায় ২০ টি শারীরিক সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। ১. জাফরানে রয়েছে পটাশিয়াম যা উচ্চ রক্ত চাপ ও হৃদপিণ্ডের সমস্যা জনিতরোগ দূর করে।
২. হজমে সমস্যা এবং হজম সংক্রান্ত যে কোনও ধরনের সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে জাফরান।
৩. জাফরানের পটাশিয়াম আমাদের দেহে নতুন কোষ গঠন এবং ক্ষতিগ্রস্থ কোষ সারিয়ে তুলতে সহায়তা করে।
৪. জাফরানের নানা উপাদান আমাদের মস্তিষ্ককে রিলাক্স করতে সহায়তা করে, এতে করে মানসিক চাপ ও বিষণ্ণতা জনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়৷
৫. মেয়েদের মাসিকের অস্বস্তিকর ব্যথা এবং মাসিক শুরুর আগের অস্বস্তি দূর করতে জাফরানের জুড়ি নেই।
৬. নিয়মিত জাফরান সেবনে শ্বাস প্রশ্বাসের নানা ধরণের সমস্যা যেমন অ্যাজমা,পারটুসিস, কাশি এবং বসে যাওয়া কফ দূর করতে…