সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

সব দুয়ার খোলা ফিজিক্স বা পদার্থবিজ্ঞানে

আজকের দুনিয়ায় মানুষ পদার্থবিজ্ঞানকে তাদের কর্মক্ষেত্রে ব্যবহারে এমন সব সফলতা পাচ্ছে যা কল্পনার বাইরে। একজন বিজ্ঞানী শুধু নয়, আবহাওয়াবিদ থেকে একজন ভিডিও গেমস ও নক্সাবিদ সবাই এ শিক্ষাকে কাজে লাগাচ্ছে। এমন কোনো ক্ষেত্রই নেই যেখানে পদার্থকে খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাই একজন পদার্থবিদ হয়ে আলোকিত ক্যারিয়ারের হাতছানিতে সাড়া দেয়াটা খুব একটা অবাস্তব নয়। পদার্থ বা ফিজিক্স শব্দটি গ্রিক শব্দ থেকে এসেছে। যার অর্থ প্রকৃতি। প্রকৃতি সম্পর্কিত জ্ঞানকেই মূলত ফিজিক্স বলতে বোঝানো হয়। প্রকৃতির অজানা বিষয়গুলোর রহস্য উদ্ঘাটনের জের ধরেই আজকের পদার্থবিজ্ঞান। প্রথমদিকে বিজ্ঞান চর্চা ব্যবলিয়ানবাসীর মধ্যে শুরু হলেও তা সম্প্রসারিত হয়ে গ্রিস, ইরান, ভারত, ইউরোপ, মধ্যে এশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে। ২০ শতাব্দীতে এসে পদার্থবিদরা বিজ্ঞান চর্চায় যে বিপ্লব ঘটায় তার ফলাফল আজকের টিভি, রেডিও, কোয়ান্টাম থিওরি, ডিএনএ মলিকিউলার, ট্রান্সসিস্টর, লেজার, পারমাণবিক বোমা এক কথায় আজকের আধুনিক জীবন।

পদার্থবিজ্ঞানের অবস্থান: বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের সাইন্স ব্যাকগ্রাউন্ডের যে কার তালিকার শীর্ষে পদার্থবিজ্ঞানের অবস্থান। পদার্থবিদ্যা এমন একটি বিষয়, যে বিষয়ে পড়াশোনা করে সব ক্ষেত্রেই রয়েছে কাজের সুযোগ। পদার্থবিজ্ঞানের হাত ধরেই আজকের এ আধুনিক বিজ্ঞান। আর এ বিষয়কে জনপ্রিয় করতে সব দেশেই রয়েছে প্রচেষ্টা। সেই প্রচেষ্টার অন্যতম অংশ বাংলাদেশের ফিজিক্স অলিম্পিয়াডসহ অন্যান্য বিষয়ে ডিগ্রি নেয়ার পর আশানুরূপ চাকরিতে ঢুকতে না পারলেও বিশ্বের প্রতিটি দেশেই পদার্থবিদ্যার কদর রয়েছে। গণিত ও পদার্থে ভালো এমন যে কেউই পড়তে পারে এ বিষয়ে। এছাড়া বিসিএস করে ১ম শ্রেণীর কর্মকর্তা হয়ে সরাসরি কাজে যোগদানের সুযোগ রয়েছে এ বিষয়ের শিক্ষার্থীদের।
যাদের অবদানেই আধুনিক বিজ্ঞান: বর্তমানে আমরা যে আধুনিক ও প্রযুক্তিনির্ভর পৃথিবীতে বাস করছি, তা সম্ভব হয়েছে পদার্থবিজ্ঞানের কারণে। পদার্থবিজ্ঞানেরজনক আইজ্যাক নিউটন হলেও গ্যালিলিও, আইনস্টাইন, ম্যাক্স প্লাঙ্ক এদের ভুলার উপায় নেই। এছাড়া আলেকজাণ্ডার গ্রাহাম বেলকে স্মরণে না থাকলেও তার আবিষ্কৃত ফোন আমাদের নিত্যসঙ্গী। এছাড়া নিকলাস কোপারনিকাসের সৌরজগৎ মডেল, স্ট্যাফিন হকিংয়ের ব্লাক হোল আমাদের বিজ্ঞানে যোগ দিয়েছে নতুন মাত্রা। আর উদ্ভিদের প্রাণিতত্ত্ব দিয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল আমাদের দেশেরই জগদীশ চন্দ্র বসু। পদার্থবিজ্ঞানীদের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় আমরা প্রতিনিয়ত জানতে পারছি পৃথিবীর অজানা লুকানো বিষয়গুলো।
সর্বোচ্চ সম্মান নোবেল: পদার্থবিজ্ঞানে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ দেয়া হয় সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ নোবেল। ১৯০১ সাল থেকে শুরু হওয়া এ পুরস্কার প্রতি বছর একবার দেয়া হয় পদার্থবিজ্ঞানে। তাই পদার্থবিদ হয়ে এ বিষয়ে অবদান রাখতে পারলে মারি ক্যুরি, আবদুস সালাম, পিটার হিগস, ফ্রাঙ্কোইস অ্যাংলার্ট, ইসামু আকাসােিকর পাশে নাম লেখানো খুব একটা অকল্পনীয় নয়। 
সব ক্ষেত্রেই চাকরির সুযোগ: পদার্থবিদ্যায় ডিগ্রি নিয়ে যে কেউই রিসার্চ বেসড কিংবা বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় কাজের সুযোগ পেয়ে থাকে। এছাড়া ব্যবসা, ফিন্যান্স, ইঞ্জিনিয়ারিং আইটির ক্ষেত্রেও কদর রয়েছে - অনেকেই আবার প্রোগ্রামারও হচ্ছেন। পদার্থবিজ্ঞানের ফলে চ্যালেঞ্জিং ও সমৃদ্ধশালী ক্যারিয়ারে প্রবেশ করার ক্ষেত্রেও রয়েছে সুযোগ। বিশেষ ক্ষেত্রগুলো শরুতিবিদ্যা, মেডিকেল ফিজিক্স, জ্যোতি শাস্ত্র, ভূতত্ত্ববিদ্যায় পদার্থবিদদের অগ্রাধিকার রয়েছে। সরাসরি একজন পদার্থবিদ ভূমিকম্প বিশেষজ্ঞ, লেকচারার, ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট, আবহাওয়াবিদ, বিজ্ঞানী হিসেবে জয়েন করতে পারেন। এমনকি টেলিভিশন, ট্রান্সপোর্ট, মেডিসিন, ব্যাংকিং, ‘ল’ সাংবাদিকতা পর্যন্ত মানুষ আজ পদার্থবিদ্যাকে ব্যবহার করছে প্রত্যেক্ষ ও পরোক্ষভাবে। 

আয়-উপার্জন: একজন পদার্থবিদ সব সেক্টরে কাজের সুযোগ থাকায় বেতনের স্কেলে ও আলাদা হয়ে থাকে। বিজ্ঞানের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত শাখাতে বেতনের অংকের পরিমাণের আধিক্য লক্ষ্য করা যায়। বেতন ন্যূনতম ৩০ হাজার থেকে শুরু করে কোনো কোনো ক্ষেত্রে লাখও ছাড়ায়। এছাড়া দক্ষতার দিক বিবেচনা করে দেশের বাইরে আয় আরও আকর্ষণীয়। এছাড়াও আবাসন, মেডিকেল, মহার্ঘ্য ভাতারও সুযোগ রয়েছে কোনো কোনো ক্ষেত্রে।

পদার্থবিদ হওয়ার ধাপগুলো: প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সঙ্গে একজন ছাত্রকে ব্যক্তিগতভাবে পদার্থের প্রতি কৌতূহল, আগ্রহ ও কল্পনাশক্তি থাকতে হবে। এছাড়া সমস্যা সমাধান, গণিত ও কম্পিউটার নিয়ে কাজের দক্ষতা গুরুত্বপূর্ণ। মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকে বিজ্ঞানের অন্তর্গত বিষয়ে অর্থাৎ গণিত,পদার্থ, রসায়ন ও জীববিজ্ঞান ৭০ ভাগ থাকতে হবে। এরপর ৪ বছর স্নাতক করা যায়। এ ৪ বছরে পদার্থের বিভিন্ন বিষয় ধাপেধাপে পড়ানো হয় যেমন- বলবিদ্যা, পৃস্টটান, ক্যালকুলাস, তাপগতিবিদ্যা, অপটিকস, কোয়ান্টাম মেকানিকসসহ অন্যান্য বিষয়ে। এরপর ২ বছরের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি। কেউ যদি গবেষণাধর্মী পদার্থবিদ বা প্রফেসর হতে আগ্রহী হয় তখন তাদের অবশ্যই পিএইচডি ডিগ্রি নিতে হয়। যার জন্য ৪ থেকে ৫ বছর সময় লাগে। এরপর যে কেউই সরকারি শিল্প প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিতে পারে।
কোথায় পড়ানো হয়: বাংলাদেশের প্রায় সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিষয়ে অধ্যানের সুযোগ রয়েছে। এছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে কিছু কলেজেও এ বিষয়ে পড়ার সুযোগ আছে। বেসরকারি কিছু বিশ্ববিদ্যালয়েও এ বিষয় পড়ার সুযোগ রয়েছে। এছাড়া দেশের বাইরে ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া সানটা, ওহাইয়ো স্টেট ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ফ্লোরিডা, ক্যালটেক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো শীর্ষে রয়েছে। যেখানে পদার্থবিদ্যা পড়ার সুযোগ রয়েছে।রয়েছে গবেষণা ও ইন্টার্নশিপের সুযোগ 
কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান সুযোগ করে দেয় হাতে-কলমে কাজেরও। তাই সেই শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে বাড়ানো যায় দক্ষতা। পদার্থবিজ্ঞানে অধ্যয়নরতরা দেশ ও দেশের বাইরে বিভিন্ন সংস্থা যেমন- গণসাহায্য সংস্থা (G.S.S), বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন (BAEC),অগ্রণী ন্যাশনাল, ল্যাবরেটরি,কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটি, ডিউক ইউনিভার্সিটি, এলআই।

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

নিরাপদ থাকতে ফেসবুক থেকে মুছে দিন ৮ তথ্য!

বলতে গেলে এখন প্রায় সবাই ফেসবুক ব্যবহার করেন। অসচেতনতায় নিজেরাই অনিরাপদ করছি নিজেদের। সেক্ষেত্রে সবার সচেতন হওয়া জরুরি। যদি সবাই সচেতনভাবে ফেসবুক ব্যবহার করি তাহলে অনাকাঙ্খিত ঘটনাগুলো এড়ানো সম্ভব। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিরাপদ থাকার জন্য আপনার ফেসবুক প্রোফাইল থেকে ৮টি তথ্য এখনই মুছে ফেলুন।
বর্সাতমানে মাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সঙ্গে বেশিরভাগ মানুষই সম্পৃক্ত। কোনো না কোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তারা সদস্য। বলা যায় ভার্চুয়াল জগতের সঙ্গে বাস্তব জগত এখন একাত্মা। বর্তমানে যে হারে খুন ও অপহরণের ঘটনা ঘটছে তাতে নিরাপদ থাকাটা বেশ কঠিন। এসব ঘটনাকে আরো বেশি প্রভাবিত করছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো। ৮টি বিষয়ে সচেতন থাকলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপনি নিরাপদ থাকতে পারবেন।
১. আপনার জন্ম তারিখ: অনেকেই নিজের জন্ম তারিখ ফেসবুকে উন্মুক্ত করে রাখেন। এটি আপনার জন্য অনিরাপদ। কারণ তথ্য প্রযুক্তির যুগে জন্ম তারিখ থেকেই অনেক তথ্য সংগ্রহ করেন হ্যাকারা। অথবা যেকোনো শত্রু এই বিশেষ দিনে টার্গেট করে আপনার ওপর হামলা চালাতে পারে। তাই ফেসবুকে জন্মতারিখ উন্মুক্ত রাখার বিষয়ে সবাইকে সচেতন হতে হবে।
২. আপনার শিশু কোথায় পড়াশুন…

যেভাবে এলো বাঙালির বংশ পদবী! জেনে রাখুন বিসিএস সহ যেকোন চাকরি পরীক্ষায় কাজে আসবে

খুব বেশি প্রাচীন নয়। মধ্যযুগে সামন্তবাদী সমাজ ব্যবস্থার ফলে পরবর্তীতে বৃটিশ আমলে চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের সমান্তরালে বাঙালির পদবীর বিকাশ ঘটেছে বলে মনে করা হয়। অধিকাংশ ব্যক্তি নামের শেষে একটি পদবী নামক পুচ্ছ যুক্ত হয়ে আছে। যেমন উপাধি, উপনাম কিংবা বংশসূচক নামকে সাধারণ ভাবে পদবী বলা হয়।
বাঙালির জমি- জমা বিষয় সংক্রান্ত কিছু পদবী যেমন- হালদার, মজুমদার, তালুকদার, পোদ্দার, সরদার, প্রামাণিক, হাজরা, হাজারী, মন্ডল, মোড়ল, মল্লিক, সরকার, বিশ্বাস ইত্যাদি বংশ পদবীর রয়েছে হিন্দু -মুসলমান নির্বিশেষে সকল সম্প্রদায়ের একান্ত রূপ। বাঙালি মুসলমানের শিক্ষক পেশার পদবী হলো-খন্দকার, আকন্দ, নিয়াজী ইত্যাদি। আর বাঙালি হিন্দুর শিক্ষক পদবী হচ্ছে দ্বিবেদী, ত্রিবেদী, চর্তুবেদী ইত্যাদি।

এবার আপনাদের জানাবো বাঙালির কিছু বিখ্যাত বংশ পদবীর ইতিহাস। যেমন-শিকদার, সৈয়দ, শেখ, মীর, মিঞা, মোল্লা, দাস, খন্দকার, আকন্দ, চৌধুরী, ভুইয়া, মজুমদার, তরফদার, তালুকদার, সরকার, মল্লিক, মন্ডল, পন্নী, ফকির, আনসারী, দত্ত ইত্যাদি।

শিকদারঃ সুলতানি আমলে কয়েকটি মহাল নিয়ে গঠিত ছিল এক একটি শিক। আরবি শিক হলো একটি খন্ড এলাকা বা বিভাগ। এর স…

আঁচিল ঝরান প্রাকৃতিক উপায়ে

আঁচিলের কারণে অনেক সময় সৌন্দর্যে ভাটা পড়ে। শরীরের নানা স্থানে আঁচিল হতে দেখা যায়।এটি সাধারণত কালো, বাদামী, লাল, গোলাপি রঙের হয়ে থাকে। একেক জনের ক্ষেত্রে এর আকার, আকৃতি ভিন্ন ভিন্ন রকম হয়। এটি অনেক সময় এমনিতেই সেরে যায়। অনেক সময় রয়ে যায় স্থায়ী দাগ হয়ে। আঁচিল দূর করা যায় দুই ভাবে। সার্জিক্যালি এবং প্রাকৃতিক উপায়ে। আঁচিল সমস্যা সমাধানে কয়েকটি নিরাপদ ঘরোয়া উপায় জেনে রাখা ভালো। নিজের এবং অন্যের প্রয়োজনে যেকোনো সময় কাজে দিতে পারে।
অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার খুবই পরিচিত একটি নাম। দিনে দু’বার আঁচিলের ওপর তুলোয় করে অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। চোখের পাতায় যদি লাগান খেয়াল রাখুন যাতে ভেতরে না যায়। নিয়মটি অনুসরণ করুন ২-৪ সপ্তাহ। আঁচিল ঝরে পড়বে।
ক্যাস্টর ওয়েল এবং বেকিং সোডা একসাথে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করে আঁচিলের ওপর ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। শুকালে ধুয়ে নিন। সবচেয়ে ভালো ফল পেতে রাতে লাগিয়ে রেখে সকালে ধুয়ে নেবেন। দ্রুত আঁচিল করার জন্য টি ট্রি ওয়েল অত্যন্ত কার্যকরী। সুপার শপ বা শপিং মলে এই তেল পাওয়া যায়। ভেজা তুলায় ক’ফোঁটা টি ট্রি ওয়েল নিয়ে আঁচিলের ওপর মিনিট দশেক লাগ…