সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

পোস্টগুলি

September, 2016 থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

ফ্রিজে বা যাদের ফ্রিজ নেই তারা কোরবানীর গরুর মাংস কিভাবে সংরক্ষণ করবেন এবং কতদিন রাখা যাবে?

প্রায় সারাদিন ধরেই সবার ঘরে চলবে কোরবানির মাংস রান্নার নানা আয়োজন। কিন্তু এ ঈদে মাংস বেশি হওয়ায় তা সংরক্ষণ করা বেশ কঠিন হয়ে পড়ে। যাদের ফ্রিজ আছে তাদের কোনো চিন্তা নেই। কিন্তু যাদের ফ্রিজ নেই, তারা মাংস সংরক্ষণ করবেন কীভাবে? আবার মাংস যদি সঠিক উপায়ে সংরক্ষণ করা না হয় তাহলে খুব দ্রুতই তা নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই সঠিক উপায়ে মাংস সংরক্ষণের পদ্ধতি জানা খুব দরকার।
পাঠকদের সুবিধার্থে কোরবানির মাংস সঠিকভাবে সংরক্ষণের কিছু সহজ পদ্ধতি জানিয়ে দেয়া হল।

ফ্রিজে রেখে মাংস সংরক্ষণ
সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি হলো ফ্রিজে রেখে মাংস সংরক্ষণ করা। কিন্তু ফ্রিজে রেখে মাংস সংরক্ষণ করতে হলেও কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয়।

– মাংস সংরক্ষণ করার আগে প্রথম ধাপ হলো ফ্রিজ পরিষ্কার করা। ঈদের আগের দিন ফ্রিজ বন্ধ করে ভেতরের সব মাছ, মাংস বের করে ভেতরটা ভালোমতো পরিষ্কার করে নিন। কারণ মাছ, মাংস রাখতে রাখতে ফ্রিজের ভেতরে একটা বাজে গন্ধ হয়ে যায়। তাই ঈদের আগে ফ্রিজ পরিষ্কার না করে মাংস সংরক্ষণ করলে সেই মাংসে বাজে গন্ধ হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

– মাংস সংরক্ষণের আগে তা পানি দিয়ে ধুয়ে রক্ত পরিষ্কার করে নিন। এবার বড় চালনিতে করে মাংসের পানি ঝরিয়ে ফ্য…

জামালপুরে এইডস নিরাময়ের ওষুধ আবিস্কার

জামালপুর শহরের মধ্য বাগেরহাটা এলাকার মোস্তাফিজুর রহমান মোহন নামের একজন কবিরাজ দেশিয় গাছ-গাছালি ও লতা-পাতার নির্যাস দিয়ে এইডস নিরাময়ের ওষুধ আবিস্কার করার দাবি জানিয়েছেন। সেই মহৌষধ সেবন করে ইতিমধ্যেই তিনজন রোগী শতভাগ এইডসমুক্ত হয়েছেন এবং ৪র্থ রোগী ক্রমেই সুস্থ্য হয়ে উঠছেন। সরকারী বা বেসরকারী পৃষ্ঠপোষকতা পেলে বাংলাদেশ তথা সারা বিশ্বের এইডস রোগীদের মরণব্যাধি এইডস থেকে রক্ষা করা সম্ভব হবে বলে দাবি করেছেন মোহন কবিরাজ। এইডস নিরাময়ের মহৌষধ উদ্ভাবক মোস্তাফিজুর রহমান মোহন কবিরাজ জানান, তার পিতা এবং পিতামহ দুজনই কবিরাজ ছিলেন। 
তারা জীবদ্দশায় দেশিয় গাছ-গাছালি ও লতা-পাতার নির্যাস দিয়ে বিভিন্ন রোগের ওষুধ তৈরি করে রোগাক্রান্ত শত শত মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে সুস্থ্য করেছেন। ওইসব পূর্ব পুরুষদের ওষুধি তথ্য সূত্রের ভিত্তিতে মোহন কবিরাজ দেশীয় গাছ গাছালি ও লতা-পাতার নির্যাস দিয়েই তৈরি করেছেন এইডস নিরাময়ের মহৌষধ। তিনি পরীক্ষামূলকভাবে সেই মহৌষধ সেবন করিয়ে ইতিমধ্যেই চগ্রামের স্বপন, ঢাকার আশরাফ ও কুমিল্লার জেবুন্নাহার নামের তিনজন রোগীকে শতভাগ এইডসমুক্ত করেছেন। এ ছাড়াও জামাল নামের চতুর্থ রোগীকে এইডসমুক্ত করতে…